জয়নাল আবেদীন: রংপুরে তীস্তা নদীর চরগুলো থেকে কৃষকেরা এখন বাদাম তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। বন্যার পর চড়ে পলি জমায় জমির উর্বর শক্তিও বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই সাথে বেড়েছে বাদামের চাষ। বাদাম চাষীরা জানান, এবার বাজারে বাদামের দাম কিছুটা বুদ্ধি পেয়েছে। আশা করছি এই নতুন বাদাম বাজার জাত করলে ভালো দাম পাওয়া যাবে।রংপুর জেলার, গংগাচড়া, কাউনিয়া, পীরগাছা উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত তিস্তা নদীতে শত শত কিলোমিটার চড় পরেছে। চড় জুড়ে এখন বাদাম তোলার ব্যস্ত সময় পাড় করছেন বাদম চাষীরা। গংগাচড়া উপজেলার, চড় চিলাখাল, মানুষ খাওয়া, নেল্টা, মহিপুর,চালাপাক চড়সহ বিভিন্ন চড়ে বাদামের চাষ করেছে কৃষকেরা। চড়ের মাটিতে পলি জমায় মাটি র্উবর হওয়ায় অতরিক্তি সার, সেচ কীটনাশক দিতে হয়না। ফলে বীজ রোপণে তিন মাসরে মধ্যেই বাদাম তোলা হচ্ছে। রংপুরে উৎপাদিত বাদামের মান ভালো হওয়ায় প্রতি বছরই দশেরে বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকারেরা এসে এখান থেকে বাদাম কিনে নিয়ে যায়। কাউনিয়া উপজেলার গড্ডিমারী চড়ের কৃষক দুলাল মিয়া জানান, গতবার চড়ের ৩ একর জমিতে বাদম চাষ করতে সবমিলে খরচ হয়েছে ৪৮ হাজার টাকা। বিক্রি করেছি ২ লাখ টাকা। আশাকরছি এবার ৩ লাখ টাকা বৃক্রি করতে পারবো। কারণ হিসেবে তিনি জানান, এবার বাদামের বাজার বেশ চড়া।মধুপুর চড়ের তাসলিমা জানান, গত বছর শখের বসে বাপ দাদার ১ একর জমিতে বাদাম চাষ করে বেশ লাভোবান হয়েছিলাম। এবার ৫ একর জমিতে বাদামের চাষ করেছি। বাদাম চাষে খুব একটা খরচ হয়না। অল্পতে বেশি লাভ। গত বছররে তুলনায় এ বছর বাদাম ভালো আছে। লাভও বেশি হইবে বলে আশা করছি।বাদম চাষিরা জানান, প্রতি বছর অক্টোবর থেকে নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ র্পযন্ত বাদামের বীজ লাগানো হয়। জানুয়ারি থেকে এপ্রলি র্পযন্ত সময় জমি থেকে এই বাদাম তোলার কাজ শুরু হয়। বাদামের বীজ লাগানোর আগে চাষ দিয়ে মাটি সামান্য নরম করে নিতে হয়। আর মাঝে মধ্যে জমির আগাছা পরষ্কিার করতে হয় । তারপর সারি করে লাগানো হয় বাদাম বীজ। তিস্তা নদীর চররে মাটি র্উবর হওয়ায় অতিরিক্ত সার, কীটনাশক ও সেচ দিতে হয় না। তিন মাসের মধ্যই বাদাম ঘরে তোলেন চাষিরা । তাই অল্প পরিশ্রমে অধিক লাভে খুশি বাদাম চাষিরা।রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে এ বছর রংপুর জেলায় ৩৯০ হক্টের জমিতে বাদাম চাষ করা হয়েছে, গত বছর ছিল ২৫০ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছিল। জেলায় এখন স্থানীয় জাতরে বভিনি নাম্নে বাদামের চাষ হচ্ছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধদিপ্তরে সহায়তায় জেলায় বাদাম চাষ সম্প্রসারণরে জন্য কৃষকদের মাঝে বীজ, সার, কীটনাশকসহ নানা ধরনরে উপকরণ দেওয়া হচ্ছে।রংপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপরিচালক রিয়াজ উদ্দিন জানান ,সরকারে পক্ষ থেকে প্রত্যেক বাদাম চাষীকে ১০কেজী করে বীজ দেওয়া হয়েছে। আর প্রনোদনা হিসাবে ১০০জনকে কৃষক কে ডিএপি ১০ কেজি,৫কেজি সার, বারী ৮ বীজ ১০ কেজি করে দেওয়া হয়েছে।তিনি বলেন, বাদাম জমি থেকে তোলার সঙ্গে সঙ্গে বাজারজাত না করে শুকিয়ে গুদামজাত করে পরে বাজারজাত করা হলে কৃষকরা অধকি লাভবান হবেন।

Previous articleকর্মীদের শান্ত থাকতে বললেন হেফাজত নেতা মামুনুল হক
Next articleঠাকুরগাঁওয়ে ৫০ পিস ইয়াবাসহ আটক ২
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।