অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলের মদনপুরা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম তালুকদারের বসত ঘরে হামলা করে জানালা কপাট ভাংঙচুর এবং স্ত্রী ও মেয়েকে টানা হ্যাচরা করে মারধর ও শ্লীলতাহানি করার ঘটনায় গত তিনদিনেও মামলা নেয়নি বাউফল থানা পুলিশ। এ ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারটি আতংকে দিনাতিপাত করছেন। বাউফল পৌর শহরের কুন্ডুপট্টি এলাকায় গত ১৬ এপ্রিল বিকালে ওই ঘটনাটি ঘটেছিল। সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের কুন্ডপট্টি এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম তালুকদার পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করছে। পাশেই একই এলাকার মো.সামছুল হক তালুকদার বসবাস করেন। পূর্ব বিরোধের জের ধরে ১৬ এপ্রিল মো.সামছুল হক তার লোকজন নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম তালুকদারের বসত ঘরে ঢুকে আসবাপত্র ভাংচুর করে প্রায় ৯৫ হাজার টাকার ক্ষতিসাধন করে। এসময় সে বাঁধা দিলে তাকে পিটিয়ে জখম করে। স্বামীক বাঁচাতে স্ত্রী ডালিয়া ইসলাম লিপি(৫০) এগিয়ে গেলে তাকে টাননা হ্যাঁচরা করে শ্লীলতাহানি ঘটায়। মাকে উদ্ধারের জন্য মেয়ে ডাক্তার সানজিদা ইসলাম জেসমিন(২৮) এগিয়ে এলে তাকেও পিটিয়ে আহত করে। পরে বাড়ির লোকজন তাদের উদ্ধার করে বাউফল হাসপাতালে নিয়ে যায়। এঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম তালুকদার বাদী হয়ে ১৬ এপ্রিল সন্ধায় সামছুল হককে আসামী করর বাউফল থানায় একটি মামলা দায়ের করলেও গত তিনদিনেও মামলাটি এজাহার নেয়নি বাউফল থানা পুলিশ। অভিযুক্ত সামসুল হক জানান, বিষয়টি নিয়ে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন খান দুই পক্ষকে নিয়ে বসবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। এবিষয় বাউফল থানার ওসি তদন্ত আল মামুন বলেন,অভিযাগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleভূঞাপুরে গৃহবধূকে ‘ন্যাড়া’ করার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে, মামলা নেয়নি পুলিশ
Next articleকরোনা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সুখবর দিলেন ডব্লিউএইচও প্রধান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।