তাবারক হোসেন আজাদ: নৌকা শুধু জলে নয়, চলবে স্থলেও। সড়কে নৌকা চালিয়ে ঢাকায় আসছেন লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার ইউসুফ। মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে ব্যতিক্রমী নৌকাটি বানিয়েছেন কারিগর ইউসুফ। তিনি নৌকাটি উপহার দিতে চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে।

ইউসুফ নৌকাটির নাম রেখেছেন জলডাঙা মুজিব পরিবহন। তৈরিতে ব্যয় হয়েছে প্রায় ১৫ লাখ টাকা। ২৪ আসনের এ পরিবহনে রয়েছে বাসের মতো স্টিয়ারিং, আবার পানিতে চলার জন্য রয়েছে দুটি পাখা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে আগামী ১৭ মার্চ সড়কপথে যাত্রী নিয়ে রামগতির চরকলাকোপা গ্রাম থেকে উভচর নৌকা নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেবেন ইউসুফ। উভচর এ নৌকা দেখতে ভিড় করছেন আশপাশের বিভিন্ন এলাকার মানুষ।

নিপুন কারিগর ইউসুফ রামগতি উপজেলার চরপোড়াগাছা ইউনিয়নের পূর্বচর কলাকোপা গ্রামের আবুল কালামের ছেলে।

জানা যায়, চার চাকা বিশিষ্ট নৌকাটি জাতীয় পতাকার লাল-সবুজ রঙ দিয়ে সাজানো। আবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিও আঁকা রয়েছে। এ নৌকায় ওঠার জন্য উড়োজাহাজের আদলে সিঁড়ি নির্মাণ করা হয়েছে। এতে গিয়ার, ফলোক্যামেরা, হেডলাইট, ইন্ডিকেটর, এসি ফ্যান, হর্ন এবং মিটার বোর্ডও রয়েছে। আছে দৃষ্টিনন্দন ডিজাইনের ছাউনিও।

নৌকার কারিগর মো. ইউসুফ জানান, জলডাঙা মুজিব পরিবহনটি বঙ্গবন্ধুর প্রতি তার ভালোবাসার প্রতীক। প্রায় ১৫ লাখ টাকায় তিনি নিজেই তিন বছর ধরে এ নৌকা বানিয়েছেন। ১৭ মার্চ সড়কপথে প্রধানমন্ত্রীকে উপহারটি দিতে তিনি যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেবেন। তার প্রবল ইচ্ছে— প্রধানমন্ত্রী তার নৌকায় চড়বেন অথবা অন্তত একবার হাত দিয়ে ছুঁয়ে দেখবেন।

এ ব্যাপারে রামগতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল মোমিন বলেন, ইউসুফ আমার কাছে এসেছে। নৌকার ছবি দেখিয়েছে। আগামী ১৬ তারিখে নৌকাটি জেলা প্রশাসককে দেখাব। নৌকাটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানোর উপযোগী হলে আমরা তাকে সহযোগিতা করব।

Previous articleরায়পুরে যাত্রীবাহী বাস ও কার্ভাড ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ২০
Next articleপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় রূপপুর এনপিপি আজ দৃশ্যমান: বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।