তাবারক হোসেন আজাদ: ‘সর্বাত্মক লকডাউনে’র মধ্যে খুলে দেওয়া মার্কেট-শপিং মলে ক্রেতার কঠিন চাপ বেড়েছে। ব্যবসায়ীদের দাবি মেনে বেড়েছে দোকান খোলা রাখার সময়ও। তবে গণপরিবহন বন্ধ থাকা ও নতুন করে ‘লকডাউনের’ ঘোষণায় হতাশা প্রকাশ করেছেন ব্যবসায়ীরা। সোমবার (৩ মে) মার্কেট-শপিং মল খোলার ২০ দিনে লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ব্যবসায়ীরা জানান, আগের দিনের তুলনায় বিক্রি বেড়েছে। তাদের ভাষ্য, গণপরিবহন না চললে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখা মানে উল্টো লোকসান। রায়পুর গাজি কমপ্লেক্সের কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, ‘ ঈদ উপলক্ষে-বেচাকেনা বেড়েছে। তবে গতকাল রোববারের তুলনায় বিক্রি একটু বেড়েছে। দোকান খোলা রাখার সময় বাড়ানোও স্বস্তি। সরেজমিন দেখা যায়, রায়পুরের মার্কেটগুলোতে শিশু ও নারীদের পদচারনায় বেচাকেনার ব্যস্ততা বেড়েছে। গাজি কমপ্লেক্সের দোকানে দোকানে ধুমছে বেচাকেনা চলেছে। বড় শপিংগুলোতেও জমেছে বেচাবিক্রি। বেশিরভাগ ব্যবসায়ীকে খুশি। মিয়াজি মার্কেটের সভাপতি ইমাম হোসেন যুগান্তরকে বলেন, লকডাউন মানে না মানুষ। আগেরদিনের তুলনায় সোমবার বাজারের দিন হওয়ায় ক্রেতা বেড়েছে। ক্রেতারা গণপরিবহন পেলে আমাদের এখানে আরো ভীর হতো। সরকারের উচিত গণপিরবহনগুলো চালু করে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ তৈরি করা।’ গণপরিবহন না খোলায় বিক্রি নেই বলে পাইকারি ব্যবসায়ীদের অভিযোগের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে হারুন মিজি বলেন, ‘দেশের পরিস্থিতি খুবই খারাপ। আমরা দুটো ডাল-ভাত খেয়ে বেঁচে থাকতে পারলেই হবে। অযৌক্তিক কথা বললেতো হবে না।’ সার্বিক পরিস্থিতির বিষয়ে গাজি কমপ্লেক্সের সভাপতি আরিফ হোসেন যুগান্তরকে বলেন, ‘টাইম বাড়ানো হয়েছে, আজকে বাজারের দিন বেচাকেনা বাড়ছে। কিন্তু বাস-টাস, গণপরিবহন বন্ধ। অনেক ক্রেতাই আসতে পারছে না।’ এভাবে চলতে থাকলে ঈদের আগে ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া সম্ভব কি না, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘না, সময় তো আরও বাড়াইতে হবে। ঈদের বাজার মিনিমাম রাত ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত বাড়াতে হবে।’ সরকার ক্রমান্বয়ে সমস্যা সমাধানের ব্যবস্থা করবে বলে আশা প্রকাশ করে এই ব্যবসায়ী নেতা বলেন,‘এখন যে অবস্থা চলুক এভাবে। দেখা যাক।’ রায়পুর ব্যবসায়ী কল্যান সমিতির সাধারন সম্পাদক আবদুল খালেক বলেন, ‘গাড়িঘোড়া বন্ধ, কেউ আসতে পারে না। খুইলা বইসা রইছি, বেচাকেনা নাই। কালকে বেচা হয় নাই। আইজ কিছু হইছে। টাইম বাড়ানোয় উপকার হইছে, কিন্তু যতক্ষণ পর্যন্ত গাড়ি না খুলবে, দোকান খোলা আর না খোলা সমান কথা। মানুষের তো আসতে পারতে হইব, খালিই চলতে পারে না তো মাল কিনা যাইব কীভাবে, আইব কীভাবে।

