বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ভোলা সদর হাসপাতালে মৃত্যুমুখে পড়েছেন এক প্রসূতি মা। গর্ভবর্তী মায়ের পেট থেকে মৃত সন্তান বের করার সময় মাথা ছিঁড়ে ফেলেন হাসপাতালের এক নার্স ও এক আয়া। এতে, পেটের মধ্যেই থেকে যায় শরীরের বাকি অংশ। ব্যথায় চিৎকার করলে মারধর করা হয় বলেও অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার (২৮ মার্চ) রাতের এ ঘটনার প্রায় ১৪ ঘণ্টা পর অপারেশনের মাধ্যমে পেট থেকে শরীরের বাকি অংশ বের করা হলেও সংকটাপন্ন অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন ওই মা। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

রোগীর স্বজনরা জানিয়েছে, সদর উপজেলার পশ্চিম চরকালি গ্রামের কৃষক মো. জুয়েলের ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী রহিমা বেগমের গর্ভেই সন্তানের মৃত্যু হয়। পরে, গাইনি বিশেষজ্ঞ ডা. সাইফুর রহমানের পরামর্শে শনিবার (২৭ মার্চ) সন্ধ্যায় সদর হাসপাতাল ভর্তি করা হয়। রাত ১১ টায় হাসপাতালের নার্স দেবী ও আয়া কহিনুর মিলে মৃত বাচ্চা পেট থেকে বের করার সময় মাথা ছিড়ে ফেলেন। ওই অবস্থায় প্রায় ১৪ ঘণ্টা চিকিৎসাধীন থাকার পর রোববার দুপুর একটার দিকে অপারেশনের মাধ্যমে বাকি অংশ পেট থেকে বের করা হয়।

বর্তমানে অচেতন অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ওই নারী। রোগীর স্বজনদের অভিযোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার না থাকায় এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে।

হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স জেবুননেছা জানান, নরমাল ডেলিভারির চেষ্টার সময় মাথা ছিড়ে যায়। এতে নার্স বা কর্মচারীর কোনো দোষ ছিল না। রোগীকে মারধরের কথাও তিনি অস্বীকার করেন।

রোগীর সুচিকিৎসা চলছে জানিয়ে হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. মোহাম্মদ মহিবুল্লাহ জানান, ডেলিভারির সময় কিছু জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। ডেলিভারিটি সম্পন্ন না হওয়ায় অপারেশন করা হয়েছে। এ ঘটনায় কারো ভুল থাকলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleএকাত্তরের স্বাধীনতা বিরোধীরাই এখন নৈরাজ্য সৃষ্টি করছে: তথ্যমন্ত্রী
Next articleনানা আয়োজনে রংপুর ক্যান্টনমেন্ট ঘেরাও দিবস পালিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।