ছবিতে শাহনাজের পরিবার। ছবিটি তুলেছেন লতিফ তালুকদার।

আব্দুল লতিফ তালুকদার: শাহনাজের বয়স যখন ৩ বছর তখনই বিচ্ছেদ ঘটে মা-বাবার। বাবা করলেন বিয়ে। সংসারে সৎমা। সৎমায়ের সংসারে নির্যাতনের শিকার শাহনাজ। এরই মধ্যে দু বছর রাখার পর বাধ্য হয়ে শাহনাজের বাবা, চাচা, চাচিরা তাকে লালনপালন করার জন্য টাঙ্গাইলে একটি পরিবারের কাছে নিয়ে যান। সেই পরিবারের কাছ থেকে ঢাকায় আরেকটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর হয় শাহনাজ। সেখান থেকে হারিয়ে যায় সে । অনেক খোঁজাখুঁজির পরও তাকে পায়নি তার পরিবার। পরে তার বাবা আবু সাঈদ ঢাকার তেজগাঁও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করে রাখেন। এরই মধ্যে জীবন থেকে হারিয়ে গেল ২০ টি বছর। সম্প্রতি আর জে কিবরিয়ার ‘আপন ঠিকানা’ নামে একটি অনুষ্ঠানের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে শাহনাজের পরিবারের নজরে আসে বিষয়টি। পরে আর জে কিবরিয়ার সাথে যোগাযোগ করে গত ১৯ জুন শাহনাজকে তার পরিবার ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসে। দীর্ঘ ২০ বছর পর হারিয়ে যাওয়া সন্তানকে ফিরে পেয়ে খুশিতে আত্মহারা তার পরিবার। এদিকে ছোট শাহনাজ এখন অনেক বড় হয়েছেন। বিয়ে করে স্বামীর সংসার। তিনি এখন এক পুত্রসন্তানের মা। পরিবারকে কাছে পেয়ে চলে যাওয়া ২০টি বছরের কষ্ট তিনি ভুলে গেছেন নিমেষেই। টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার জিগাতলা গ্রামের আবু সাঈদের মেয়ে শাহনাজ (২৫)। সরেজমিনে সেখানে দেখা গেছে, শাহনাজ তার দেড় বছরের পুত্র সন্তান নিয়ে পরিবারের সঙ্গে বেশ আনন্দে সময় কাটাচ্ছেন। তার পরিবারও তাকে পেয়ে খুশি। তার ফুটফুটে শিশুসন্তানকে আদর করছেন তার চাচা, ভাই ও ভাতিজারাসহ অনেকেই। এদিকে এত বছর পর বাড়িতে ফিরে আসায় তাকে দেখতে বাড়িতে ভীড় করছে গ্রামের মানুষ। বিষয়টি নিয়ে কথা হয় শাহনাজের চাচাতো ভাই মোহাম্মদ রায়হানের সঙ্গে। তিনি বলেন, আমরা যখন ছোট ছিলাম, তখন শাহনাজের মা তাকে নিয়ে যেতে চান। কিন্তু আমাদের পরিবারের কেউই রাজি ছিলাম না। পরে শাহনাজের বাবাকে রাজি করিয়ে একটি পরিবারের কাছে শাহনাজকে দেওয়া হয় লালনপালন করার জন্য। একদিন সেই পরিবারের সঙ্গে ঢাকায় বেড়াতে গিয়ে শাহনাজ হারিয়ে যায়। এরপর অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাওয়া যায়নি। তখন ঢাকার তেজগাঁও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন আমার চাচা আবু সাঈদ। তিনি বলেন, আমার মা শাহনাজের জন্য সব সময় কান্নাকাটি করতেন। এখনো শাহনাজের ব্যবহৃত জামাকাপড়, জিনিসপত্র আমার মা যতœ করে রেখে দিয়েছেন। এ জন্য কিছুদিন আগে আমি আমার ফেসবুক ওয়ালে শাহনাজের সন্ধান চেয়ে একটা পোস্ট করি। পরে সেই পোস্ট আমার বন্ধুবান্ধবসহ অনেকেই দেখেন।

রায়হান বলেন, কিছুদিন আগে জনপ্রিয় রেডিও উপস্থাপক আর জে কিবরিয়ার ‘আপন ঠিকানা’ নামের একটি অনুষ্ঠানে আমার বোনকে নিয়ে একটা প্রোগ্রাম করেন। সেই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। পরে জিগাতলা গ্রামের এক সেনাবাহিনীর সদস্য জুয়েল বিদেশে বসে ভিডিওটি দেখে আমাকে খবর দেন। পরিচয় ও হারিয়ে যাওয়ার ঘটনা মিলে যাওয়ায় আমরা তাকে আনতে ঢাকা যাই। ১৯ জুন স্বামী-সন্তানসহ শাহনাজকে ফিরে পাই। তারপর তাদের বাড়িতে নিয়ে আসি।

পরিবার ফিরে পাওয়ার অনুভূতি জানিয়ে শাহনাজ বলেন, আমার মা-বাবার বিচ্ছেদের পর আমার বসয় যখন পাঁচ বছর, তখন টাঙ্গাইলের একটি পরিবারের কাছে আমাকে লালনপালন করার জন্য দেওয়া হয়। ওই পরিবার আমাকে ঢাকায় নিয়ে যায়। তাদের বাসায় দুই বছর থাকার পর আমি একদিন হারিয়ে যাই। এরপর ঢাকার খিলগাঁও বাসাবোর কদমতলা এলাকার মাশুক আহমেদ আমাকে পেয়ে তার বাসায় নেন। সেখানেই আমি বড় হই। তারা আমাকে মেয়ের মতো করেই বড় করেছেন।

তিনি বলেন, তারা আমাকে নওঁগা জেলার বাসিন্দা আব্দুর কাদেরের সঙ্গে বিয়ে দেন। আমার স্বামী বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার। একটি টেক্সটাইল কোম্পানিতে চাকরি করছেন। এদিকে আমার স্বামীও আমার পরিবারকে খুঁজে পাওয়ার বিষয়ে আন্তরিক ছিল। পরে ‘আপন ঠিকানা’ প্রোগ্রামের মাধ্যমে আমি আমার পরিবারকে খুঁজে পাই।

শাহনাজ বলেন, ২০ বছর পর পরিবারকে খুঁজে পাব, সেটা ভাবতে পারিনি। আল্লাহ আমাদের মিলিয়ে দিয়েছেন। আমার পরিবারকে খুঁজে পাওয়ার জন্য শুধু স্মৃতি ছাড়া আমার কাছে কিছু ছিল না। আমার স্বামীও সবকিছু জেনে শুনে আমাকে বিয়ে করেছে। আমার শ্বশুর-শাশুড়ি অনেক ভালো মনের মানুষ। তারা আমাকে নিজের মেয়ের মতোই আদর-যতœ করেন।

শাহনাজের চাচা তোজাম্মেল হক বলেন, পাঁচ বছর বয়সে হারিয়ে যাওয়া শাহনাজকে আমরা ফিরে পেয়েছি। দীর্ঘ ২০ বছর পর শাহনাজ যেমন পরিবার পেয়ে খুশি, আমরাও তাকে পেয়ে অনেক খুশি।

Previous articleসাঁথিয়ায় কলেজ মাঠে পশুরহাট বসানোর প্রস্তুতি, ফুঁসে উঠেছে শিক্ষার্থীরা
Next articleকলাপাড়ায় কিশোরীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।