জয়নাল আবেদীন: রংপুর বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত আরও ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৫শ৭৫ জন। এ নিয়ে দুই দিনে বিভাগে করোনায় ৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ২শ৫৪ জন। সোমবার দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. মো. মোতাহারুল ইসলাম ।তিনি জানান, রোববার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ঠাকুরগাঁওয়ের ৩জন, গাইবান্ধার ৩জন, রংপুরের ২জন, পঞ্চগড়ের ২জন,দিনাজপুরের ২জনসহ নীলফামারী ও লালমনিরহাটের ১জন করে রয়েছেন।এ সময়ে বিভাগে ১ হাজার ৯শ৩৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে রংপুরের ১শ৫৪ জন, দিনাজপুরের ৯৭ জন, কুড়িগ্রামের ৭৯ জন, ঠাকুরগাঁওয়ের ৬৭ জন, নীলফামারীর ৬১ জন, পঞ্চগড়ের ৪৮ জন, গাইবান্ধার ৪৪ জন ও লালমনিরহাটের ২৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বিবেচনায় আক্রান্তের হার ২৯ দশমিক ৭৫ শতাংশ।নতুন করে মারা যাওয়া ১৪ জনসহ বিভাগে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯শ৫০ জনে। এর মধ্যে দিনাজপুরে ২শ৭২ জন, রংপুরে ২শ০৮ জন, ঠাকুরগাঁওয়ে ১শ৮৫, নীলফামারীতে ৬৮, পঞ্চগড়ে ৬০, লালমনিরহাটে ৫৪, কুড়িগ্রামে ৫৪ ও গাইবান্ধায় ৪৭ জন রয়েছেন। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৬শ৫৭ জন।বিভাগের আট জেলায় এখন পর্যন্ত ৪৫ হাজার ৪শ২৭ জন করোনা শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে দিনাজপুুরে ১২ হাজার ৮শ১০ জন, রংপুরে ১০ হাজার ১শ১৫ জন, ঠাকুরগাঁওয়ে ৬ হাজার ২শ০৬ জন, গাইবান্ধায় ৩ হাজার ৮শ৯৫ জন, নীলফামারীর ৩ হাজার ৬শ৭৮ জন, কুড়িগ্রামের ৩ হাজার ৬শ৪১ জন, লালমনিরহাটের ২ হাজার ২শ৭৮ জন এবং পঞ্চগড়ের ২ হাজার ৮শ০৪ জন রয়েছেন।করোনাভাইরাস শনাক্ত শুরু থেকে এ পর্যন্ত রংপুর বিভাগে ২ লাখ ১৮ হাজার ৮শ১১ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। বিভাগের আট জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু হয়েছে দিনাজপুর, রংপুর ও ঠাকুরগাঁও জেলায়। এছাড়া সীমান্তঘেঁষা জেলাগুলোয় বেড়েছে শনাক্ত ও মৃত্যু। রংপুরের জেলা সিভিল সার্জন ডা. হিরম্ব কুমার রায় জানান, গেল জুলাই মাসে রংপুর মহানগর ও জেলার ৮ উপজেলাতে ৩ হাজার ৯শ৮০ জন করোনার রোগী শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৮৭ জনের। তবে আগের তুলনায় এখন তরুণদের মধ্যে সংক্রমণ বেড়েছে।এদিকে করোনার উপসর্গ নিয়ে প্রতি দিন বিভাগের সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন হাসপাতালে অন্তত ১০ থেকে ১৫ জনের মৃত্যু হচ্ছে বলে জানা গেছে। তবে উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের হিসাবে ধরছে না স্বাস্থ্য বিভাগ। বর্তমানে বিভাগের হাসপাতালগুলোতে সংকটাপন্ন রোগীদের জন্য মিলছে না আইসিইউ শয্যা। রোগী ভর্তির চাপ বাড়াতে অক্সিজেন চাহিদাও রংপুরের সিভিল সার্জন ডা. হিরম্ব কুমার রায় জানান, গেল জুলাই মাসে রংপুর মহানগর ও জেলার ৮ উপজেলাতে ৩ হাজার ৯শ৮০ জন করোনার রোগী শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৮৭ জনের। তবে আগের তুলনায় এখন তরুণদের মধ্যে সংক্রমণ বেড়েছে।এদিকে করোনার উপসর্গ নিয়ে প্রতি দিন বিভাগের সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন হাসপাতালে অন্তত ১০ থেকে ১৫ জনের মৃত্যু হচ্ছে বলে জানা গেছে। তবে উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের হিসাবে ধরছে না স্বাস্থ্য বিভাগ। বর্তমানে বিভাগের হাসপাতালগুলোতে সংকটাপন্ন রোগীদের জন্য মিলছে না আইসিইউ শয্যা। রোগী ভর্তির চাপ বাড়াতে অক্সিজেন চাহিদাও বেড়েছে।

Previous articleটেকনাফে ইয়াবা ও র্স্বণসহ দম্পত্তি আটক
Next articleজয়পুরহাটে পুলিশ সুপারকে ৫টি অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান করলো জাকস ফাউন্ডেশন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।