তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার হাজিমারা এলাকায় ভূমিহীনদের সরকারের দেওয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় বেশ কয়েকটি ঘরের মেঝে ও দেয়ালে ফাটল দেখা দিয়েছে। অপরদিকে, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা নাই ও বিদ্যুৎ নাই। পাশে একটি পুকুর আছে, সেটিতেও ৭দিন ধরে পানি নাই। এতে বসবাস করা পরিবারগুলো আতংকে ও দুর্ভোগে রয়েছেন বলে তারা অভিযোগ করেন। উদ্বোধনের ৫১ দিনের মাথায় গত শুক্রবার (১২ মার্চ) রায়পুরে ৬ টি ঘরের দেয়াল ও মেঝেতে ফাটল দেখা দেয়ায় বরাদ্দপ্রাপ্তদের মাঝে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।

গত ২৩ জানুয়ারী “গৃহহীনদের ঘর পাচ্ছেন স্বচ্ছলরা” ! এ শিরোনামে দু’টি অনলাইনে অনুসন্ধানী সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। রিপোটের পরই টনক নড়ে কর্মকর্তাদের। পরে তারা কয়েকটি নাম কেটে দিয়ে পুনরায় তালিকা করেছেন।।

উপজেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্র জানায়, গত ২৩ জানুয়ারি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করার পর একযোগে উপজেলা পরিষদের হলরুমে সুবিধাভোগী পরিবারগুলোর হাতে ঘর ও জমির দলিল তুলে দেয়া হয়। এর মধ্যে রায়পুর উপজেলায় ১১৫টি পরিবার রয়েছে।

রায়পুর উপজেলায় ২৫ ঘর নির্মাণের জন্য প্রতিটি ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা করে বরাদ্দ দেয়া হয়। ওই প্রকল্পের গৃহ নির্মাণ বাস্তবায়নে সভাপতি হিসেবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাবরীন চৌধুরী ও কাজের তদারকিতে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা দিলীপ দে দায়িত্ব পালন করেন

সংশ্লিষ্টরা জানান, উপজেলার দক্ষিন চরবংশি ইউনিয়নের হাজিমারা সুইজ গেইট মেঘনা নদী সংলগ্ন হাজিমারা এলাকায় ২৫টি ঘর নির্মাণ হয়।।বর্তমানে আরো ২৫টি ঘর নির্মাণের কাজ চলছে।

স্থানীয়রা জানান, উদ্বোধনের পর ৬টি ঘরের পিলার, মেঝ ও দেয়ালসহ বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দেয়। বিষয়টি এলাকায় আলোচনায় উঠে আসে ও সমালোচনা শুরু হয়েছে।

রাজমিস্ত্রি সুভাশ ও মোবারক জানান, ৬৫ জনের মতো শ্রমিক মিলে গত দেড় মাসে ঘরগুলো নির্মাণ করেছেন। সময় কম ও বাজেটও কম পাওয়ায় দ্রুততার সাথে কাজ করতে হয়েছে। ভিটের মাটি নরম থাকায় ঘরগুলোতে ফাটল ও মেঝে দেবে গেছে। দিন দিন আরও ফাটল বাড়তে পারে বলে তিনি আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন। এখন রাজমিস্ত্রী-মোবারকের তত্ববধানে ১৫ জন শ্রমিক আরো ২৫টি ঘর নির্মাণের কাজ করছেন।

চরলক্ষি গ্রামের মোহাম্মদ আলী ফকিরকে বরাদ্দ দেয়া ২০ নম্বর ঘরের দেয়ালে ফাটল দেখা দিয়েছে ও মেঝের আস্তর উঠে গেছে।

৭ নাম্বারে বরাদ্ধপ্রাপ্ত-আয়শা খাতুন বলেন, ‘আমরার নামে পাওয়া এই ঘরডায় একটু ভেতরে আইয়া দেহুন, সব ফাইটা গেছে। অহনও ঘরে পারও হই নাই, ভয় করতাছে যদি ভাইঙ্গা মাথার ওপরে পড়ে। তিনডা ছুডু ছুডু আবুদুব লইয়া থাহন লাগবো।’

