অতুল পাল: বাউফলে অস্টম শ্রেণি পড়–য়া ভাইঝিকে ইভটিজিং করে হয়রানি করার প্রতিবাদ করায় চাচাকে পিটিয়ে হাত ও পা ভেঙ্গে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার (১৭ এপ্রিল) সন্ধায় উপজেলার কনকদিয়া ইউনিয়নের আয়লা গ্রামে ওই ঘটনা ঘটেছে। গুরুতর আহত চাচাকে বাউফল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। স্থানীয় সূত্র জানায়, কনকদিয়া ইউনিয়নের আয়লা গ্রামের মোস্তফা খানের মেয়ে আয়লা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অস্টম শ্রেণির ছাত্রীকে প্রায়ই পাশ্ববর্তী ঝিলনা গ্রামের সুমন নামের এক বখাটে রাস্তাঘাটে অশালীন কথাবার্তা বলে হয়রানি করে আসছিল। শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকালেও সুমন ওই ছাত্রীকে ইভটিজিং করছিল। এঘটনায় চাচা জাকির খান (৪০) প্রতিবাদ করে সুমনকে শাসিয়ে দেয়। এরপর শনিবার সন্ধার দিকে জাকির খান খালের পাশে বাঁধা গরু আনতে গেলে স্থানীয় মোস্তফা সিকদারের ছেলে জামাল সিকদার (৩৫), সবুজ হাওলাদারের ছেলে রাকিব হাওলাদার(২৫) এবং সুমনসহ ৬-৭ জনের সংঘবদ্ধ একটি দল জাকির খানকে লাঠি ও লোহার রড দিয়ে এলোপাতারি পিটিয়ে তার বাম হাত ও বাম পা ভেঙ্গে দিয়ে খালপাড়ে ফেলে রাখে। পরে স্থানীয়রা জাকির খানকে উদ্ধার করে রাত আটটার দিকে বাউফল হাসপাতালে ভর্তি করে। হাসপাতালের বেডে বসে আহত জাকির খান জানান, আমাকে পিটানোর সময় তাদের কাছে প্রাণভিক্ষা চেয়েছি। স্থানীয়দের দেখে সন্ত্রাসিরা পালিয়ে যায়। বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) আল-মামুন জানান, এখনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleসর্বাত্মক লকডাউন বাস্তবায়নে ঈশ্বরদীতে পুলিশী অভিযান চলছে
Next articleমুলাদীতে বিধবা ভাতা দেওয়ার নামে হতদরিদ্রের ভিক্ষার টাকা আত্মসাৎ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।