তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পৌরসভার নির্বাচনে এক পরিবারেই দুই ভাই মেয়র ও কাউন্সিলর পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে একই সাথে গনসংযোগ করছেন। তারা হলেন-নাসির উদ্দিন সগির ও তার ছোট ভাই তাইফ উদ্দিন শান্ত।

নাসির স্বতন্ত্র মেয়র পদে ও তাইফ ৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

নাসির উদ্দিন রায়পুর পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর। তিনি একই ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। গত সংসদ নির্বাচনে লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর ও সদরের একাংশ) আসনে কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের পক্ষে ভোট করায় দল থেকে বহিষ্কার করা হয়।

নাসির ও তাইফ পৌরসভার দেনায়েতপুর এলাকার সরকারি হাসপাতাল সংলগ্ন-নুরুল ইসলাম মুন্সি বাড়ির বাসিন্দা।

এদিকে সগির ছাড়াও আওয়ামী লীগের প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাট, বিএনপির এবিএম জিলানী, ইসলামী আন্দোলনের আবদুল খালেক ও জামায়াত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যাপক (অবঃ) মনির আহমেদ মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

রুবেল ভাট কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য। জিলানী রায়পুর পৌরসভার সাবেক দুইবারের মেয়র ও পৌর বিএনপির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

নির্বাচন কর্মকর্তা কার্যালয় সূত্র জানায়, ঋণ খেলাপি ও দাখিল করা কাগজপত্রে ত্রুটি থাকায় ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে আহসান উল্যা, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মো. ইউসুফ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের গোলাম হায়দারের প্রার্থিতা চূড়ান্ত হয়নি। এজন্য তারা উচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হয়ে বলে জানান।

এছাড়া ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে বিএনপি সমর্থিত ফেরদৌসী আরা স্বপ্না একমাত্র প্রার্থী। তিনি বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় জয়ের পথে।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, ২৮ ফেব্রুয়ারি রায়পুর পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলর পদে নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। ১১ ফেব্রুয়ারি মনোয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। হলফনামা যাচাই-বাছাই শেষে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে।

রায়পুর পৌরসভায় ২৩ হাজার ৬৩১ জন ভোটার রয়েছে। পুরুষ ১১ হাজার ৬৪১ ও নারী ১১ হাজার ৯৯০ জন। ইলেকট্রনিক ভোট মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণ করা হবে।

রায়পুর উপজেলা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দিপঙ্কর বিশ্বাস বলেন, এখনো পর্যন্ত পাঁচজন মেয়র প্রার্থী, ৫৬ জন সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য আমাদের প্রস্তুতি চলছে।