জয়নাল আবেদীন: গত ২৪ ঘণ্টায় রংপুর বিভাগে করোনায় আক্রান্ত আরও ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৬শ৭৯ জন।রংপুরের ছয়জন, ঠাকুরগাঁওয়ের ছয়জন, দিনাজপুরের দুইজনসহ নীলফামারী, পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম ও গাইবান্ধার একজন করে ।

এ নিয়ে বিভাগে গত এক মাসে করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৪শ১৭ জন ও শনাক্ত হয়েছে ১৮ হাজার ৮শ৭২ জন ।রোববার দুপুরে রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. মো. মোতাহারুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, এ সময়ে বিভাগে ২ হাজার ২শ৪০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে রংপুরের ১শ৫৬ জন, পঞ্চগড়ে ৬৩, কুড়িগ্রামের ৯০ জন, দিনাজপুরের ৯৪ জন, লালমনিরহাটের ৩৮ জন, গাইবান্ধার ৫১ জন, ঠাকুরগাঁওয়ের ১শ০৭ জন ও নীলফামারীর ৮০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনিবারের তুলনায় এই বিভাগে মৃত্যু ও শনাক্ত দুটোই বেড়েছে।নতুন করে মারা যাওয়া ১৮ জনসহ বিভাগে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯শ৩৬ জনে। এর মধ্যে দিনাজপুরে ২শ৭০ জন, রংপুরে ২শ০৬ জন, ঠাকুরগাঁওয়ে ১শ৮২, নীলফামারীতে ৬৭, পঞ্চগড়ে ৫৮, লালমনিরহাটে ৫৫, কুড়িগ্রামে ৫৪ ও গাইবান্ধায় ৪৪ জন রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৬শ৭৮ জন।বিভাগের আট জেলায় এখন পর্যন্ত ৪৪ হাজার ৮শ৫২ জন করোনা শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে দিনাজপুুরে ১২ হাজার ৭শ১৩ জন, রংপুরে ৯ হাজার ৯শ৬১ জন, ঠাকুরগাঁওয়ে ৬ হাজার ১শ৩৯ জন, গাইবান্ধায় ৩ হাজার ৮৫১ জন, নীলফামারীর ৩ হাজার ৬শ১৭ জন, কুড়িগ্রামের ৩ হাজার ৫শ৬২ জন, লালমনিরহাটের ২ হাজার ২শ৫৩ জন এবং পঞ্চগড়ের ২ হাজার ৭শ৫৬ জন রয়েছেন। করোনাভাইরাস শনাক্তের শুরু থেকে এ পর্যন্ত রংপুর বিভাগে ২ লাখ ১৮ হাজার ৮শ১১ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। বিভাগের আট জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু হয়েছে দিনাজপুর, রংপুর ও ঠাকুরগাঁও জেলায়।এছাড়া ভারতীয় সীমান্তঘেঁষা জেলাগুলোয় বেড়েছে শনাক্ত ও মৃত্যু। এদিকে রংপুরের জেলা সিভিল সার্জন ডা. হিরম্ব কুমার রায় জানান, গেল জুলাই মাসে শুধু রংপুর মহানগর ও আট উপজেলাতে করোনা সংক্রমিত ৩ হাজার ৯শ৮০ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৮৭ জনের। এদের মধ্যে বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরুষ রয়েছে। তবে আগের তুলনায় এখন তরুণদের মধ্যে সংক্রমণ বেড়েছে। অপরদিকে করোনার উপসর্গ নিয়ে প্রতি দিন বিভাগের সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন হাসপাতালে অন্তত ১০ থেকে ১৫ জনের মৃত্যু হচ্ছে বলে জানা গেছে। তবে উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের হিসাবে ধরছে না স্বাস্থ্য বিভাগ। বর্তমানে বিভাগের হাসপাতালগুলোতে সংকটাপন্ন রোগীদের জন্য মিলছে না আইসিইউ শয্যা। রোগী ভর্তির চাপ বাড়াতে অক্সিজেন চাহিদাও বেড়েছে।রংপুর বিভাগের আট জেলার সংকটাপন্ন রোগীদের চিকিৎসা সেবার জন্য আইসিইউ শয্যা রয়েছে মাত্র ৪৬টি। এর মধ্যে রংপুর ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেশন হাসপাতালে ১০টি (সচল ৮টি), রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২০টি এবং দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৬টি শয্যা রয়েছে।

Previous articleহাতিয়ায় বসত ঘরে একা পেয়ে বাকপ্রতিবন্ধী যুবতীকে ধর্ষণ, যুবক কারাগারে
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে শোকাবহ আগস্টের প্রথম প্রহরে মোমবাতি প্রজ্বলনের মাধ্যমে শুরু হয়েছে শোকের মাস
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।