জয়নাল আবেদীন: রংপুরে প্রাথমিকের প্রায় সোয়া লাখ শিক্ষার্থী ‘স্কুল ফিডিং’ সুবিধা হতে বঞ্চিত হতে যাচ্ছে। আগামী মাস থেকে টিফিন হিসাবে খেতে দেওয়া বিস্কুট বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাবে।

এতে দারিদ্র্যপীড়িত রংপুর জেলার গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া, বদরগঞ্জ ও তারাগঞ্জের ৫শ৬১টি সরকারি প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষার্থীরা পড়বে পুষ্টি সংকটে। সেই সাথে বাড়বে প্রাথমিকে ঝড়ে পড়া শিশুর সংখ্যা।সুবিধাভোগী শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা সরকার ও বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির (ডব্লিউএফপি) সহায়তায় পরিচালিত ‘স্কুলফিডিং’ প্রকল্পটির মেয়াদ বাড়ানোর দাবি তুলেছেন। টিফিনে উচ্চ পুষ্টিসম্পন্ন বিস্কুটের পরিবর্তে নগদ টাকা অথবা অন্য কোনো কিছু না দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সুবিধাভোগী স্কুলের শিক্ষকেরা। তবে স্কুল ফিডিং প্রকল্পের মেয়াদ এ মাসে শেষ হবার কারণে জুলাই থেকে শিশুদের মধ্যে আর বিস্কুট বিতরণ করা সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা। জানা গেছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ‘স্কুল ফিডিং’ প্রকল্পের আওতায় সারা দেশের দারিদ্র্যপীড়িত ৩৫টি জেলার প্রাথমিক স্কুলের ৩১ লাখ ৬০ হাজার শিশুকে প্রতিদিন টিফিন হিসাবে বিস্কুট খেতে দেয়া হয়। এরমধ্যে রংপুর জেলার কাউনিয়া, গঙ্গাচড়া, তারাগঞ্জ ও বদরগঞ্জ উপজেলা ৫শ৬১টি স্কুলের ১ লাখ ১৪ হাজার ৩শ৫৪ জন শিশু শিক্ষার্থী রয়েছে। যার মধ্যে তিস্তা, ঘাঘট, করতোয়া ও যমুনেশ্বরী নদী বিধৌত চরাঞ্চলের শিক্ষার্থী রয়েছে প্রায় ২৯ হাজার। এই প্রকল্পের মেয়াদ জুনে শেষ হলে আগামী জুলাই থেকে শিশুদের মধ্যে আর বিস্কুট বিতরণ করা সম্ভব হবে। একই সঙ্গে বিতরণ কার্যক্রমে নিয়োজিত বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলোর (এনজিও) সাথে প্রকল্প চুক্তির মেয়াদও শেষ হবে।

আরো জানা গেছে, স্কুল ফিডিং প্রকল্পে দেওয়া একেকটি বিস্কুটের প্যাকেটের ওজন ৭৫ গ্রাম। এক প্যাকেট বিস্কুটে রয়েছে ৪শ৫০ কিলোক্যালরি। এর মধ্যে ১শ২৫ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ৭৫ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম। প্রচলিত অন্যান্য বিস্কুটের মতো সুস্বাদুও নয়। এতে চিনির পরিমাণ কম। এই বিস্কুটে চিনির পরিমাণ মাত্র ১২ শতাংশ। একবারে দুটি বিস্কুট খেয়ে বেশি পরিমাণ পানি খেতে হয়।তবে উচ্চমাত্রার পুষ্টিগুণ থাকায় একবারে আটটি বিস্কুট খেলে শিশুদের সমস্যা দেখা দেয়।এদিকে প্রাথমিকে শতভাগ ভর্তি নিশ্চিত ও ঝরে পড়া রোধ করতে স্কুল ফিডিংই একমাত্র উপায় বলে মনে করছেন শিক্ষক ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা। তারা প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানোর পক্ষে মত দিয়েছেন। আর অভিভাবকেরা বলছেন, উপবৃত্তির চেয়ে স্কুল ফিডিং বেশি জরুরি। দরিদ্রপীড়িত শিশুদের পুষ্টি চাহিদা পূরণে স্কুল ফিডিং গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রকল্প। এনজিওগুলোর দাবি, সার্বিক দিক বিবেচনা করে চলমান স্কুল ফিডিং প্রকল্পের মেয়াদ আরো এক বছর বাড়ানো সম্ভব। কারণ, প্রকল্পের সরকারি খাতে ৪ শত ৭৩ কোটি ৯ লাখ টাকা এখনো ব্যয় করা হয়নি।গঙ্গাচড়া উপজেলার ইচলি বাগেরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যলয়ের প্রধান শিক্ষক আইয়ুব আলী জানান, তিস্তা বেষ্টিত এখানকার চরাঞ্চলের শিশুরা স্কুল ফিডিং সুবিধার আওতায় থাকার কারণে ঝড়ে পড়া কমে এসেছে। এখন শুনছি প্রকল্পের মেয়াদ জুনে শেষ হবে। এরপর আর বাচ্চাদের বিস্কুট দেওয়া হবে না। অথচ বিস্কুটের প্রতি একেকটা শিক্ষার্থীর অন্যরকম আগ্রহ রয়েছে। প্রাথমিকের বেশির ভাগ শিশুই বিস্কুটের জন্য স্কুলে আসে। এটা সরকারের একটা প্রশংসনীয় ও সফল প্রকল্প।

