বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার পল্লীতে মাছ চুরির অভিযোগে জসিম শেখকে (৩০) পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ তার লোকজনের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার (১৫ জুন) ভোরে উপজেলার রতনপুর গ্রামে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত থাকার দায়ে মামলার এজাহার নামীয় আসামি ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী বিশ্বাসের স্ত্রী জায়েদা খাতুন ও ভাতিজা সালাউদ্দিনকে গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, কুষ্টিয়ার খোকসা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী বিশ্বাসের পুকুর থেকে মাছ চুরির অভিযোগে যুবক জসিমকে সোমবার দিবাগত রাতে ধরে এনে বেধড়ক মারপিট করা হয়। এতে ওই যুবক রক্তাক্ত জখম ও গুরুতর আহত হন। পরবর্তীতে খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন ওই যুবককে উদ্ধার করে খোকসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জসিম মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৪ টার দিকে মারা যান। তার মস্তিষ্কে বড় ধরনের আঘাতের চিহ্ন ছিল এবং রক্তক্ষরণের কারণে তার মৃত্যু হয় বলে হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডাক্তার কামরুজ্জামান সোহেল জানিয়েছেন।

হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের ভাই হাশিম শেখ বাদি হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী, তার স্ত্রী ও পুত্রসহ ১০ জনের নামে খোকসা থানায় মামলা করেন। লাশ উদ্ধারের পর কুষ্টিয়া ২৫০ বেড জেনারেল হাসাপতালের মর্গে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। নিহত জসিম শেখ খোকসা উপজেলার রওশন আলীর ছেলে। মামলার এজাহার নামীয় প্রধান আসামি ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী পলাতক রয়েছেন। এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী বিশ্বাসের সাথে কথা বলার চেষ্টা করে তার ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে।

খোকসা থানার ওসি সৈয়দ আশিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, দুই আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। ঘটনায় জড়িতদের আটক করে আইনের কাছে সোপর্দ করা হবে বলে ওসি জানান।

Previous articleপরকীয়ায় অন্ধ হয়েই স্বামী হত্যা, আদালতকে জানালেন সেই আইনজীবীর স্ত্রী
Next articleপাবনায় গ্রুপ ‘অল ইন ওয়ান’ প্লাটফর্মের ৮ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদ গঠন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।