জি.এম.মিন্টু: সকল জল্পনা-কল্পনা ও প্রতিবন্ধকতার অবসান ঘটিয়ে ভবদহ অঞ্চলের বিল খুকশিয়াসহ ২৭ বিলের দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা নিরাসনে গঠিত স্বেচ প্রকল্প কাজের ভবিষ্যত পরিকল্পনার সকল দায়িত্বভার অর্পন করা হয়েছে এই কমিটির কোষাধ্যক্ষ সাবেক চেয়ারম্যান এস.এম মনজুর রহমানকে । গত রবিবার বিকেলে কেশবপুরের কলাগাজি বাজারে স্বেচ প্রকল্প কমিটি কর্তৃক আয়োজিত ২৭ বিলের জমি ও ঘের মালিকদের নিয়ে এক আলোচনা সভার মাধ্যমে কমিটির সর্ব সম্মতিক্রমে স্বেচ কমিটির আহবাযক কেশবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এস.এম রুহুল তার উপর এই দায়িত্ব অর্পন করেন। অর্থ সংকট ও প্রকল্প বিরোধী একটি মহলের প্রতিবদ্ধকতার কারনে শেষ পর্যায় এসে স্বেচ কাজ বন্ধ হয়ে যায়। বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার কারনে এবছর স্বেচ কাজ যথা সময়ে শুরু করা যায়নি। তারপরও এবছর স্বেচ প্রকল্পের ফলে ২৭ বিলের প্রায় দুই তৃতীয়াংশ জমির মালিকরা ধান চাষ করতে সক্ষম হয়েছে। হঠাৎ করে স্বেচ প্রকল্পের কাজ বন্ধ হওয়াতে আগামীতে ২৭ বিলে ধান চাষ নিয়ে কৃষকরা দুঃচিন্তায় পড়ে যায়। প্রায় ১৮ লক্ষ টাকার ঘাটতি কাটিয়ে উঠে স্বেচ প্রকল্পের কাজ পূর্বের ন্যায় চলমান রাখতে দফায় দফায় ২৭ বিলের কৃষক ও ঘের মালিকদের নিয়ে স্বেচ প্রকল্প কমিটির মিটিং ডাকা হলেও কতিপয় স্বার্থনেশী মহলের কারনে কমিটির আসল উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে ব্যার্থ হয়। রবিবারের মিটিং-এ উপস্থিত জমি ও ঘের মালিকদের মতামতের উপর সম্পূর্ন প্রাধান্য দিয়ে স্বেচ প্রকল্প কমিটির আহবায়ক উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজে ২৭ বিলের জলাবদ্ধতা নিরাসনে আগামীতে স্বেচ প্রকল্পের সার্বিক দায়িত্ব পালনে সুফলাকাটি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জনপ্রিয় নেতা এস.এম মনজুর রহমানকে দায়িত্ব দেন। এদিকে মনজুর রহমান দায়িত্ব পেয়েই ২৭ বিলের সকল জমি ও ঘের মালিকদের সাথে নিয়ে সোমবার (১২এপ্রিল-২১) থেকে অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে ফের ম্যাশিন দিয়ে স্বেচ ব্যবস্থা শুরু করেছে। উল্লেখ্য, যশোরের ভবদহ অঞ্চলের কেশবপুর সীমান্তবর্তি সুফলাকাটি, পাঁজিয়া ও মনিরামপুরের দুর্বাডাঙ্গা, মনোহরনগর ইউনিয়ন এবং ডুমুরিয়ার সীমান্তবর্তিসহ ৬৯ গ্রামের কৃষকদের ৩৩ হাজার বিঘা জমি নিয়েই ২৭ বিলের অবস্থান। প্রায় সাড়ে ৩ লাখ মানুষের বাঁচা-মরার ভাগ্য নির্ভর করে এই ২৭ বিলের ধান চাষের উপর । এক সময় হরি নদী দিয়ে বিল খুকশিয়াসহ ২৭ বিলের পানি নিষ্কাশন হত। কিন্তু ধীরে ধীরে নদীটি ভরাট হতে থাকায় বর্তমানে বিলের পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে জলাবদ্ধতায় রূপ নেয়। তখন থেকে চাষাবাদ বন্ধ হয়ে যায় এই বিলগুলোতে। ২৭ বিলের কৃষকদের দীর্ঘাশ্বাস ও তাদের আর্তনাদ দেখে তাদের পাশে এসে দাঁড়ান কেশবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এস.