ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছায় উপজেলা শিক্ষা অফিসারের মৌখিক অনুমতি পেয়ে সৌন্দর্য বর্ধনের অযুহাতে নিলাম বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই সরকারি নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে বিদ্যালয়ের পুরাতন ভবন ও একটি টিনের ঘর বিক্রি করার অভিযাগ উঠেছে প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম এর বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে রংপুরের পীরগাছা উপজেলার ছাওলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। সুত্রে জানা যায়, উপজেলা প্রকৌশল দপ্তর ৫সেপ্টেম্বর/১৬ইং ৯৯১ স্মারকে ১৫/১৮টি পুরাতন ভবন নিলামের জন্য প্রাক্কলন চুড়ান্ত করে উপজেলা শিক্ষা অফিসে দাখিল করেন। দাখিলকৃত প্রাক্কলন অনুযায়ী উপজেলা শিক্ষা অফিস ২৪এপ্রিল/১৯ইং উপজেলা নিলাম কমিটির সভাপতির নিকট ফাইলনোট দেন। ফাইলনোটে বিদ্যালয়গুলি হলো টেপ্ধসঢ়;চার বন্দর, পশ্চিমদেবু, নেকমামুদ, নাছুমামুদ, রহমতচর, গোবড়া পাড়া, ছাওলা, কৈকুড়ী, মকরমপুর, চৌধুরানী ১নং, বালারদিঘি, কান্দি, মহিষমুড়ি, কালিগঞ্জ, ইটাকুমারী, ধলখানা, বড়দরগা ও চৌধুরানী ২নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এরই মধ্যে কয়েকটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের পুরাতন ভবন নিলাম হলেও ছাওলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন নিলাম না হওয়ায় প্রধান শিক্ষক কর্র্তৃপক্ষের যোগসাজসে নিজেই বিক্রয় করে দেন। সাম্প্রতিক সময়ে ছাওলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম উপজেলা শিক্ষা অফিসার সহ সকল সহকারি শিক্ষা অফিসারগণকে নিজ বাড়িতে ভুড়িভোজের আয়োজন করেন। উক্ত ভুড়িভোজে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আতিকুর রহমান উপস্থিত হয়ে ভুড়িভোজে তৃপ্ত হয়ে উক্ত বিদ্যালয়ের ৫৫ ফুট দৈর্ঘ্যের পুরাতন একটি ভবন ও ৩২ হাতের একটি টিনের ঘর বিক্রির জন্য মৌখিক অনুমতি দেন। অনুমতি পেয়ে প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম তড়িঘড়ি করে বিধি মোতাবেক নিলাম না হওয়ার বিষয়টি সাধারন মানুষকে বুঝতে না দিয়ে নিলাম ছাড়াই পুরাতন ভবন ও টিনের ঘর বিক্রি করে দেন। পরবর্তীতে দেখা যায় বিদ্যালয়ের পুরাতন ভবনের ইটগুলি ঐ বিদ্যালয়ের সভাপতির বাড়িতে। প্রধান শিক্ষক বলেন, ঐ ইটগুলি শিবদেব হাইস্কুলের। কিন্তু হাইস্কুলে কোন ভবন নিলাম হয়নি। নিলাম না হওয়ার ঘটনাটি ফাঁস হওয়ায় গত বুধবার(৭এপ্রিল) রাতে ধুরন্ধর প্রধান শিক্ষক পুরাতন ভবনের যায়গায় তড়িৎগতিতে একটি ফুলের বাগান তৈরী করেন। অন্যদিকে বিগত ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদকালে ক্লাসরুম সংকটের কারণে স্লিপ, শিক্ষার্থীদের অনুদান ও কমিটির সদস্যদের অর্থায়নে ৩২ হাত একটি টিনের ঘর নির্মাণ করা হয়। টিনের ঘরটিতে দুটি শ্রেণী কক্ষ ছিল। স্থানীয় শিক্ষানুরাগী আবু তৈয়ব সরকার এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও তার সহকারিদের বিভিন্ন আবদার নিয়মিত পূরন করে থাকেন কুটিপাড়া ও কান্দি ক্লাস্টারের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কিছু সুবিধাবাদী প্রধান শিক্ষক। তারই ফলশ্রুতিতে প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম বিদ্যালয়ের পুরাতন ভবন ও টিনের ঘর বিক্রয়ের মৌখিক অনুমতি পান। ছাওলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম বলেন, ওই খানে ভবন ছিল আপনি প্রমাণ করতে পারবেন না।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সাবেক সভাপতি আব্দুল কুদ্দুছ সরকার জানান, ক্লাসরুম সংকটের কারণে স্লিপ, শিক্ষার্থীদের অনুদান ও নিজের টাকা দিয়ে টিনের ঘর তৈরী করি অথচ সেই ঘর প্রধান শিক্ষক বিক্রয় করলেন। বর্তমান কমিটির সভাপতিকে মোবাইলে পাওয়া যায়নি। উপজেলা শিক্ষা অফিসার আতিকুর রহমান জানান, ওই বিদ্যালয়ে পুরাতন ভবন ছিল না। একটি দোচালা টিনের ঘর ছিল। উপজেলা প্রকৌশল দপ্তর কর্তৃক নিলামের জন্য ঝুঁিপূর্ণ ভবন প্রাক্কলন এর বিষয়ে তিনি কোন কথা বলতে রাজি হননি। নিলামের জন্য ঝুঁিপূর্ণ ভবন প্রাক্কলন বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম এর সাথে মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ শামসুল আরেফীন এর সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি জানান, সরকারি ভবন নিলাম ছাড়া বিক্রয়ের কোন সুযোগ নেই। বিষয়টি আমি ক্ষতিয়ে দেখছি।

Previous articleসোনারগাঁওয়ে মামুনুল হকের ইস্যুতে রিসোর্টে হামলা ও ভাঙচুর মামলায় আটক ৪
Next articleভবদহ অঞ্চলের ২৭ বিলের ৩ লাখ কৃষকের ভবিষ্যত দায়িত্ব নিলেন সাবেক চেয়ারম্যান মনজু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।