জয়নাল আবেদীন: বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে রংপুরে ঐতিহাসিক ক্যান্টনমেন্ট ঘেরাও দিবস পালিত হয়েছে । ১৯৭১ সালের ২৮ মার্চ রংপুরের হাজার হাজার জনতা তীর ধনুক, লাঠি, বল্লমসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে রংপুর ক্যান্টনমেন্ট ঘেরাও করেছিলো। এসময় পাকিস্থানী সেনাদের গুলিতে শহীদ হয়েছিলেন শত শত মুক্তিকামী বীর সেনারা।রংপুরের জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন সংগঠন দিনটি উপলক্ষে নগরির নিসবেতগঞ্জ এলাকায় বীর সেনাদের উদ্দেশ্যে নির্মিত স্মৃতিম্ভ রক্ত গৌরব”এ পুস্পমাল্য অর্পণ করে । জেলা প্রশাসন আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলেরও আয়োজন করে। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটির ব্যানারে সকাল ১১টায় রংপুর নগরিতে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করে । র‌্যালীতে ১৯৭১সালের চিত্র তুলে ধরা হয় । তীর ধনুক লাঠি বল্মব, ছোরা নিয়ে হাজার হাজার বিভিন্ন বয়সের মানুষ র‌্যালিতে অংশ নেয় । এর আগে নিসবেতগঞ্জ এলাকায় বীর সেনাদের উদ্দেশ্যে নির্মিত স্মৃতিম্ভ রক্ত গৌরব”এ পুস্পমাল্য অর্পণ করে । জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ এবং তাঁর অংগ সংগঠনের নেতা কর্মীরাও পুস্পমাল্য অর্পন করে ।বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে বাঁশের লাঠি আর তীর ধনুক হাতে ১৯৭১-এর ২৮ মার্চ রংপুর ক্যান্টনমেন্ট আক্রমণের যে ঘটনা তা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে অম্লান হয়ে থাকবে। ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ সারা দেশে নিরীহ বাঙালিদের হত্যার ঘটনায় ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছিল ২৮ মার্চ রংপুর ক্যান্টনমেন্ট আক্রমণের মধ্যে দিয়ে। তার আগে থেকেই চলছিল এর প্রস্তুতি। ২৫ মার্চের পর রংপুর শহরে পাক সেনাবাহিনীর মহড়া শুরু হয় । রংপুরের আওয়ামী লীগ নেতারা ক্যান্টনমেন্টে বাঙালি সিপাই ও অফিসারের সাথে গোপনে যোগাযোগ করে ক্যান্টনমেন্ট আক্রমণ করার সিদ্ধান্ত নেন। ক্যান্টনমেন্টের ভিতর বসে তাদের সহযোগীতা করেছিলেন ক্যাপ্টেন নওয়াজেশ (পরবর্তীকালে বিএনপির শাসন আমলে তাকে ফাঁসি দিয়ে মৃত্যুদÐ দেয়া হয়) এবং ক্যান্টনমেন্ট ওয়ারলেস অপারেটর নুরুজ্জামান ও ইপিআর বাহিনীসহ ট্যাংক ডিভিশনের বাঙ্গালি সৈন্যরা। সেই সময়ে মুক্তিযুক্তে যারা রংপুর অঞ্চলের সংগঠক ও আওয়ামী লীগের নেতা কর্মী ছিলেন সবাই তখন রংপুরের মানুষের ঘরে ঘরে মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি গড়ে তুলেছেন। ধীরে ধীরে রংপুর হয়ে উঠছিল উত্তপ্ত। নিশবেতগঞ্জ এলাকায় রংপুর ক্যান্টনমেন্টে কর্মরত অবাঙালি আর্মি অফিসার আব্বাসীকে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে সাহেদ আলী নামে এক বীর। হত্যা করার পর অন্য সৈনিকদের কাছ থেকে ৫টি আগ্নেয়াস্ত্র কেড়ে নেয়। নিরস্ত্র ঐ অবাঙালি সৈনিকরা পালিয়ে প্রাণে রক্ষা পায়।