এম রুহুল আমীন ও সুফলাকাটি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এস.এম মুনজুর রহমান। জলাবদ্ধ এই বিলে কৃষকদেরকে ধান চাষের স্বপ্ন দেখান এই দুই নেতা । স্থানীয় এমপির দিক-নিদের্শনা মোতাবেক ২৭ বিলের দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা নিরসনে সকল জমির মালিক ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে একটি মিটিং এর মাধ্যমে জমির মালিকদের সর্বসম্মতিক্রয়ে এস.এম রুহুল আমীনকে আহবায়ক ও এস.এম মনজুর রহমানকে কোষাধ্যক্ষ করে “জলাবদ্ধতা নিরসন বাস্তাবায়ন” নামে একটি কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটির ব্যানারে গত ১৫ জানুয়ারী থেকে বিল খুকশিয়াসহ ২৭ বিলের জলাবদ্ধতা নিরসনে এইট ব্যান্ড সংলগ্ন ডায়ের খাল নামক স্থানে ৬৯টি গ্রামের ভুক্তভোগী জনগনের নিজস্ব অর্থায়নে ১২৯টি সেচ পা¤েপর মাধ্যমে সেচ কার্যক্রম শুরু করা হয়। যার সুফল পেয়েছে ২৭ বিলের প্রায় ২ লক্ষ কৃষক। ৩৩ হাজার বিঘা জমির মধ্যে এ বছর প্রায় ২২ হাজার বিঘা জমিতে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। এবিষয়ে জলাবদ্ধতা নিরসন বাস্তাবায়ন কমিটির কোষাধ্যক্ষ আওয়ামীলীগ নেতা ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান এস.এম মনজুর রহমান বলেন, দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা নিরসনে স্বেচ কমিটির মাধ্যমে কৃষকদের নিজস্ব অর্থায়নে এ বছর পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা শুরু করা হয়। পানি স্বেচ দেওয়ার ফলে ২৭ বিলের ৩৩ হাজার বিঘা জমির মধ্যে প্রায় ২২ হাজার বিঘা জমিতে এবার কৃষকরা ধান চাষ করতে সক্ষম হয়েছে। একটি মহলের বাঁধার মুখে কিছু দিন ধরে স্বেচ প্রকল্পের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। স্বেচ কমিটির আহবায়ক উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এস.এম রুহুল আমীন স্যার অত্যান্ত বিচক্ষন ও বুদ্ধিমত্তা সম্পর্ন ব্যক্তিত্ব। তিনি একজন সফল রাজনিতিবিদ। তিনি ২৭ বিলের কৃষকদের কথা ভেবেই আমার উপর দায়িত্ব অর্পন করেছেন। তার পরামর্শ ও দিক নির্দশনা অনুযায়ী ২৭ বিলের জলাবদ্ধতা নিরাসনে আগামীতে সকল পরিকল্পনা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করব। স্বেচ কাজে এ পর্যন্ত প্রায় ১৮ লক্ষ টাকা ঘাটতি রয়েছে। আগামীতে ঘাতটি কাটিয়ে ২৭ বিলের কৃষকদের ভাগ্য উন্নয়নে সর্বচ্ছ চেষ্টা করে যাবেন বলে জানান।

Previous articleনিলাম ছাড়াই বিদ্যালয় ভবন ও টিনঘর বিক্রি করে দিলেন প্রধান শিক্ষক!
Next articleউখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফের অগ্নিকাণ্ড
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।