গিয়াস কামাল: করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সারাবিশ্ব যখন স্থবির। দেশেও চলছে সরকার কর্তৃক নির্দেশিত কঠোর লকডাউন। এরই মাঝে দীর্ঘ ১৫ দিন পর আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে ব্যবসায়ীদের তোপের মুখে পরে সরকার সারাদেশের শপিংমল গুলো সীমিত পরিসরে খুলে দেয়ার অনুমতি দিয়েছেন। এদিকে গণপরিবহন বন্ধ রাখলেও নেই কোনো স্বাস্থ্যবিধির বালাই। স্বাস্থ্যবিধিনিষেধ তোয়াক্কা না করেই অসচেতনতায় চলছে স্থানীয় মানুষের জনজীবন। যার ব্যতিক্রম নয় সোনারগাঁ। আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে স্থানীয় মার্কেটগুলোতে দেখা গেছে প্রায় প্রতিটি দোকানেই ভিড়। কিন্তু লক্ষনীয় যে, প্রতিটি শপিংমলগুলোতে উপচেপড়া ভিড়। তাদের মধ্যে নেই কোনো স্বাস্থ্যবিধির বালাই, বাচ্চাদের নিয়ে অভিভাবকরা ভিড় ঠেলে হরহামেশাই ছুটে চলছে শপিংমলগুলোতে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে শপিংমলগুলোতে কেনা-বেচার

নির্দেশনা থাকলেও ক্রেতা কিংবা বিক্রেতা কেউই মানছে না। এদিকে শপিংমলগুলোর এই অনিয়মের তদারকিতে নজর দিচ্ছে না উপজেলা প্রশাসন। করোনায় যখন পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত মৃত্যুর মিছিল ঠেকাতে দিশেহারা তখন আমাদের দেশে চলছে ঈদের নামে প্রতিটি শপিংমলে করোনা নিয়ে খেলা। সোনারগাঁয়ের শপিংমলগুলোতে উপচেপড়া ভিড় দেখে স্থানীয় সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গ বলেন, শপিংমলগুলোতে মহিলাদের এই উপচেপড়া ভিড় সত্যিই আমাদের খুব চিন্তিত করে তুলছে। এখনই যদি এ ব্যপারে স্থানীয় প্রশাসন ও পরিবারের সদস্যরা সচেতন না হয় তাহলে আমাদের দেশেও ভারতের মতো হতে বেশি দূরে নয়।

Previous articleঈশ্বরদীতে করোনা ভ্যাকসিন শেষ, অনেকেই ২য় ডোজ পাচ্ছেন না
Next articleবাউফলে স্বামীর বিরুদ্ধে তালাক দেয়া স্ত্রীর যৌতুক মামলা, হয়রানির অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।