জয়নাল আবেদীন: মহান বিজয় দিবসে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বাধীনতা স্মারকে শ্রদ্ধা নিবেদনের নামে জাতীয় পতাকা বিকৃত করে প্রদর্শন করার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় বিশ্ববিদ্যালয় ১৯ শিক্ষক কর্মকর্তা আদালতে আত্মসমর্পন করে জামিনের আবেদন করলে তাদের জামিন মজ্ঞুর করেছে আদালত। রংপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক ফজলে এলাহি এ জামিন মজ্ঞুর করেন। দুপুর পৌনে একটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হাফিজুর রহমান সেলিম , পরিমলচন্দ্র বর্ম্মন তাবিউর রহমান সহ ১৯ আসামী আদালতে আত্মসমর্পন করে জামিনের আবেদন করে। এ সময় বাদী পক্ষের আইনজিবী খন্দকার রফিক হাসনাইন এ্যাডভোকেট জামিনের বিরোধিতা করে আদালতে বলেন ৩০ লাখ মানুষকে হত্যা ২ লাখ মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতা এবং সেই স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকাকে আসামীরা শুধু বিকৃত করেনি বরং জাতীয় পতাকাকে পদদলিত করে মহান স্বাধীনতার প্রতি চরম অশ্রদ্ধা প্রদর্শন করেছে। অপর দিকে আসামী পক্ষের আইনজিবী আব্দুল হক প্রমানিক এ্যাডভোকেট বলেন আসামীরা জাতীয় পতাকার অবমাননা করেনি আর অভিযোগ জামিন যোগ্য । পরে বিজ্ঞ বিচারক বাদী ও আসামী পক্ষের আইনজিবীর বক্তব্য শুনে আসামীদের জামিন মজ্ঞুর করেন। যে ১৯ জন আসামী আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করেন তারা হলেন বিশ^বিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের অধ্যাপক আর এম হাফিজুর রহমান, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহাকারি অধ্যাপক তাবিউর রহমান প্রধান, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক পরিমল চন্দ্র বর্মণ, মার্কেটিং বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মাসুদ উল হাসান, সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারি অধ্যাপক রাম প্রসাদ বর্মণ, পরিসংখ্যান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রশিদুল ইসলাম, ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক শামীম হোসেন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রভাষক রহমতউল্লাহ, রসায়ন বিভাগের প্রভাষক মোস্তফা কাইয়ুম শারাফাত, ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের প্রভাষক সোহাগ আলী, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক আবু সায়েদ। পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কামরুজ্জামান, ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের সহকারি অধ্যাপক সদরুল ইসলাম সরকার, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারি অধ্যাপক প্রদীপ কুমার সরকার, পরিসংখ্যান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শাহ জামান, অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক মোরশেদ হোসেন, পরিসংখ্যান বিভাগের সহকারি অধ্যাপক চার্লস ডারউন, ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নুর আলম সিদ্দিক, এবং পরিসংখ্যান বিভাগের সেকশন অফিসার (গ্রেড-১) শুভঙ্কর প্রমুখ।উল্লেখ্য মহান বিজয় দিবসে জাতীয় পতাকা বিকৃত করে বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থাপিত স্বাধিনতা স্মারকে প্রদর্শন এবং সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রদর্শনের অভিযোগে মহানগর ছাত্র লীগের সাধারন সম্পাদক শেখ আসিফ ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ সহ সভাপতি আরিফ বাদী হয়ে নগরীর তাজহাট থানায় দুটি পৃথক মামলা দায়ের করে। এ ঘটনা জানাজানি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক শিক্ষার্থী সহ রংপুর তথা সারাদেশে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয় । দায়িদের বিচারের দাবিতে মানব বন্ধন বিক্ষোভ করেশিক্ষক শিক্ষার্থী , ছাত্র সংগঠন সহ বিভিন্ন সংগঠন। পরে এ ঘটনায় জেলা প্রশাসক আসিব আহসান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট গোলাম রব্বানীকে আহবায়ক রংপুর মেট্রোপলিটান পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার শেখ মোঃ জিয়াহ আল মামুন ও বীরমুক্তিযোদ্ধা সদরুল আলম দুল তিন সদস্য বিশিষ্ট

তদন্ত কমিটি গঠন করে।তদন্ত কমিটি ঘটনা স্থল পরিদর্শন প্রত্যক্ষদর্শী ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ছবি সহ অন্যান্য বিষয় তদন্ত করে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয় ‘১৬ ডিসেম্বর ২০২০ মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে বেগম রোকেয়া বিশ^বিদ্যালয় (বেরোবি) এর ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে অবস্থিত স¦াধীনতা স্মারক চত্বরে জাতীয় পতাকার নকশা পরিবর্তন করে সবুজের ভিতর লাল বৃত্তের পরিবর্তে চার কোনা আকৃতির বিকৃত পতাকা দিয়ে কয়েকজন শিক্ষক-কর্মকর্তা কর্তৃক ছবি তোলার সত্যতা পাওয়া গেছে, যা জাতীয় পতাকা অবমাননার শামিল এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের পতাকা বিধিমালা, ১৯৭২ এর বিধি ৩ এর পরিপন্থী। তদন্ত প্রতিবেদনে জাতীয় পতাকা অবমাননার জন্য ১৯ জন শিক্ষক ও কর্মকর্তাকে অভিযুক্ত করা হয়।

Previous articleঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলে আগুনে ৪০ টি ঘর পুড়ে ছাই
Next articleউল্লাপাড়ায় খেতেই থাকছে ফুলকপি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।