জয়নাল আবেদীন: রংপুরের পীরগাছায় মাষাণকুড়া নদীর পুনঃখনন কাজের অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রকল্প সংশ্লিষ্ট বলছেন দায়সারা কাজ আর অপরিকল্পিত খননে সরকারের মহৎ উদ্দেশ্য ব্যহত হচ্ছে। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তবে কর্তৃপক্ষের দাবি পুনঃখনন কাজ শেষে পুরো প্রকল্প মূল্যায়ন করে দেখা হবে। কোথাও অনিয়ম হলে ব্যবস্থাও নেয়া হবে। অভিযোগ উঠেছে, মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে মৎস্য দপ্তর মাষাণকুড়া নদীর প্রাণ ফেরাতে পুনঃখননের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এর জন্য বরাদ্দ হয়েছে প্রায় ৬৬ লাখ টাকা। অথচ দায়সারা খননে কমেছে নদীর প্রশস্ততা বাড়ার বদলে উল্টো কমেছে। সঙ্গে অপরিকল্পিত খননের কারণে বর্ষা মৌসুমে আবারো নদীর দুপাড়ের মাটি পড়ে মাষাণকুড়ার তলদেশ ভরাট হবার সম্ভাবনা রয়েছে। পীরগাছা উপজেলার কান্দি ইউনিয়নের মরানদী মাষাণকুড়ার প্রায় দেড় কিলোমিটার জুড়ে পুনঃখনন কাজ চলছে বলে একটি সাইনবোর্ড টানানো হয়েছে প্রকল্প এলাকায়। তবে সেই সাইনবোর্ডটিও চোখে পড়ার মতো নয়। জনসমাগম নেই এমন স্থানে ঝুলে থাকা সাইনবোর্ডটি নিয়েও স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ রয়েছে। নদী থেকে খালে পরিণত মাষাণকুড়ার চারটি অংশ ভাগ করে প্রকল্পের কাজ করা হচ্ছে। তবে একটি অংশেই কাজের তথ্য দিয়ে সাইনবোর্ড টানানো হয়েছে। বাকি তিন অংশে কোনো সাইনবোর্ড নেই। প্রকল্পের কোন তথ্যও নেই। যেন এক অংশের তথ্য দিয়ে চার অংশের কাজ চলছে। গত ১ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে মাষাণকুড়া মরানদীর পুনঃখনন কাজ শুরু হয়। প্রকল্পের কাজ এবছরের ৩১ মার্চ শেষ করার সম্ভাব্য সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে চারটি অংশে ভাগ করা হয়। প্রথম অংশে বরাদ্দ দেওয়া হয় ১৫ লাখ ৪০ হাজার টাকা, দ্বিতীয় অংশে ১৯ লাখ ২০ হাজার, তৃতীয় অংশে ১৩ লাখ ১০ হাজার টাকা ও চতুর্থ অংশে ১৮ লাখ ৭৭ হাজার টাকা। সবমিলিয়ে ৬৬ লাখ ৪৭ হাজার টাকা বরাদ্দ হয়েছে। মাষাণকুড়া এক সময় শাখা নদী ছিল। সময়ের পরিক্রমায় মাটি ভরাট আর দখলদারের কারণে নদীটি সংকুচিত হয়েছে। নদী থেকে হয়েছে খালে পরিণত। এই মরানদীটি পীরগাছা উপজেলার একমাত্র মৎস্য অভয়াশ্রম। এখানে প্রতিবছর প্রচুর পরিমাণে দেশীয় মাছ উৎপাদন হয়। জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্পের (২য় সংশোধিত) আওতায় নদী পুনঃখনন কাজ চলছে। ইতোমধ্যে তৃতীয় ও চতুর্থ অংশের কাজ শেষ হয়েছে। গভীরতার কারণে দ্বিতীয় অংশটির কাজ শুরু করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে প্রথম অংশের কাজ শেষের দিকে। এদিকে স্থানীয় বাসিন্দা ফজলুল হকের সঙ্গে কথা হলে বলেন, আমরা শুনেছি ৬৬ লাখ টাকাও বেশি বরাদ্দ হয়েছে মরানদীর খনন কাজ। অথচ প্রকল্পের লোকেরা প্রচার করছে সরকার নাকি নামমাত্র টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। এত টাকা দিয়ে যদি দেড় কিলোমিটারেরও কম আয়তনের মাষাণকুড়া সঠিক ভাবে পুনঃখনন না হয়। তাহলে সরকারের মহৎ উদ্দেশ্য ব্যর্থ হবে। এখন প্রকল্পের লোকজন অর্থ বরাদ্দ নিয়ে চলছে লুকোচুরি খেলছে।

