আব্দুল লতিফ তালুকদার: করোনা সংক্রমণরোধে সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধ দিয়েছেন। শহরাঞ্চলের এর ব্যাপক প্রয়োগ হলেও প্রভাব নেই গ্রামাঞ্চলের মানুষদের মাঝে।

গত ১ জুলাই থেকে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর শহরের বেশিরভাগ প্রধান সড়কসহ স্টেশনগুলোতে প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় বেশ সাড়া ফেলেছে। তবে উপজেলার বিভিন্ন বাজার ও গ্রামাঞ্চলের মানুষ ঠিকই বেরিয়ে পড়েছে ঘর থেকে, এমনকি বেশিরভাগ মানুষের মুখে মাস্ক নেই বরং আগের মতোই চায়ের দোকানে ও পাড়া মহল্লায় আড্ডা দিতে দেখা গেছে। প্রশাসনের লোকজন দেখলেই পালিয়ে যাচ্ছে অলিগলিতে আবার বেড়িয়ে পড়ছে। এযেন চোর পুলিশের খেলা। সরেজমিনে দেখা যায় উপজেলার গোবিন্দাসী, নিকরাইল, মাটিকাটা, পাথাইলকান্দি, সিরাজকান্দি, ফলদা, গাবসারা চরাঞ্চলসহ চরনিকলার বিভিন্ন অলিগলিতে ও পাড়া মহল্লার চ্#া৩৯;র স্টলগুলোতে জমিয়ে আড্ডা দিচ্ছে। কেউবা চা স্টলে টিভি দেখায় ব্যস্ত। রবিবার সকালে উপজেলার গোবিন্দাসী ঘাট মাছ বাজারে দেখা গেছে উপচেপড়া ভীর। মুখে নেই মাস্ক, নেই সামাজিক দূরুত্ব। মাছ কেনার জন্য ভোর সকালে বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসছে পাইকাররা। গোবিন্দাসী ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম আমিন বলেন, সরকার কঠোর লকডাউন দিলেও গ্রামাঞ্চলে এর কোন প্রভাব নেই।

আগের মতই স্বাভাবিক ভাবে চলাফেরা করছে। এতে করোনার ঝুঁকি বাড়ছে। গোবিন্দাসী ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান তালুকদার বাবলু বলেন, প্রশাসন যথেষ্ট তৎপর রয়েছে। মানুষ নিজ থেকে সচেতন না হলে শুধু প্রশাসনের উপর ভরসা করলে চলবে না। তবে গ্রামের মানুষ এখনো করোনাভাইরাসকে কিছুই মনে করছে না। তারা কেউ মাস্ক পরতেও আগ্রহী নয়। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা. নাসরিন পারভিন বলেন, প্রথম দিন থেকেই আমাদের উপজেলা প্রশাসন, সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবি মাঠে তৎপর রয়েছে। তবে নিজেদের সুরক্ষার জন্য সমাজের সবাইকে সচেতন হতে হবে।

Previous articleস্ত্রীসহ করোনা আক্রান্ত ভূঞাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম
Next articleঈশ্বরদীতে পানির দামে দুধ, তবুও ক্রেতা নেই
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।