আরিফুর রহমান: গেল তিন দিনের তুলনায় মঙ্গলবার সকাল থেকে তেমন যাত্রীর চাপ নেই বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে। তবে লঞ্চ বন্ধ থাকায় যাত্রীর চাপ বেড়েছে ফেরিতে। এতে দুর্ভোগ বেড়েছে রাজধানীমুখী যাত্রীদের। যাত্রীরা লকডাউনে ফেরির সাথে লঞ্চ চলাচল চালু রাখার দাবি করছেন।

এদিকে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া উভয় ঘাটে পণ্যবাহী ট্রাকের চাপ রয়েছে। দুই ঘাটে তিন শতাধিক ট্রাক রয়েছে পারাপারের অপেক্ষায়।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, গার্মেন্টসসহ রপ্তানীমুখী কল কারখানা খোলার ঘোষণায় গেল তিন দিনে ফেরি ও লঞ্চে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার যাত্রীদের স্রোত নামে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ঘাটে। দুর্ভোগ মাথায় নিয়ে লোকজন পদ্মা নদী পার হন। নৌযানগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। পরে উভয় ঘাটে প্রশাসনের তৎপরতায় পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসে।

এদিকে পদ্মায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় স্রোতের তীব্রতা বাড়ায় ফেরি পারাপারে দীর্ঘ সময় লাগছে। বরিশাল, পটুয়াখালী, খুলনা, ফরিদপুর, মাদারীপুরসহ দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলো থেকে ঘাটে আসছেন মানুষ। সেখানেও স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। উভয় ঘাটে যানবাহনের চাপ রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজার ঘাটের কর্মকর্তা ভজন কুমার সাহা বলেন, বর্তমানে এই রুটে ১০টি ফেরি চলছে। রো রো ফেরি বন্ধ রাখা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা পেলে পরবর্তীতে সেগুলো চালানো হবে। এখন অগ্রাধিকারভিত্তিতে অ্যাম্বুলেন্স, লাশবাহী পরিবহন, পচনশীল দ্রব্যের ট্রাক পারাপার করা হচ্ছে।

Previous articleরায়পুরে অক্সিজেন ও খাবার নিয়ে ছুটছে ওরা….
Next articleপীরগাছায় জমি নিয়ে বিরোধে বৃদ্ধকে মারপিট
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।