স্থানীয় ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলাম বলেন, সরকার মৎস্য অভয়াশ্রম বাঁচাতে এবং দেশীয় মৎস উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে উদ্যোগ নিয়েছে। এখানে লাখ লাখ টাকার কাজ হচ্ছে, অথচ কারো কোনো মাথা ব্যথা নেই। সবকিছু দায়সারা ভাবে চলছে। ভেকু (এস্কাভেটর) দিয়ে নদী থেকে মাটি তুলে তা ফেলে রাখা হচ্ছে নদীর পাড়ে। এতে নদীর প্রশস্ততা বাড়ার বদলে উল্টো কমেছে। ঝড়-বৃষ্টির দিন এলে মাটি ধসে আবার নদীতে গিয়ে পড়বে। এভাবে কাজ করে লাভ কি? শুধু শুধু সরকারের টাকা নষ্ট। প্রকল্পের দ্বিতীয় অংশে খনন কাজ হয়নি। কিন্তু ওই অংশের কাজের বিল উত্তোলন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন কৃষক আফতাব মিয়া। তিনি বলেন, মাষাণকুড়ার মূল অংশটি এখনো খনন করা হয়নি। মাছের অভয়াশ্রম অংশটিতে পানির পরিমাণ বেশি এবং গভীরতাও অনেক। সারাবছরই সেখানে পানি থাকে। এই অংশ খননের জন্য ১৯ লাখ ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ আছে। কিন্তু গভীরতার কারণে তলদেশ খনন করা হয়নি। এখন শুনছি প্রকল্পের দ্বিতীয় অংশের চার লাখ ৬৯ হাজার টাকার বিল তুলে নেওয়া হয়েছে। এভাবে কাজ না করে যদি টাকা তোলা যায়, তাহলে তো কাজে অনিয়ম দুর্নীতি হবে। আমরা চাই সরকারি কাজ যাতে দায়সারা না হয়। মাষাণকুড়া নদীর পাড়ের বাসিন্দা ময়না বলেন, জীবনে তো অনেক নদী খোড়া দেকনু। কিন্তু পরে ফির যেই নদী সেই থাকে। এতো খুড়িয়াও কোনো লাভ হয় না। মাষাণকুড়াতো মরানদী। সেই তকনে এটা আরো ভাল করি খোড়া উচিত। সারাবছর মাছ ধরা যায়। যদি সরকারের লোকেরা ভালো করি নদী খুড়ে, সরকারের সুমান হইবে। নাম না প্রকাশের শর্তে অনেকেই বলেন, এই প্রকল্পের চারটি অংশের মধ্যে দ্বিতীয় অংশটি গভীরতার কারণে খনন করার সুযোগ নেই। অথচ প্রকল্প কর্মকর্তারা কাজের বিল ঠিকই উত্তোলন করবে। শুধু তাই নয়, ভেকু দিয়ে দায়সারা ভাবে খনন কাজ করা হচ্ছে। এখানে শ্রমিক ব্যবহার করা হচ্ছে না। ভেকু চালকরা নিজেরাই কাজ করছেন। কিভাবে প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে তাও কেউ জানে না।যেভাবে কাজ হয়েছে এতে মোট বরাদ্দের অর্ধেক টাকাও খরচ হবে না। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মাষাণকুড়া মরানদী পুনঃখনন প্রকল্পটি বাস্তবায়নে প্রতি অংশে ৩০ জন করে সুবিধাভোগীর কাজ করবে। এজন্য চারটি অংশের জন্য ১২০ জনের দল গঠন করা হয়েছে। তবে এই দল গঠন শুধু কাগজে কলমেই সীমাবদ্ধ। প্রকল্পের সম্পূর্ণ কাজটি জেলা মৎস্য কর্মকর্তার যোগসাজশে স্থানীয় একটি প্রভাবশালীমহল করছেন। অনিয়মের মাধ্যমে কাজ চলছে স্বীকার করে স্থানীয় মৎস্যজীবী সমিতি ও প্রকল্পের চতুর্থ অংশের সভাপতি প্রেমা চন্দ্র দাস বলেন, আমরা কাগজে কলমে থাকলেও আসলে কাজটি করছে অন্যরা। আমরা গরীব মানুষ এ রকম বড় প্রকল্পের কাজ করার সুযোগ কি আমাদের হয়। তাছাড়া এসব বিষয়টি কথা বললেও তো সমস্যা আছে। এজন্য আমরা চুপ আছি। প্রকল্প এলাকায় টানানো সাইন বোর্ডের তথ্য অনুয়াযী উপজেলা মৎস্য দপ্তর প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। তবে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা হাকিবুর রহমান এ বিষয়ে কিছু জানেন না বলে দাবি করে তিনি বলেন, এই প্রকল্পটি জেলা অফিস থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। যদিও আমি বেশ কয়েকবার প্রকল্প এলাকা পরির্দশন করেছি। তবে এ ব্যাপারে আমি বিস্তারিত কিছু বলতে পারব না।

স্থানীয়দের অভিযোগের ব্যাপারে রংপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বরুণ চন্দ্র বিশ্বাসের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এখনো তো পুরো প্রকল্পের কাজ শেষ হয়নি। চারটি অংশের কাজ শেষ হবার পর পুরো প্রকল্পটি মূল্যায়ন করে দেখা হবে। তার আগেও তো বলা যাচ্ছে না এটা দায়সারা কাজ। তবে একটি সাইনবোর্ডে আমিও দেখেছি।

Previous articleপাবনায় ইছামতি নদীপারের বৈধ বসতি দাবিদারদের আমরণ অনশন
Next articleপীরগাছায় কমলা শাঁসযুক্ত মিষ্টি আলুর জাত মূল্যায়ণে মতবিনিময় সভা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।