ফজলুর রহমান: পঙ্গু মেহেরন বেগম(৪৫)। মেয়ে পঙ্গু ছিলনা বিয়ে দেয়ার কিছুদিন পর গায়ে ব্যাথা অনুভব হয় পরে সে দিনে দিনে বিনা চিকিৎসায় পঙ্গুত্ব বরণ করেন। অবশেষে জামাই নিঃসন্তান মেয়েকে আমার বাড়িতে রেখে যায়।

তিনবেলা খাবার যোগাতে পারিনা চিকিৎসা করামু কি দিয়া ? এভাবে কথাগুলো বলেছিলেন রংপুরের পীরগাছা উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়নের রহমতচর গ্রামের অসহায় বৃদ্ধ বাবা মেছের আলী। উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়নের রহমতচর গ্রামে বৃদ্ধ বাব-মায়ের বাড়ীতে কোমর থেকে অবশ পঙ্গু মেহেরন বেগমের সময় যাচ্ছে। ঠিকমতো কথাও বলতে পারে না মেহেরন বেগম। পরিবারের আয় বলতে বৃদ্ধ বাবার বয়স্ক ভাতা। তা দিয়ে খেয়ে না খেয়ে দিন যায়। পাঁচ শতক মাটিতে ভাঙ্গা চুড়া টিনসেট ঘর। ছোট চালার ঘর একটি। তারও টিনে ফুটো হওয়ায় বৃষ্টির পানি পড়ে ঘরের ভিতরে। অসুস্থ মেয়ের পঙ্গু ভাতা ও সরকারী পাঁকা ঘরের জন্য মেহেরন বেগমের বৃদ্ধ বাবা চেয়ারম্যান-মেম্বারদের কাছে ছোটাছুটি করলেও কিছু মেলেনি। মেহেরন বেগমের বাবা মেছের আলী(৭০) কান্নাজড়িত কন্ঠে জানান, ১০ বছর আগে একই গ্রামের আজগার আলীর সাথে বিবাহ হয়। গত ৬ বছর আগে পঙ্গু মেয়েকে পাষন্ড জামাই বাড়িতে রেখে চলে গেছে। গত ৬ বছরেও খোঁজ নিতে আসেনি। মেয়েটার করুণ পরিণতি। হুইল চেয়ার কিনতে না পারায় মেয়েটা সারাদিন ঘরেই বন্ধী হয়ে সময় কাঁটান। ভাতার টাকা দিয়া সংসার চলে না, চিকিৎসা করাতেও পারিনা। অনেক কষ্ঠে খ্যায়া না খ্যায়া বেঁচে আছং বাহে। বেটিটার জন্যে এখ্যান হুইল চেয়ার কিনে দিবার পাং নাই। তিনি আরও জানান, টাকা দিতে পারিনি বলে পঙ্গু মেয়ের ভাতাসহ সরকারি ঘর পাইনি। সরকার অসহায় মানুষকে পাঁকা ঘর দিচ্ছে। অসহায় মানুষের কপালে কি পাঁকা ঘর জুটবে বাহে। দরিদ্র পরিবারটির একটি হুইল চেয়ার কেনার সামর্থ্য না থাকায় আপাতত অসুস্থ পঙ্গু মেয়ের জন্য সরকার ও সমাজের বিত্তবানদের কাছে একটি হুইল চেয়ারের আকুতি জানিয়েছেন অসহায় বৃদ্ধ বাবা মেছের আলী । স্থানীয় ইয়াকুব আলী আক্কু জানান, এমন অসহায় পরিবার আমার জীবনে দেখি নাই। এদের এতো কষ্ট। কিভাবে যে তারা বেঁচে আছে এক আল্লাহ ছাড়া কেউ বলতে পারবে না। পুরাতন ঘর তাও ফুটো অনেক কষ্টে তারা সেখানেই খেয়ে না খেয়ে বেঁচে আছে। একটা হইল চেয়ারের অভাবেই মেহেরন বেগম সারাদিন ঘরের মধ্যে থাকেন। কেউ যদি একটি অসহায় বাবার আকুতি পূরনের জন্য একটা হুইল চেয়ারের ব্যবস্থা করে দিতেন খুবেই ভালই হতো। তিনি আরো বলেন, আমি নিজেই আইডি কার্ডের ফটোকপি ও ছবি চেয়ারম্যান-মেম্বারকে দিলেও তাদের ভাগ্যে জুটেনি সরকারি সাহায্য সহযোগিতা। তাম্বুলপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সাহেব আলী জানান, তাদের অব¯া’ খুবই শোচনীয়। সুযোগ না থাকায় দেয়া সম্ভব হয়না। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ শামসুল আরেফীন এর সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি জানান, আমাকে নাম ঠিকানা এসএমএস করে দেন। আমি বিষয়টি দেখতেছি।

Previous articleপীরগাছায় ৮ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক
Next articleপীরগাছায় মোবাইলে গান শোনানোর কথা বলে শিশুকে ধর্ষণ, থানায় মামলা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।