২৫ মার্চ মধ্যরাতে ক্যান্টনমেন্টের পাশের গ্রাম নিসবেতগঞ্জ, দামোদরপুরে হামলা চালিয়ে গ্রামের পর গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়। একই সাথে ৩২ জনকে ধরে জুমার নামাজের সময় লাহিড়ির হাটের কাছে একটি মাঠে দাঁড় করিয়ে গুলি করে হত্যা করে। সেদিন বিক্ষুদ্ধ মানুষজনকে সংগঠিত যারা করেছিলেন তারা হলেন- তৎকালীন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মরহুম সিদ্দিক হোসেন, মরহুম সাংবাদিক নোয়াজেস হোসেন খোকা, আব্দুল গণি, তৈয়বুর রহমান (মরহুম), মজিবর রহমান, মুকুল মোস্তাফিজুর, ছাত্রনেতা রফিকুল ইসলাম গোলাপ, মুখতার ইলাহী (শহীদ), মান্নান, আবুল মনসুর, ইসহাক চৌধুরী, আব্দুল আউয়াল

টুকু, ন্যাপ নেতা শামসুজ্জামান, কমিউনিষ্ট নেতা ছয়ের উদ্দিন সহ আরো অনেকে। সে সময় রংপুর ক্যান্টনমেন্ট ওয়ারলেস অপারেটর নুরুজ্জামান সব খবরা খবর মুক্তিযুদ্ধের সংগঠকদের গোপনে পৌঁছে দিতেন। ডা. এম হোসেন (মেডিকেল কোর)-এর সাথে যোগাযোগ করে। আর রংপুর ট্যাংক ডিভিশন সৈন্যরা ছিল প্রায় সবাই বাস্তালি। এদের সাথেও গোপন যোগাযোগ ছিল। এসব নিয়ে গোপন বৈঠক বসত সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম (মরহুম), এ্যাডভোকেট নেছার আহমেদের বাসায় এবং হেলিপ্যাড প্রাইমারি স্কুলে। ২৮ মার্চ ক্যান্টনমেন্টর ভেতরের পরিস্থিতি আওয়ামীলীগ নেতাদের কাছে পৌঁয়ে যাওয়ার আগেই গ্রামের হাজার হাজার বিক্ষুব্ধ মানুষ তীর ধনুক-বল্লম, দা-কুড়াল, আর বাশের লাঠি হাতে ক্যান্টনমেন্টের দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে নিসবেতগঞ্জ হাট ও তার আশ পাশ এলাকাসহ খাঘট নদীর তীর ঘেষে জমায়েত হতে থাকে। দুপুর হতে হতেই সমস্ত এলাকা জনসমুদ্রে পরিণত হয়। ক্যান্টনমেন্ট আক্রমনের জন্য রংপুরের মিকাপুকুর, বলদিপুকুর, বদরগঞ্জ, রাণীপুকুর, মানজাইল, তামপাট, পলিচড়া, রামজীবন, বনগাও, বুড়িরহাট, হারাগাছ, গংগাচড়া ,শ্যামপুর, দমদমা, লালবাগ, গনেশপুর, দামোদরপুর, পাগলাপীর, তারাগঞ্জসহ অন্যান্য এলাকা থেকে। এই সম্মুখ লড়াইয়ে সেদিন সবচেয়ে বেশি ভূমিকা ছিল মিঠাপুকুর অঞ্চলের উপজাতীয় সাঁওতাল তীরন্দাজ বাহিনীর। তারা কয়েকটি দলে বিভক্ত হয়ে ক্যান্টনমেন্টে ঢোকার চেষ্টা করে। সমস্ত ক্যান্টনমেন্ট ঘিরে সমর ‘অস্ত্র প্রস্তুত করে আক্রমণের অপেক্ষায় বসে আছে পাক সৈন্যরা। এই অবস্থার মধ্যে মুখোমুখি অগ্রসর হচ্ছিল তীর ছুঁড়তে ছুঁড়তে সাঁওতাল তীরন্দাজ বাহিনী। এমন সময় পাকসেনাদেও আক্রমনের মুখে গুলি খেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে ক্যান্টমেন্ট আক্রমনকারী শত শত বীর যোদ্ধারা। এরপর সমস্ত লাশ একখানে করে মাটি চাপা দেওয়া হয়। এর পরে এই ঘাঘট নদীর তীর হয়ে উঠে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন বধ্যভূমি, প্রায় দিন এখানে পাকিস্তান সৈন্যরা রাজাকারদের সহযোগিতায় প্রগতিশীল রাজনৈতিক নেতা কর্মী ও নিরীহ মানুষকে ধরে এনে পাশবিক নির্যাতন চালিয়ে গুলি করে হত্যা করতো। মুক্তিযুদ্ধের দীর্ঘকাল অতিবাহিত হলেও আজও এসব শহীদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে কিংবা ঐতিহাসিক এই লড়াইয়ের ইতিহাসকে ধরে রাখার জন্য গড়ে উঠেনি কোন স্মৃতিসৌধ।

Previous articleডেলিভারিতে বাচ্চার মাথা ছিঁড়ে ফেললেন নার্স, দেহ থাকল ভেতরে!
Next articleহেফাজতের হরতালের বিরুদ্ধে ঈশ্বরদীতে যুবলীগের বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।