প্রদীপ অধিকারী: জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার বাগজানা ইউনিয়নের শেকটা গ্রামের আঃ সালামের মেয়ে সাফিয়া আফরিন এর (২৫) তার তালাকপ্রাপ্ত স্বামী উপজেলার কুটাহারা গ্রামের মৃত আঃ জোব্বারের ছেলে আনারুল ইসলাম শেখ (৪৮)। আফরিনের তালাকপ্রাপ্ত স্বামী আনারুল গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে আফরিনের নিজ গ্রামের বাড়ি শেকটা গ্রামে গিয়ে দলবল সহ মারপিট ও শ্লীনলতাহানীর ঘটনা ঘটিয়েছে। ঘটনা বিষয়ে থানায় দেওয়া লিখিত অভিযোগ ও পরিবারের সদস্যদের বর্ণনা সূত্রে জানা যায়, গত ২০১৮ সালে আফরিনকে নানা কৌশলে আনারুল বিবাহ করে। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের টাকার জন্য বিভিন্নভাবে শারীরিক নির্যাতন করত আনারুল। বিষয়টি আফরিন বাবা-মা ও আত্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে সমাধান খুঁজে না পেয়ে গত ২০ সালের ২৭ নভেম্বর আফরিন স্বামী তালাক দিতে বাধ্য হয়। স্বামী তালাক দেওয়ার পরেও আনারুল তার সঙ্গে ঘর সংসার করার সময় বিভিন্ন অন্তরঙ্গ মুহুর্তের কৌশলে তোলা ছবিগুলো সে বিভিন্ন জনকে দেখায় এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়া সহ বিভিন্ন ভাবে আফরিন ও পরিবারের সদস্যদের জানমালের হুমকী দিয়ে আসছিল। এ বিষয়ে ইতিপূর্বে স্থানীয় ভাবে কয়েক দফা দেন দরবার হয়েছে। দেন দরবারের সময় আনারুল এ ধরনের কাজ আর করবে না মর্মে ক্ষমা চেয়ে পার পেয়ে যায়। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে ৪-৫ বখাটে যুবককে সাথে নিয়ে আবারে আফরিনের বাসার পাশে এসে দাড়িয়ে থাকে আনারুল। দাড়িয়ে থাকার এক পর্যায়ে আফরিনকে দেখতে পেয়ে সে বলে তাকে ছাড়া অন্য কোথাও যেন বিয়ে না করা হয়। অন্য কোথাও বিয়ে করলে অশ্লীল ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেওয়ার হুমকী দেয় এবং এক পর্যায়ে আফরিনকে মারপিট ও টানা হেঁচড়া করতে থাকে। এ সময় আফরিনের চিৎকারে পরিবারের সদস্যরা এগিয়ে আসলে আনারুল তার মোটরসাইকেলটি ফেলিয়ে পালিয়ে যায়। আফরিন আরো জানান, আমার এসএসসি, এইচএসসির মূল সার্টিফিকেট ও ভোটার আইডি কার্ড ইতি পূর্বে সে কেড়ে নেয় এখন ফেরত চাইলে সে দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এবিষয়ে আনারুল বলেন, আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ গুলো সঠিক নয়। পাঁচবিবি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব বলেন, “এমন একটি লিখিত অভিযোগ থানায় করা হয়েছে ঘটনাস্থল পরির্দশন শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

এব্যাপারে বাগজানা ইউপির ৬ নং ওয়ার্ডভুক্ত ইউপি. সদস্য (শেকটা) এবং প্যানেল চেয়্যারম্যান কাউসার আলীর সঙ্গে কথা বল্লে তিনি বষয়টি স্বীকার করে বলেন ছেলেটি বেয়াদব প্রকৃতির, এতো নিষেধ করা সত্ত্বেও সে মেয়েটিকে বিরক্ত ও ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছে। এঘটনায় কোর্টে একটি মামলা এখনও বিচারাধিন আছে।

Previous articleশ্বশুরবাড়ির আম গাছে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
Next articleসাপাহারে ১৫ লক্ষ টাকা মুল্যের প্রাচীন আমলে তৈরী মুর্তি উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।