স্বপন কুমার কুন্ডু: বোম্বাই লিচুর রাজধানী বলে খ্যাত ঈশ্বরদীতে বোটায় পচন ও পোকা লেগে গাছ থেকে ঝরে পড়ছে লিচু। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব, তীব্র ক্ষরার পর এবারে বৃষ্টিতে বোটায় পচনের সাথে সাথে পোকা জন্মাতে শুরু করেছে। এই অবস্থায় অস্বাভাবিক হারে গাছ থেকে লিচু ঝরে পড়তে শুরু করেছে। ঝরে পড়া লিচু কেনার খরিদ্দার নেই বাজারে। শুক্রবার সকালে ঈশ্বরদীর জয়নগরে শিমুরতলা লিচু হাটে ঝরে পড়া লিচু নিয়ে চাষিদের বসে থাকতে দেখা গেছে।

লিচু চাষি ও কৃষি অফিসের সাথে কথা বলে জানা যায়, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে এবারে ঈশ্বরদীতে লিচুর ফলন বিপর্যয় ঘটেছে। বোম্বাই জাতের লিচুর মাত্র ৩০-৪০ ভাগ গাছে মুকুল আসে। এরইমধ্যে শুরু হয় প্রচন্ড দাবদাহ। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবের আগে এখানকার তাপমাত্রা ৩৭-৩৯ ডিগ্রী সেলসিয়াসে উঠানামা করেছে।

মুন্নার মোড় এলাকার লিচু চাষি শাহমত মন্ডল জানান, তীব্র ক্ষরায় লিচুর দানা এবারে পুস্ট ও বড় হওয়ার আগেই লিচুতে রং ধরতে শুরু করে। বোম্বাই লিচুর চেয়ে এবারে দেশী মোজাফ্ফর লিচুর দানা বড় এবং খেতেও মিষ্টি হয়েছে। কিন্তু অতি স্বাদের বোম্বাই লিচুর দানাও এবারে ছোট এবং তেমন মিষ্টতা নেই, বরঞ্চ টক। আর ক্ষরার কারণে লিচুর বোটা নরম হয়ে এমনি এমনি ঝরে পড়ছে। বেশরিভাগ বোম্বাই লিচুতেই এখন পোকা বলে জানান তিনি।

লিচু চাষি আমির হামজা জানান, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে লিচুর ডাল ভেঙ্গে পড়ার যে আশংকা চাষিরা করেছিল তা হয়নি। তবে বৃষ্টি হয়েছে। আর বৃষ্টির কারণে লিচুর গোড়ায় পোকা জন্মেছে। ফলে অস্বাভাবিক হারে গাছ থেকে ঝড়ে পড়ছে লিচু । বোম্বাই লিচুর ফলন বিপর্যয়ের পর বেশী দামে লিচু বিক্রির আশায় বুক বেঁধেছিল চাষিরা। লিচু ঝরে পড়ায় এখন সেই আশা নিরাশায় পরিণত হয়েছে। বাজারে বা বাগানে ঝরে লিচু কেনার খরিদ্দার পাওয়া যায় না বলে তিনি জানিয়েছেন।

ডালিতে করে ঝরে পড়া লিচু বিক্রি করতে আসা চাষি রকিবুল জানান, যারা বেশী দামে ভালো লিচু কিনে খেতে পারেনা, তারাই কম দামে এই লিচুর গ্রাহক। ফরিয়ারা নামমাত্র দামে ঝরে পড়া লিচু কিনে নিয়ে ভ্যানে করে পাড়া ও মহল্লায় ফেরী করে কেজি দরে এই লিচু বিক্রি করে।

Previous articleনতুন গাড়ি পেয়ে রায়পুরে ৩০ কৃষকের মুখে হাসি
Next articleব্রিজ আছে রাস্তা নাই
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।