অতুল পাল: প্রচন্ড তাপদহের কারণে বাউফলে দিনের পর দিন ডায়রিয়ার মহামারি আকার ধারণ করছে। উপজেলার সর্বত্রই প্রায় বাড়িতেই ডায়রিয়া রয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে। সংকট দেখা দিয়েছে কলেরা স্যালাইনের। এ সুযোগে ফার্মেসীতে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে স্যালাইন। উপজেলা হাসপাতাল এবং বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে দৈনিক ডায়রিয়া রোগির সংখ্যা বেড়েই চলেছে। উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে, প্রচন্ড তাপদহে ফুড পয়োজনিং বাড়ছে। নদী ও খালের পানি লবনাক্ত। কোন ধরণের খাবারই পেটে সহ্য হচ্ছে না। একারণে প্রায় বাড়িতেই ডায়রিয়ায় রোগি সনাক্ত হচ্ছে। গ্রামের হাতুড়ে

চিকিৎসক এবং পল্লী চিকিৎসকসহ বিভিন্ন ফার্মেসীর লোকজনও এখন ডায়রিযার রোগির চিকিৎসা করে যাচ্ছেন। ডায়রিয়ার ধরণ অনুযায়ি প্রতি রোগিকে মোটামোটি সুস্থ্য হতে কমপক্ষে ১৫ হাজার এবং কোন কোন ক্ষেত্রে ৪০ হাজার পরিমাণ স্যালাইন নিতে হচ্ছে। রোগিদের স্বজন এবং উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার ঘুরে জানা গেছে, এক সপ্তাহ আগেও কলেরা স্যালাইন ৯০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এখন সেই স্যালাইন বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকায়। দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ চৈত্র এবং বৈশাখ মাসে রবি শষ্যের উপর নির্ভর শীল। কিন্তু প্রচন্ড তাপদহে রবি শষ্য ব্যাপক ক্ষতির সন্মূখীন। একারণে মানুষ আর্থিক সংকটের মধ্যে রয়েছেন। ফলে ডায়রিয়ার চিকিৎসায় প্রয়োজনীয় অর্থও ব্যয় করতে পারছেন না। বাউফলে দিন দিন ডায়রিয়া মহামারির আকার ধারণ করলেও প্রশাসন কিংবা স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে ডায়রিয়া প্রতিরোধে সচেতনতামূলক কোন প্রচার-প্রচারণা নেই। এমনকি উপজেলার কোথাও ডায়রিয়ায় কেউ মৃত্যুবরণ করেছেন কী না সে তথ্যও কর্তৃপক্ষের কাছে নেই। বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. প্রশান্ত কুমার সাহা (পি.কে.সাহা) জানান, মূলত: প্রচন্ড তাপদহ এবং নদীর পানিতে লবনাক্ততার কারণে ডায়রিয়ার সক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। হাসপাতালে ৫২৩ জন ডায়রিয়া রোগি চিকিৎসা নিয়েছে। এখনো হাসপাতাল ভর্তি ডায়রিয়া রোগি রয়েছে। হাসপাতালে স্যালাইন সংকট রয়েছে। আমরা উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে স্যালাইন সরবরাহের অনুরোধ পাঠিয়েছি। স্থানীয়ভাবে উপজেলা পরিষদের তহবিল থেকে কিছু স্যালাইনের ব্যবস্থা করার অনুরোধ করেছি। হঠাৎ কেন ডায়রিয়া বৃদ্ধি পেল সেটা মনিটরিং করার জন্য আইসিডিডিআরবি থেকে বিশেষজ্ঞ দল আসতে পারেন। ডায়রিয়া থেকে রেহাই পেতে হলে ব্যাক্তিগত পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার প্রতি জোর দিতে হবে। যারা রোগির সেবা-শুশ্রসা করছেন তাদেরকে সতর্কভাবে থাকতে হবে। খোলা ও বাসি খবার খাওয়া যাবে না। তরমুজ-বাঙি না খাওয়াই ভাল।

Previous articleবাউফলে নারীকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন, গ্রেপ্তার ৯
Next articleরাজারহাটে কালবৈশাখীর তাণ্ডবে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।