প্রদীপ অধিকারী: করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় শিক্ষার্থীদের ১০ হাজার টাকা অনুদান দেবে সরকার। এমন গুজবে কান দিয়ে নিবন্ধন করার জন্য জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার বিভিন্ন কম্পিউটারের দোকান ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার গুলোতে কাগজভর্তি ফাইল নিয়ে শিক্ষার্থী অভিভাবক ছোটাছুটি করছেন। গত রবিবার (০৭ মার্চ) থেকে উপজেলার বিভিন্ন কম্পিউটারের দোকান ও ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার গুলোতে এমন চিত্র দেখা যাচ্ছে। সরেজমিনে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা অভিভাবকরা প্রতিষ্ঠান প্রধানের দেওয়া প্রত্যয়নপত্র, জম্ম নিবন্ধন ও অভিভাবকের জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে কম্পিউটারের দোকান ও ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার গুলোতে ফরম পূরণের অপেক্ষা করছেন । সার্ভার সমস্যার কারনে আবেদনে ধীর গতি হওয়ায় এক দোকান থেকে অন্য দোকানে ছোটাছুটি করছেন তারা। আবেদন করতে আসা কড়িয়া ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ফারজুআরা বলেন, “বগুড়া থেকে তার এক বান্ধবী ফোন করে বলেছেন, সরকার নাকি ১০ হাজার টাকা অনুদান দেবে। সেই অনুদানের জন্য নিবন্ধন করতে আমিও এসেছি। শিক্ষার্থী সাইদী ইসলাম রিমন বলেন, “ফেসবুকে বন্ধুদের কাছে শুনেছি ১০ হাজার টাকা অনুদানের কথা। এরপর স্কুলের স্যারের কাছে গেলে তিনি কিছু বলতে পারেননি। প্রতিষ্ঠানের প্রত্যয়নসহ বিভিন্ন কাগজপত্র নিয়ে নিবন্ধনের জন্য বন্ধুরা মিলে কম্পিউটারের দোকানে এসেছি।” উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের অভিভাবক হাসিনা বেগম অনেকের মুখে অনুদানের কথা শুনে এসেছেন ছেলের জন্য নিবন্ধন করতে। তিনিও বলতে পারলেন না কে অনুদান দেবে, কেন দেবে! খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ১৮ জানুয়ারী/২১ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের বাজেট শাখা থেকে সিনিয়র সহকারী সচীব মোঃ ফজলুর রহমান স্বাক্ষরিত একটি চিঠি প্রকাশ করে। প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মেরামত ও সংস্কার, আসবাবপত্র ক্রয়সহ অন্যান্য উন্নয়ন কাজের জন্য, শিক্ষক-কর্মচারীরা তাদের দুরারোগ্য ব্যাধি ও দৈব দুর্ঘটনার সহায়তার জন্য এবং শিক্ষার্থী যারা দুরারোগ্য ব্যাধি, দৈব দুর্ঘটনা এবং শিক্ষা গ্রহণ কাজে ব্যয়ের জন্য আবেদন করতে পারবে। তবে শিক্ষার্থীদের এ বিশেষ অনুদান দেওয়ার ক্ষেত্রে দুঃস্থ, প্রতিবন্ধী, অসহায়, রোগাক্রান্ত, গরিব, মেধাবী, অনগ্রসর সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেওয়ার নির্দেশনা রয়েছে। যেখানে অনুদান প্রদানের বিজ্ঞপ্তিতে টাকার পরিমাণ উল্লেখ নেই। কিন্তু বিভিন্ন মাধ্যমে গুজব ছড়ানো হয় সবাইকে ১০ হাজার টাকা করে অনুদান দেয়া হবে। সেই গুজবের রেশ ধরে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় দিনভর এমনকি রাতেও নিবন্ধনের জন্য কম্পিউটারের দোকান গুলোতে ভিড় করে শিক্ষার্থী অভিভাবকরা। আরো জানা যায়, এই অনুদানের আবেদনের সময়সীমা ছিল ১লা ফেব্রুয়ারী হতে ২৮ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত। পুনরায় সেই সময়সীমা বাড়িয়ে করা হয় ৭ মার্চ পর্যন্ত। সর্বশেষ গতকাল ৭ মার্চ আবার তৃতীয় দফায় আবারো আবেদনের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে ১৫মার্চ/২১ পর্যন্ত। এদিকে মাউশির বিজ্ঞপ্তিতে অনুদানের টাকার পরিমাণ উল্লেখ না থাকলেও ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাউশি থেকে ১০ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়ার কথা ছড়িয়ে পড়েছে। এই অনুদানের টাকা পাওয়ার জন্য করোনা পরিস্থিতিতে বন্ধ থাকা জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার স্কুল কলেজ ও মাদ্রাসা গুলোতে গত তিনদিন ধরে প্রত্যয়নপত্র নেওয়ার জন্য ভিড় করে হাজার হাজার শিক্ষার্থী অভিভাবক। এবিষয়ে ধরঞ্জী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সফিকুল ইসলাম বলেন, সরকারীভাবে এরকম কোন নির্দেশনা প্রতিষ্ঠানে আসেনি। ছাত্র/ছাত্রীরা প্রত্যয়ন নিতে আসলে তা দিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এবিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা টিএম আব্দুল হামিদ বলেন, এটি প্রতি বছর স্বল্প সংখ্যক শিক্ষক, কর্মচারীরা তাদের দুরারোগ্য ব্যাধি ও দৈব দুর্ঘটনার সহায়তার জন্য এবং দুঃস্থ, প্রতিবন্ধী, অসহায়, রোগাক্রান্ত, গরিব, মেধাবী, অনগ্রসর সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীদের দেওয়া হয়। এটি তারই একটি অংশ মাত্র। তবে করোনার কারনে এটি দেওয়া হবে এটি গুজব।

Previous articleরংপুরে নানা আয়োজনে পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক নারী দিবস
Next articleলক্ষ্মীপুরে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকে কটুক্তি করায় যুবক আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।