শহরের নিউ মার্কেট, শাহাদাত এমদাদ মিয়াজি সড়কের, আকবর আলী সুপার মার্কেট, হায়দরগঞ্জ ও রাখালিয়া মার্কেটের নেতারা বলেন, ‘রায়পুরে আশপাশের ব্যবসায়ীরা রায়পুরে ঢুকতে পারে না। বিক্রি কার কাছে হবে?’ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য ঘোষিত প্রণোদনা পেয়েছেন কি না, ব্যবসায়ী নেতা আরিফ আরো বলেন, ‘এগুলো আসলে ঘোষণা হলেও আমরা এগুলো পাই না। ব্যবসায়ীদের যে বড় বড় শীর্ষ সংগঠন, প্ল্যাটফর্ম আছে তারা বা ব্যবসায়ীদের মধ্যে যারা মাফিয়া আছে, তারে এগুলো পেয়ে থাকে। এগুলোর প্রসিডিউরও আমরা জানি না।’ সাবেক সোনালী ব্যাংক রোডের জুতা ব্যবসায়ী শরিফ হোসেন বলেন, ‘গণপরিবহন চালু হলে বেচাকেনা আরো ভালো হবে। বড় গাড়ি তো রায়পুরে ঢুকতে পারে না, কাস্টমারও পাচ্ছি না।’ একই মার্কেটের সামনে কথা হয় জীবন চন্দ্র কুড়ির সঙ্গে। করোনা সংক্রোমনে লকডাউনে গার্মেন্টস ছাড়া স্বর্নের ক্রেতা নাই।’ একা বসে আছি।। এদিকে অনেককেই পরিবার পরিজন নিয়ে মার্কেটগুলোতে আসতে দেখা যায়। তেমনই এক পরিবারের কর্তা স্কুল শিক্ষক সোলায়মান হক। করোনা সংক্রমণের মধ্যে পরিবার নিয়ে মার্কেটে কেন ? জানতে চাইলে তিনি বলেন, বেতন ও বোনাস পেয়েছি, তাই মেয়ের জন্য কিছু পোশাকের প্রয়োজন ছিল, তাই ঝুঁকির মধ্যেই আসা। জীবন তো আর থেমে থাকবে না, সবকিছুই চলছে।’ রায়পুরের পাশ্ববর্তী রামগঞ্জ থেকে আসা হাছান নামের আরেক ক্রেতা জানান, অনেক কষ্ট করে এ পর্যন্ত আসলাম। আগের থেকে দ্বিগুন গুণ বেশি ভাড়া দিয়ে আসতে হলো এই মার্কেটে। এখন মালামাল কিনে কীভাবে কী করব, সেই দুশ্চিন্তায় আছি।’ করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় সরকার জনসমাগম এড়াতে প্রথমে ৫ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত নানা বিধিনিষেধ আরোপ করে। পরে এই নিষেধাজ্ঞা আরও দুদিন বাড়িয়ে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়। তবে সে সময় সরকারি-বেসরকারি অফিস, শিল্পকারখানা, গণপরিবহন চালু ছিল। এরপর ১৪ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহের জন্য সব ধরনের অফিস ও পরিবহন বন্ধের পাশাপাশি বাজার-মার্কেট, হোটেল-রেস্তোরাঁসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। তবে উৎপাদনমুখী শিল্প কারখানায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়।

Previous articleচান্দিনায় ভূমি বরাদ্দ চেয়ে বেদে সম্প্রদায়ের স্মারকলিপি প্রদান
Next articleমুলাদীতে লাভাইয়ের লালসার শিকার শ্যালিকা অন্তঃসত্ত্বা, ধর্ষন মামলা থেকে বাঁচতে বিয়ে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।