তিনি আরো বলেন, চলতি বছরে ইচলি বাগেরহাট স্কুলে ৩শ৬১ জন শিক্ষার্থী স্কুল ফিডিং প্রকল্পের সুবিধায় নিয়মিত বিস্কুট পেয়েছেন। করোনার কারণে স্কুল বন্ধ থাকলেও বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিস্কুট পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এর আগের বছরে ৩শ৪৭ এবং ২০১৯ সালে ৩শ৮৬ জন বিস্কটু পেয়েছেন। পুষ্টি চাহিদা পূরণে এই প্রকল্প চরের শিক্ষার্থীদের জন্য বেশ উপযোগি এবং প্রয়োজনীয়। এটা হঠাৎ বন্ধ করলে প্রাথমিকে ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা আবারো বাড়ার আশংকা রয়েছে ।একই উপজেলার চর ইসরকুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজগর আলী বলেন, স্কুল ফিডিং আর নগদে টাকা দেওয়া, এক জিনিস নয়। টাকা দিলেও তো অন্য কাজেও খরচ হতে পারে। অভিভাবকেরা তাদের প্রয়োজনে ব্যবহার করবে। কিন্তু বিস্কুটটা তো আর অভিভাবকেরা চাইলে নষ্ট করতে পারে না। বরং এই প্রকল্পের মাধ্যমে শিশু শিক্ষার্থীরা ভীষণ উপকৃত হয়েছে। আমাদের এলাকাতে ঝড়ে পড়ার প্রবণতাও কমে এসেছে। কিন্তু বিস্কুট বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ হলে পরিস্থিতি আবার উল্টো হবে। কাউনিয়া উপজেলার আলুটারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল আউয়াল জানান, সরকার প্রাথমিকে শিক্ষার্থীদের ঝড়ে পড়া রোধে যত প্রকল্প হাতে নিয়েছে, তার মধ্যে সবচেয়ে সফল ও কার্যকর প্রকল্প স্কুল ফিডিং। এই প্রকল্পটি শিক্ষার্থীদের স্কুলমুখী করেছে। অভিভাবকেরা তাদের বাচ্চাদের নিয়মিত স্কুলে আসতে দিয়েছে। কিন্তু এখন তো শুনছি, জুনেই প্রকল্পের মেয়াদ হচ্ছে। এরপর আর নাকি বিস্কুট বিতরণ হবে না। এমনটা হলে শিক্ষার্থীদের স্কুলে আসা কমে যাবে। আমি চাই প্রাথমিকে ঝড়ে পড়া রোধে স্কুল ফিডিং প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হোক।একই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী কুলসুম বানু বলেন, এখন করোনার কারণে বাড়িতে থেকে বিস্কুট পাচ্ছি। কিন্তু স্কুল খোলা থাকলে তো বিকেল সোয়া ৪টা পর্যন্ত আমাদের স্কুলে থাকতে হয়। আমার অনেক বন্ধু বিস্কুটের জন্যই স্কুলে আসে। এটা আমাদের মত গরীব শিশুদের জন্য অনেক পুষ্টিকর বিস্কুট। শুধু আমি নিজেই খাই না, আমার ছোট ভাই-বোনেরাও এই বিস্কুট খায়।কাউনিয়ার সরদা তালুক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক নুর মোহাম্মদ বলেন,