তার পাশর ঘরের বরাদ্দপ্রাপ্ত রহিম মিয়া ও সাজেদা বেগম জানান, তারা কয়েকদিন আগে ঘরে বসবাস শুরু করেন। তাদের ঘরগুলোতে পিলারসহ বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দা আজমত আলী ও খোরশেদসহ বেশ কয়েকজনের অভিযোগ, গৃহ নির্মাণে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার ও সিমেন্ট কম দিয়ে মিস্ত্রিরা কোনোরকমে ঘর তৈরি করে দিচ্ছেন। এ জন্যই দেয়াল, মেঝেতে ফাটল দেখা দিয়েছে। বর্ষা শুরু হলে বেশির ভাগ ঘরই টিকবে না, ভেঙে পড়ে যাবে। তারা সরকারের কাছে টেকসই মজবুত ঘর নির্মাণের জন্য দাবি জানান।

৮ নাম্বার বরাদ্ধপ্রাপ্ত শাহজাহান মিয়া (৭০) বলেন, ‘এই কুলে আমার দুই মাইয়া আছে। একজন ছোড, আরেকজন মাইনসের বাড়িত কাম করে। আমি ভিক্ষা করে চলি। প্রধানমন্ত্রী আমারে একটা ঘর উপহার দিয়েছেন। এই ঘরের ওয়ালডা ফাইট্টা গেছে। তিনি (প্রধানমন্ত্রী) তো ঠিকই দিছেন, মেস্তরিরা কাম ভালা করছে না। এই ঘর যদি ভাইঙ্গা আমার শইলের ওপরে পড়ে, ঘরের মধ্যে যদি আমার জীবন শেষ হয়, তাইলে এই ঘরের আমার কোনো দরকার নাই।’

দক্ষিন চরবংশি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সালেহ মিন্টু ফরাজির দাবি করেন, বরাদ্ধ কম হওয়ায় ঘরগুলো নিম্নমানের তৈরি। কিন্তু সময় কম থাকায় ও আশপাশে ইরি খেতে পানি দেয়ায় ঘরে ফাটল ও দেবে গেছে। পরে ঠিক হয়ে যাবে।

এবিষয়ে বক্তব্য জানার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাবরীন চৌধুরীর সরকারি মোবাইলে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি তা রিজিব করেননি। ম্যাসেজ পাঠালেও উত্তর দেননি। তবে, তার কার্যালয় থেকে বলা হয়েছে-তাদের তদারকি বা আন্তরিকতায় কোনো ঘাটতি ছিল না। প্রতিটি ঘরই ভালো ইট, সিমেন্ট, বালু, কাঠ, টিন দিয়ে যত্নসহকারে নির্মাণ করা হয়েছে। এগুলো আমাদের তত্ত্বাবধানে রাখা হয়েছে।’

জেলা প্রশাসক (ডিসি) আনোয়ার হোসেন আকন্দ বলেন, রায়পুরে চরকাছিয়া গ্রামের ঘরগুলো পরিদর্শন করেছি। প্রয়োজনীয় মেরামতের মাধ্যমে ব্যবহার উপযোগী করতে উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছি। সর্বোচ্চভাবে নজরে রাখছি।

উল্লেখ্য,-প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের অধীনে রায়পুর উপজেলার ‘যার জমি আছে, ঘর নেই’ তাদের জন্য ১১৫টি ঘর নির্মাণ বাবদ বরাদ্দ আসে। প্রতিটি ঘর নির্মাণে ব্যয় ধরা হয় এক লাখ টাকা ৭০ হাজার টাকা। যার মধ্যে প্রথম শ্রেণির ঘর পাবেন, যাদের জমি নেই ও ঘরও নেই তারা। সরকারি খাস জমিতে প্রায় ৫০০ বর্গফুটের প্রতিটি বাড়িতে রয়েছে দুটি বেড রুম, একটি করে রান্না ঘর, ইউটিলিটি রুম, টয়লেট ও বারান্দা। দুর্যোগসহনীয় এসব ঘর হবে টেকসই এবং প্রতিটি ঘরেই থাকবে সোলার সিস্টেম আর বজ্রপাত নিরোধক ব্যবস্থা উপজেলা কার্যালয় থেকে ইতোমধ্যে বরাদ্দের অর্থ তুলে গৃহ নির্মাণ সামগ্রী তৈরি করেন সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিরা।

Previous articleলক্ষ্মীপুরে আগুনে দগ্ধ মানসিক প্রতিবন্ধী মায়াও নেই, ঘরও নেই
Next articleকলাপাড়ায় নদী রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।