জি এম মিন্টু: কেশবপুরে যৌতুকের দাবিতে ১ম স্ত্রীকে মধ্যযোগীয় কায়দায় মারপিট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় যৌতুকলোভী স্বামী ও তার ২য় স্ত্রীর বিরুদ্ধে কেশবপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বুড়িহাড়ি গ্রামের আব্দুর রউফ মোল্যার মেয়ে সালমা খাতুনের সাথে একই উপজেলার মুল গ্রামের মৃত আয়ুব আলী সরদারের ছেলে আব্দুল মতিনের প্রায় ১৫ বছর আগে বিয়ে হয়। তার বিবাহের সময় ও পরে বিভিন্ন সময়ে যৌতুক হিসেবে নগদ ১ লক্ষ টাকা, ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা মূল্যের আড়াই ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার ও একটি বাইসাইকেল, ১টি মোবাইল ফোন,১টি গরুসহ সাংসারিক দামী জিনিসপাত্র,যার আনুমানিক মূল্য ২ লক্ষ টাকা তার জামাই মতিন তার শ্বশুরের কাছ থেকে গ্রহন করে। বিয়ের পর তাদের ঔরসে একটি কন্যা সন্তান জন্ম গ্রহন করে। যার নাম তামান্না খাতুন। তার বর্তমান বয়স ১৩ বছর। এত কিছু দেওয়ার পরও পাষন্ড স্বামী নতুন করে তার স্ত্রীর কাছে আরো ১ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবি করে। স্বামীর দাবিকৃত যৌতুকের টাকা বাপের বাড়ী থেকে আনতে না পারায় প্রায় স্ত্রীর উপর অমানুষিক নির্যাতন ও ২য় বিয়ে করার হুমকী দিত পাষন্ড স্বামী । এক পর্যায়ে ১ম স্ত্রীকে না জানিয়ে তার স্বামী ৫/৬ মাস পূর্বে ২য় বিয়ে করে দ্বিতীয় স্ত্রীর বাপের বাড়িতে অবস্থান করে এবং প্রায় সময় বাড়ীতে এসে তাকে মারপিট করত এবং তার ও তার মেয়েকে কোন ভরন-পোষন দিতনা। এর জের ধরে গত ১৩ জুলাই তার স্বামী বাড়ীতে এসে যৌতুকের দাবিতে তাকে মধ্যযোগীয় কায়দায় নির্যাতন চালায়। সংবাদ পেয়ে তার পিতা তাকে মুমুর্ষবস্থায় মেয়ে সালমাকে উদ্ধার করে কেশবপুর হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় ১ম স্ত্রী সালমা খাতুন বাদী হয়ে গত ১৪ জুলাই স্বামী মতিন সরদার ও ২য় স্ত্রী খাদিজা খাতুনের বিরুদ্ধে কেশবপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছে।

এব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ বোরহান উদ্দীন জানান, অভিযোগ পেয়েছি, তদন্তপূর্বব অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Previous article৩৪ ঘন্টা পরও পদ্মা সেতুর মালামাল নিয়ে ডুবে যাওয়া জাহাজের খোঁজ মেলেনি
Next articleময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে আরও ১৯ মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।