আমার মত গরীবের অনেক সমস্যা। টাকা-পয়সার অভাবে বাচ্চাদের ঠিক মতো পুষ্টিকর খাবার দিতে পারি না। সরকার থেকে স্কুল ফিডিং চালু করছে। এটার কারণে আমার দুইটা বাচ্চা স্কুলে টিফিনের সময়ে বিস্কুট পায়, এটা নাকি শরীরের জন্য খুবই ভালো। আমার ছোট ছেলে তো বিস্কুটের আশায় স্কুল যায়। সরকারের এই কার্যক্রম হলে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হব। বাচ্চারা স্কুল যেতে চাইবে না। একারণে এটা চালু রাখা জরুরি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারাগঞ্জের দায়িত্বে থাকা স্কুল ফিডিং প্রকল্পে কর্মরত একজনবলেন, রংপুরে সুবিধাভোগী বেশিরভাগ প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষার্থী তিস্তা-ঘাঘট, করতোয়া ও যমুনেশ্বরী নদী এলাকার। এদের অনেকে আবার নদী তীরবর্তী চরাঞ্চলে বসবাস। ২০১২ সাল থেকে শিক্ষার্থীদের বিস্কুট দেওয়া হচ্ছে। তবে রান্না করা খাবারের চেয়ে বিস্কুটই ভালো। শুনছি এখন বিস্কুট নয়, খাবারের জন্য নগদের মাধ্যমে টাকা দেয়া হবে। শিক্ষার্থীরা উপবৃত্তির টাকােই ঠিক মতো পাচ্ছে না। আবার খাবার টাকা দিলে দুটোই শেষ। তখন কেউ পাবে, কেউ পাবে না অভিযোগের শেষ থাকবে না।রংপুর জেলায় স্কুল ফিডিং প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা প্রকল্প সমন্বয়কারী শাহিন হক জানান, জেলায় চারটি উপজেলার দুটি এনজিওর ২৯ জনকে নিয়ে স্কুল ফিডিং প্রকল্পটি পরিচালিত হচ্ছে। কর্মরত সবাই চুক্তিভিত্তিক কাজ করছেন। তাদের মাধ্যমে চার উপজেলার ৫শ৬১টি সরকারি প্রাথমিক স্কুলের ১ লাখ ১৪ হাজার ৩শ৫৪ জন শিক্ষার্থী স্কুল ফিডিংয়ের আওতায় বিস্কুট পেয়ে আসছে। এর মধ্যে গঙ্গাচড়ার ১শ৮০টি স্কুলের ৩৭ হাজার ৫শ২৩ জন, কাউনিয়ার ১শ২৮টি স্কুলের ২৫ হাজার ১শ৭৭, বদরগঞ্জে ১শ৭৭টি স্কুলের ৩৪ হাজার ৩শ৪৯ এবং তারাগঞ্জের ৭৬টি স্কুলের ১৭ হাজার ১শ৫৬ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। দেশে প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার হার কমাতে ২০০১ সালে স্কুল ফিডিং প্রকল্প চালু হলেও রংপুর জেলায় এই কার্যক্রম শুরু হয় এগারো বছর পর। তিনি আরো জানান, এ মাসের ৩০ জুন পর্যন্ত চলমান প্রকল্পে সারা দেশে ব্যয় হবে ৪ হাজার ৫শ১৮ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে ৩ হাজার ২শ৬৩ কোটি ৯৮ লাখ টাকা এবং প্রকল্পের সাহায্যের সমুদয় টাকা ব্যয় হবে। এছাড়া সরকারি খাতে ৪ শত ৭৩ কোটি ৯ লাখ টাকা এখনো ব্যয় করা হয়নি। প্রকল্পের কার্যক্রম চলামান না থাকলে এ টাকা ফেরত চলে যাবে। এ অবস্থায় অব্যয়িত টাকা দিয়ে স্কুল ফিডিং প্রকল্পের চলমান বিদ্যালয়গুলোতে বেবল উচ্চ পুষ্টিমান সমৃদ্ধ বিস্কুট প্রদান করা হলে আগামী জুলাই থেকে ১২ মাস এ কার্যক্রম চালানো সম্ভব হবে। এ ব্যাপারে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এ এম শাহজাহান সিদ্দিক বলেন, প্রকল্পের মেয়াদ জুন মাসেই শেষ হবে। পরের মাস থেকে শিক্ষার্থীরা আর পুষ্টিসম্পন্ন বিস্কুট পাবেন না। সরকার এখনো প্রকল্পের মেয়াদ বৃদ্ধির বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেননি। নতুন করে প্রকল্প নিয়ে কাজ করতে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় চিন্তাভাবনা করছে। তিনি আরো বলেন, দেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার হার কমাতে ২০০১ সালে স্কুল ফিডিং প্রকল্প চালু করে সরকার। এরপর ১৬ বছরে মাত্র ১৭ শতাংশ শিশুকে এর আওতায় আনা হয়েছে। এই প্রকল্প বন্ধ হলে দরিদ্রপীড়িত পরিবারের শিশুদের স্কুলমুখী করতে একটু হলেও বেগ পেতে হবে। সেই সঙ্গে এই কাজে যুক্ত বিভিন্ন এনজিও‘র কয়েক হাজার স্টাফ‘র চাকরিও অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে ।

Previous articleপুলিশের ধাওয়া খেয়ে পালাতে গিয়ে বিদ্যুতের পিলারে ধাক্কায় মোটরসাইকেল চালকের মৃত্যু
Next articleমুলাদীতে জ্যামিতিক হারে বাড়ছে করোনা সংক্রমন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।