অতুল পাল: বাউফলে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা আশংকাজনক হারে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতিমধ্যে হাসপাতালের একজন ডাক্তার, দুইজন উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার এবং তিনজন নার্স করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় জনমনে আতংকের সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাইন এখন তামাশায় পরিণত হয়েছে। বাউফলের সর্বত্রই দোকানপাট খোলা রয়েছে এবং জনগণ উন্মূক্ত চলাচল করছে। বাউফল হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত চার দিনে মাত্র ২২৮ জনের নমূণা পরীক্ষায় ১৩৩ জন করোনা পজেটিভ পাওয়া গেছে। কিন্তু হাসপাতালের চিকিৎসক এএসএম সায়েম জানান, যেভাবে জ্বর- কাশির রোগী আছে তাদের নমূণা পরীক্ষা করালে আক্রান্তের হার শতকরা ৭০ থেকে ৮০ ভাগ হবে। একই মতামত ব্যাক্ত করেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পণা কর্মকর্তা ডা. প্রশান্ত কুমার সাহা। তারা অভিন্ন মতে বলেন, বাউফলে লকডাউনের নামে প্রহসন চলছে। মানুষ সচেতন, মাস্ক ব্যবহার এবং উন্মূক্ত চলাচল বন্ধ করতে না পারলে সামনের দিকে ভয়াবহ অবস্থা হবে। তাছাড়া করোনাকে ভয় না পেয়ে এবং সামাজিক কুসংস্কার ভুলে পরীক্ষায় আগ্রহী হতে হবে। পরীক্ষা করে পজেটিভ পাওয়া গেলে যথাযথ চিকিৎসা নিলে রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। একাজে সমাজের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। এদিকে বাউফল হাসপাতালের ডা. নুপুর বেগম, নার্স সুমিতা রানী, নাসরিন আক্তার, হাসিনা এবং উপসহকারী মেডিকেল অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান ও ফাতিমাজ্জুর জহুরা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তারাসহ প্রায় শতাধিক রোগী হোম আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ১৩ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সরেজমিন বাউফলের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সকল হাট- বাজারেই সকল ধরণের দোকানপাট খোলা রয়েছে। সেনাবািহনী কিছু কিছু হাট-বাজরে টহল দিলেও দোকানপাট খোলা এবং মাস্কবিহীন মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণে কঠোরতা চোখে পড়ছে না। পুলিশি টহলও চোখে পড়ছে না। ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রমও চলছে না। ফলে সরকারের কঠোর লকডাউন এখন হাসিঠাট্টার পাত্র হয়ে দাড়িয়েছে। এইধরণের ঢেলেমি মারাত্বাক ক্ষতি ডেকে আনতে পাের বলে বাউফলের সচেতন মহল মনে করছেন।

Previous articleকলাপাড়ায় লকডাউনে সরকারি বিধি নিষেধ না মানায় ৩৪ জনকে অর্থদণ্ড
Next articleনোয়াখালীতে করোনায় বিএনপি নেতার মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।