ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহারের আশ্রায়ন প্রকল্পের নির্মাধীন বাড়ি (গুচ্ছগ্রাম) ভেঙ্গে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে মহন্ত ক্ষিতীশ চন্দ্র আচারী নামক এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে।গত শনিবার (৫ জুন) গোমস্তাপুর সদর ইউনিয়নের গোঙ্গলপুরে নির্মাধীন ওই বাড়িগুলোতে দেশীয় ভারিঅস্ত্র (হাতুড়ি,খুনতি,হাম্বল) দিয়ে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করেন তারা।এ ঘটনায় গোমস্তাপুর থানায় রোববার (৬ জুন) একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন সংশ্লিষ্ট ভূমি কর্মকর্তা মোবিদুল ইসলাম

সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহরিয়ার নজির বলেন, ”১৯৫০ সালে জমিদারস্বত্ব যখন প্রজাস্বত্ব আইনে জমিদারস্বত্ব বিলুপ্ত হয়। সে সময় সরকার থেকে ঘোষণা করা হয় ৩৭৫ বিঘার জমি উর্ধ্বে কেউ জমি রাখতে পারবেনা।কোন ব্যক্তির যদি ৩৭৫ বিঘার উপরে জমি থাকে, তাহলে সে বাকি জমি সরকার ক্ষতিপূরণ দিয়ে অধিগ্রহণ করা হবে। সেই সময় ওই সম্পত্তিটি পাকিস্তান সরকার নামে রেকর্ড করা ছিল।এস.এ খতিয়ানের পর বাংলাদেশ সরকারের নামে রেকর্ড করা হয়।ওই সময়ের ক্ষতিপূরণে কাগজপত্র উপজেলা ভূমি অফিসের কাছে আছে।পুরো জমির মালিক বাংলাদেশ সরকারের।”
তিনি আরও জানান, “শ্রী ক্ষিতিশ চন্দ্র আচারী ৩০ বছরের আগে নবরাজ নামে একজনের মামলার রায়ের কপি দেখাচ্ছে। অথচ রায়ের বিষয়ে জেলা প্রশাসক, ভূমি অফিসসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তর অবগত নয়।এছাড়া মামলার রায়ের কপি দিয়ে রেকর্ড সংশোধন করেননি এত বছর পরেও । প্রথমবার যখন তিনি বাড়ি নির্মাণে বাঁধা দেয় তখন তাকে নিদিষ্ট শাখাগুলো থেকে ওই জমির কাগজপত্রগুলো উঠনোর আহবান জানান হয়।কিন্তু সে ওই আহবানে সাড়া দেয়নি।এ জমির সকল স্বত্ব সরকারের রয়েছে।এরই প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী উপহার গৃহহীনদের বাড়ি নির্মান করা হচ্ছে।”

অভিযুক্ত মহন্ত ক্ষিতীশ চন্দ্র আচারী জানান- ”আমার ওই জমি পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া। সাড়ে ৪ শ বছর ধরে ভোগ দখল করে আসছি। কিন্তু সার্ভেয়ার মিজানুর রহমান জাল কাগজপত্র বানিয়ে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা (ইউএনও) ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিসার এর কাছে সরবরাহ করেছে।এক নম্বর খাস-খতিয়ানভুক্ত ভূমি ভেবে ওই জায়গায় সরকারি বাড়ি তৈরি করছে প্রশাসন।”

তিনি আরও জানান, আমার কোন পোষা বাহিনী নেয়।আমার কোন লোকজন ওই নির্মাণাধীন বাড়ি ভাংচুর করেন নি।একাজ গোমস্তাপুর ইউপির চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন মন্ডলের ভাড়াটিয়া লোকেরা ভাংচুর করেছে। আমাকে ফাঁসানোর জন্য ষড়যন্ত্র করছে।

গোমস্তাপুর ইউপি চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন জানান-“এটা সরকারি জায়গা। এ জায়গায় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহারস্বরুপ গৃহহীনদের বাড়ি নির্মাণ করা হচ্ছে। কিন্তু মহন্ত ক্ষিতীশ চন্দ্র আচারী’র লোকজন নির্মাণাধীন বাড়ির দেয়ালগুলো ভেঙ্গে ফেলে দিয়েছে।তারা সেখানে কর্মরত শ্রমিকদের হুমকিও দেয় দুর্বৃত্তরা।এখানে আমার কোন সংশ্লিষ্টতা নেই।”

এ বিষয়ে গোসস্তাপুর থানার ওসি দিলিপ কুমার দাস অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleদুম্বার খামার করে কোটিপতি হওয়ার স্বপ্নে বিভোর ঈশ্বরদীর সোহেল
Next articleটাঙ্গাইলে ভাড়াটে খুনি দিয়ে স্বামীকে হত্যা করান স্ত্রী: গ্রেপ্তারকৃত দুই আসামির স্বীকারোক্তি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।