তাবারক হোসেন আজাদ: মোঃ ইউসুফ ইউসুফ আলী (৩৫)। প্রতিবন্ধী (দুই হাত নাই) হওয়ায় স্ত্রী, তিন সন্তান নিয়ে দুর্বিসহ জীবন যাপন করছেন। ৬ মাস অন্তর অন্তর প্রতিবন্ধি ভাতা পেলেও এই সন্তানদের লেখাপড়া, স্ত্রী ও বৃদ্ধ পিতা-মাতার ব্যায় বহন ও সংসার চালানো কঠিন হয়ে পড়েছে তার।

করোনার সময় একবার বা দুই সহযোগিতা নেয়া যায়, বারবার চাইতে লজ্জা লাগে। তাই ভিক্ষা ভিত্তি করতে হচ্ছে। সোমবার (১৬ আগষ্ট) সকালে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর শহরে ভিক্ষা করার সময় সাক্ষাতকার নিতে গেলে দুর্ভিসহ জীবন যাপনের কথা তুলে ধরেন যুগান্তরের এ প্রতিবেদকের কাছে।

এ অবস্থাতে শরীরের অক্ষমতা নিয়ে জীবন সংগ্রামে প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করে কুঁড়েঘরে কোনোমতে মাথাগোঁজার ঠাঁই হলেও স্ত্রী’র ভরন পোষন ও তিন সন্তানের ভবিষ্যৎ নিয়ে অনিশ্চিত পথে যাত্রা প্রতিবন্ধী ইউসুফ আলীর । সরকারিভাবে সামান্য সহযোগিতা মিললেও তা যথেষ্ট না। প্রতিবন্ধী সন্তানদের উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত করতে চান ইউসুফ। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা চান তিনি। প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, ইউসুফকে সকল ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

জেলার সদর উপজেলা পৌরসভার বাঞ্চানগর এলাকার হাজি বাড়ির বাসিন্দা। ২০১৪ সালে বিল্ডিং কনষ্ট্রাকশনের কাজ করতে গিয়ে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে জখম হয়ে দুই হাত কেটে ফেলতে হয়েছে।-নিজে শারীরিক প্রতিবন্ধী। অনেক চিকিৎসা করেও আর স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেননি। তার ঘরে স্ত্রী, তিন সন্তানসহ বৃদ্ধ পিতা মাতা আছেন। ইউসুফের পৈতৃক সম্পত্তি না থাকায় বর্তমানে ভিক্ষা করে পরিবারের খরচসহ তিন সন্তানকে লেখাপড়া করাচ্ছেন। প্রতি শনি ও শুক্রবার রায়পুর ও লক্ষ্মীপুর শহরে ভিক্ষা করে ৪/৫’শ টাকা করে যা পান তা দিয়ে পিতা-মাতাসহ ৬ জনের কোনভাবে সংসার চলে যাচ্ছে।

ইউসুফ জানান, স্ত্রীর’র ভরন পোষন ও সন্তানদের শিক্ষিত করতে ও সংসারের খরচ যোগাতে অনেটা বাধ্য হয়েই মানুষের কাছে হাত পেতেছেন তিনি। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি তাকে কিছু একটা করে দিতেন তাহলে তিনি ভিক্ষা ছেড়ে দিবেন। সমাজের বোঝা হয়ে থাকবেন না। সন্তানদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে স্বাবলম্বী করতে পারবেন। তাকে প্রতিবন্ধী কোটায় সরকারি চাকরি দিলে পরিবার ও সমাজের সেবা করতে পারবেন।

এদিকে, তার সন্তানরাও সমাজের বোঝা না হয়ে লেখাপড়া শিখে স্বাবলম্বী হতে চায়, স্বপ্ন দেখে চিকিৎসক হয়ে সকলের সেবা করতে। কিন্তু……..

সরকারি সহায়তার বিষয়ে স্থানীয় কাউন্সিলর মোঃ খোকনের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি যুগান্তরকে জানান, ইউসুপ কে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড দেওয়া হয়েছে। সরকারিভাবে তার জন্য নির্দিষ্ট কোনো সহায়তা আসলে তাকে দেওয়া হবে।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাসুম যুগান্তরকে জানান, দরিদ্র প্রতিবন্ধী ইউসুফসহ তার সন্তানদের সুশিক্ষিত করতে সরকারি সহায়তা প্রদান করা হবে। এ ছাড়াও সরেজমিনে গিয়ে তাদের সাথে কথা বলে সকল সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি।

Previous articleকিশোরী প্রেমিকার সাথে প্রতারনা, মারধর, বিয়ের আসর থেকে বর আটক
Next articleকোম্পানীগঞ্জে চুলার আগুনে ৪ ঘর পুড়ে ছাই
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।