সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ( আদিবাসী ) নারী শ্রমিকেরা মাঠের কাজে মজুরীর টাকা কম পান। এখন মাঠের ধান ফসল কাটায় একজন পুরুষ দিনমজুরের চেয়ে এরা দিনের হাজিরায় একশো টাকা কম পান। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর একজন নারী দিনমজুর পুরুষ দিনমজুরের সমান সময় কাজ করলেও দিনের মজুরী ৪শ টাকা। উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী অধ্যুষিত গারেশ্বর বেলাই ও ফাজিলনগর গ্রামে গতকাল রোববার গিয়ে এ তথ্য মিলেছে। গ্রাম দ্#ু৩৯;টিতে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মুন্ডারী, মাহাতো ও সিং মিলে প্রায় সত্তর পরিবারের বসবাস আছে। প্রায় সব পরিবার কৃষি পেশায় জড়িত বলে জানা গেছে। এদের দ্#ু৩৯;চারটি পরিবারের কৃষি জমি থাকলেও তা খুব বেশী পরিমান নয় বলে জানানো হয়। বেশীর ভাগ পরিবারের পুরুষদের পাশাপাশি নারীরাও মাঠের কাজে মজুরী বিক্রি করে থাকেন। উপজেলার গারেশ্বর বেলাই ও ফাজিলনগর গ্রামের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর প্রায় দেড়শো গৃহবধু নারী বছরের বিভিন্ন সময়ে মাঠের কাজে মজুরী বিক্রি করেন। এরা দলবেধে অন্য এলাকাতেও ধান কাটতে যান। এবারেও গ্রাম ২টির বেশ কিছু সংখ্যক নারী শ্রমিক ধান কাটতে দলবেধে অন্য এলাকায় গেছেন বলে জানানো হয়। তারা এখন নিজেদেও এলাকায় ধান কাটা শুরু হওয়ায় ফিওে আসছেন। গত দিনেক চারেক হলো গারেশ্বর বেলাই ও ফাজিলনগর গ্রামের আবাদী মাঠগুলোয় ইরি বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে । আর দিন সাতেক বাদেই এলাকায় পুরোদমে ধান কাটা শুরু হবে । সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে গারেশ্বর বেলাই মাঠে দলবেধে ক্ষুদ্র নৃ- গোষ্ঠীর নারী শ্রমিকেরা ধান কাটছেন। এদের পাশাপাশি পুরুষ শ্রমিকেরা ধান কাটছেন । গারেশ্বর বেলাই গ্রামের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর চার নারী একই গ্রামের মঈনুল ইসলামের জমিতে ধান কাটছেন । এরা ধান কাটতে মজুরী বিক্রি করেছেন। এদের সাথে দ্#ু৩৯;জন পুরুষ শ্রমিক ধান কাটছেন। ক্ষুদ্র নৃ – গোষ্ঠীর নারী শ্রমিক চারজন হলো- সোনাবালা মুন্ডারী, বিজলী মুন্ডারী, সরলা মুন্ডারী ও আলো মুন্ডারী। এদের বয়স চল্লিশ থেকে পঞ্চাশ বছরের মধ্যে হবে বলে জানা গেছে। এরা জানান ধান কাটায় দিনের মজুরীর টাকা পাচ্ছেন ৪শ টাকা। সকাল ছয়টা থেকে কাজ শুরু করেন। ধান কাটা , গৃহস্থ বাড়ীতে বয়ে পৌছে দেওয়ায় আট থেকে দশ ঘণ্টা এরা কাজ করেন বলে জানানো হয়। অথচ একই কাজে পুরুষ শ্রমিকেরা পাচ্ছেন ৫শ টাকা। জমির মালিক মঈনুল ইসলাম বলেন এলাকায় নারী শ্রমিকদের দিনের হাজিরায় মজুরীর টাকা কম এভাবেই চলে আসছে। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নারী শ্রমিক সোনাবালা মুন্ডারী প্রতিবেদককে জানান , প্রায় ৭০ বছর বয়সী তার স্বামী মঙ্গলা মুন্ডারী বয়সের কারণে এখন কোনো কাজ করতে পারেন না।গ্রামের ক্ষুদ্র নৃ -গোষ্ঠীর অন্য নারীদের মতো তিনি বহু বছর আগে থেকেই মাঠের কাজে মজুরী বিক্রি করে আসছেন। এখন তার মজুরীর টাকায় সংসার ও একমাত্র মেয়ে সন্তানের পড়ালেখার খরচ মেটান। তার মেয়েটি এখন সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থী বলে জানান। তিনি আরো বলেন অভাব থাকলেও মেয়েকে পড়ালেখায় শিক্ষিত করে গড়বেন।

গারেশ্বর বেলাই গ্রামের নিত্য মুন্ডারী , ফাজিলনগর গ্রামের শুশীল মাহাতো বলেন গ্রাম দুটোর তাদের ক্ষুদ্র নৃ -গোষ্ঠীর গৃহবধু নারীদের অনেকেই জীবন জীবিকায় বিভিন্ন সময়ে মাঠের কাজে মজুরী বিক্রি করেন । তবে জীবন মানের উন্নয়নে নারী শ্রমিকদের সংখ্যা কমছে। এখন বেশী বয়সের যারা আগে থেকেই মাঠে কাজ করে আসছেন তারাই মজুরী বিক্রি করছেন।এদের পরিবারের নতুন গৃহবধু নারীরা মাঠের কাজে মজুরী বিক্রি করেন না বলে জানা গেছে ।

Previous articleফিলিস্তিনে বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদে ঈশ্বরদীতে মানববন্ধন
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে ভূয়া ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন কর্মকর্তা আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।