জয়নাল আবেদীন: বিভাগীয় নগরি রংপুরে প্রশাসনের তৎপরতা কঠোর না হওয়ায় লকডাউন ঢিলেঢালা ভাবে পালিত হচ্ছে।কোথাও লোক সমাগম কিছুটা কমলেও মানা হচ্ছেনা লকডাউনের সরকারি নির্দেশনা। এতে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির আশংকা করা হচ্ছে। জনসমাগম রোধে ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে জেলা প্রশাসন ও রংপুর মেট্টোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দেওয়া হলেও সাধারণ মানুষ তা মানছেনা।মঙ্গলবার লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে নগরির বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এ চিত্র মিলেছে। এদিকে রংপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সিটি কর্পোরেশনের ম্যাজিস্ট্রেট লকডাউনের নির্দেশনা মানাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছেন। শুধু সেই সময়টাতে লোকজন নির্দেশনা মানলেও কিছুক্ষণ পরেই পরিবেশ পালটে যাচ্ছে। অন্যান্য এলাকাতে স্বাভাবিক ভাবেই চলাচল করছে মানুষজন। দূরপাল্লার ও আন্তজেলা বাস চলাচল বন্ধ থাকলেওরংপুর শহর জুড়ে অনেকটা স্বাভাবিক ভাবেই প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, ট্রাক, পিকআপ ভ্যান, থ্রি-হুইলার, ইজিবাইক, অটোরিকশা, মোটরসাইকেলসহ হালকা যানবাহন চলাচল করছে। বিশেষ করে শহরের ভিতরে ইজিবাইকের চলাচলে যানজট লেগে যাচ্ছে মাঝে মধ্যেই। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হতে নিষেধ করা হলেও সাধারণ মানুষজন কিছুটা কমলেও আগের মতই চলাচল করছে। অনেকেরই মুখে মাস্ক নেই। মানছেননা সামাজিক দুরুত্ব সহ স্বাস্থ্যবিধি।নগরীর শাপলা চত্বর, পায়রা চত্বর, জাহাজ কোম্পানী মোড়, সিটি বাজার, মডার্ণ মোড়, বাস টার্মিনাল এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বিপণী বিতান, শপিং মল, মার্কেট বন্ধ রয়েছে। তবে হালকা দোকানপাট, কাঁচাবাজার খোলা রয়েছে বিভিন্ন জায়গায়। খোলা রয়েছে ব্যাংকসহ সরকারি ও জনসেবামূলক প্রতিষ্ঠানগুলো। রংপুর শহরে সিটি বাস সার্ভিস না থাকায় ইজিবাইক, মোটরসাইকেল ও অটোরিকশায় করে মানুষজন যাতায়াত করে থাকেন। লকডাউনের প্রথম দিনে প্রশাসনের নির্দেশনা উপেক্ষা করে অনেকটা আগের মতই এসব চলাচল করছে। এছাড়াও সকাল থেকেই নগরীর শাপলা চত্তর, মডার্ণ মোড় সহ বিভিন্ন স্থানে কর্মজীবী, দিনমজুর, শ্রমিকদের ভিড় দেখা গেছে। নগরীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট গুলোতে চেকপোস্ট বসিয়ে এবং ভ্রাম্যমাণ আদালত সহ টহল জোরদার করতে হবে। নইলে করোনা সংক্রমণ আরও বৃদ্ধি পাবে।এদিকে লকডাউন কার্যকর করতে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে কাজ করছেন। সচেতনতা মূলক প্রচারণা সহ মাস্ক বিতরণ করছেন। র‌্যাবের প্রচারণা টিম টহলের মাধ্যমে নগরবাসীকে সচেতন করছেন। মেট্টোপলিটন পুলিশও লকডাউন নির্দেশনা মানানোর চেস্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সচেতনতামূলক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন মানুষজনকে সচেতন করবার কাজ করছেন।এ বিষয়ে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদ হাসান মৃধা বলেন, লকডাউন নির্দেশনা মানাতে আমরা মাঠে কাজ করছি। লোকজনের অপ্রয়োজনীয় চলাচলে মানা করছি। গাড়ি সহ বিভিন্ন যানবাহন চেক করছি যাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা হয়। রংপুরে প্রয়োজনের বাইরেও মানুষজন বাইরে বের হয়েছেন আমরা তা নিয়ন্ত্রণে কাজ করে যাচ্ছি।

Previous articleসরকারী নির্দেশনা বাস্তবায়নে ঈশ্বরদীতে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশের অভিযান
Next articleমামুনুল কাণ্ড: সোনারগাঁও থানার ওসি বদলি, নতুন ওসি যোগদান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।