সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় নয়জন বীর মুক্তিযোদ্ধার জন্মভূমি কানসোনা গ্রামে মহান মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হচ্ছে । গ্রামটির এখনকার প্রজন্মের উদ্যোগে এর নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ ভাগে এসেছে। উপজেলার সলপ ইউনিয়নের কানসোনা গ্রামটি অসাম্প্রদায়িক চেতনা আর মুক্ত মনের বসতিদের একটি গ্রাম বলে অনেক আগে থেকেই পরিচিতি পেয়ে আছে। এ গ্রামের নয় জন একাত্তুরের মহান মুক্তিযুদ্ধে সরাসরি অংশ নেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা নয়জন হলেন- গোলাম মোস্তফা, মলয় ভৌমিক, ইসহাক খান, আলী আজগর, রফিকুল আলম, জহুরুল হক, আব্দুর রাজ্জাক, সাইফুল ইসলাম মিন্টু ও আসাদুজ্জামান খোকন। কানসোনা গ্রামের এ প্রজন্মের উদ্যোগে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভটি নির্মাণ হচ্ছে । এর জন্য দশ সদস্যের একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। উল্লাপাড়া সরকারী কলেজের সহকারী অধ্যাপক শামীম হাসান কমিটির আহবায়ক এবং বীর মুক্তিযোদ্ধাদের একজন করে সন্তান কমিটির সদস্য আছেন। কানসোনা গ্রামের সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাছাকাছি বেলকুচি-পাইকপাড়া (উল্লাপাড়া) পাকা সড়কের ধারে নির্মাণাধীন মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভটির জন্য জায়গা কেনা হয়। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাস্কর্য বিভাগের অধ্যাপক কনক কুমার পাঠক এ স্মৃতিস্তম্ভের নকশা করেছেন। এটি নির্মাণে এ যাবত প্রায় এগারো লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে। সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদ, সলপ ইউনিয়ন পরিষদ থেকে এর জন্য মোটা অংকের অর্থ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ অর্থের যোগান দিয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ নির্মান আহবায়ক কমিটির আহবায়ক শামীম হাসান বলেন, কানসোনা গ্রামের নয় বীর মুক্তিযোদ্ধা সহ মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধকালে শহীদ সকলের প্রতি শ্রদ্ধা এবং তাদের বীরত্ব ধরে রাখতে এটি নির্মানের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কানসোনা গ্রামের সন্তান সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য উল্লাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযােদ্ধা গোলাম মোস্তফা প্রতিবেদককে বলেন, কানসোনা গ্রামে মহান মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ অবশ্যই প্রশংসনীয় এবং গর্বের একটি বিষয়। এ প্রজন্মের উদ্যোগ আগামী প্রজন্মের পর প্রজন্মের কাছে গৌরব ও বীরত্বগাঁথা মহান মুক্তিযুদ্ধ স্বরণীয় জাগ্রত ইতিহাস হয়ে থাকবে। এখানে পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর ও এর সংগ্রহশালায় বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ, বাঙালীর ইতিহাস ঐতিহ্য, সহ নানা ধরনের বই থাকবে। মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভটিসহ সব মিলিয়ে প্রায় বিশ লাখ টাকা ব্যয় হবে। তিনি আরো বলেন, এ প্রজন্মের আরো একটি উদ্যোগে কানসোনা গ্রামের কবরস্থানে গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মৃত্যুর পর সমাহিত করার জন্য মুক্তিযোদ্ধা কর্ণার হিসেবে জায়গা চিহ্নিত করা হয়েছে। ইতোমধ্যেই এ কর্ণারে বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খোকনকে সমাহিত করা হয়েছে।

Previous articleজয়পুরহাটের ক্ষেতলালে এক বৃদ্ধের মৃত্যুর কারণ নিয়ে বিভ্রান্তি
Next articleরাজারহাটে প্রশাসনের নামে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।