মিজানুর রহমান বাদল: মাননীয় প্রধানমন্ত্রী লাখ লাখ রোহিঙ্গাদের ঘর তৈরি করে আবাসের ব্যবস্থা করেছেন। এ ছাড়াও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে অসহায় দরিদ্রদের ঘর তৈরি করে দিয়েছেন। কিন্ত সেই আসমানীর যুগ তো এখন থাকার কথা নয়।

আমি কৈকি রানীর খবর পেয়ে নিজেকে স্থির রাখতে পারিনি। আমি আমার পুলিশের পক্ষ থেকে একটি ঘর তৈরি করে দিবো। মানিকগঞ্জের মানবিক পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান শনিবার দুপুরে মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার দক্ষিন জামশা গ্রামের কৈকি রানী মন্ডলের(৭০) বাড়িতে তার সাথে স্বাক্ষাত করেন এ সময় তিনি সাংবাদিকদের জানান। তিনি আরো বলেন, আপনার হিন্দু সম্প্রাদায়ের লোকজনদের আপন ভাই বোনের মত দেখেন তাদের খোজ খবর নেন আমার খুব ভাল লেগেছে। আপনারা আমরা মহৎ ও ভালো কাজ করলে পরকালের জন্য কিছু পাবেন। এ সময় তিনি স্বামীহারা কৈকি রানী মন্ডলের, জরাজীর্ণ কুটিরে গিয়ে তার খোজ খবর নেন। এ সময তার সঙ্গে ছিলেন সহকারি পুলিশ সুপার (সার্কেল) মোহা. রেজাউল হক, সিংগাইর থানার ওসি শফিকুল ইসলাম মোল্লা। পুলিশের এমন মানবতা দেখে কৈকি রানী কান্না ভেঙ্গে পড়েন তিনি পুলিশ সুপার ওসি দীর্ঘায়ু কামনা করেন। উপজেলার দক্ষিণ জামসা গ্রামের বিধবা, সন্তান ছাড়া কৈকি রানী মন্ডল ছোট সময পিতা মাতা হারা এক যোদ্ধা তিনি র্দীঘ দিন যাবৎ জরাজীর্ন ভাঙ্গা একটি টিনের ঘরে বসবাস করে আসছে। সন্তান না থাকায় আয় রোজগার করার কেউ নেই। কোন রকম চেয়ে চিন্তে খেয়ে পরে জীবন ধারন করছে। ভূমি জটিলতার কারনে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরও পাননি। তার বয়স ৭০ হলেও ভূলবশত (এনআইডি)কার্ডে ৫৯ বছর থাকায় বয়স্ক ভাতা পান না। তবে বিধাব ভাতা পান ছয় মাস পরপর। মনে অনেক কস্ট নিয়ে পৈতৃক ভিটায় গ্রামীণ ব্যাংক থেকে পাওয়া ঘরটির অবস্থা একেবারে নাজুক সামান্য বৃষ্টি এলেই ঘর দিয়ে পরে পানি। এভাবে চলছে তার জীবন। তার ভাগ্যে আজো জুটেনি পল্লীবিদ্যুতের আলো। স্থানীয় মেম্বারের দেয়া একটি সৌর বিদ্যুৎ দেয়া হলেও সেটি নস্ট হয়ে গেছে। এ নিয়ে বিভিন্ন গনমাধ্যমে ফলোও করে প্রকাশ হলে জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান পিপিএম-বার এর নজরে আসে। সিংগাইর থানার ওসি শফিকুল ইসলাম মোল্লা তৎক্ষনাৎ ১৫ কেজি চাল, একটি শাড়ী ও নগদ ২ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেন। পুলিশ সুপার গোলাম আজাদ খান শনিবার(২১ আগস্ট) সকাল দুপুরে ছুটে আসেন কৈকি রানী মন্ডলের বাড়িতে। তার বাড়ি পরিদর্শন শেষে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তি বর্গের উপস্থিতিতে মানবিক দিক চিন্তা করে বাংলাদেশ পুলিশ মানিকগঞ্জ জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ১টি ঘর ও প্রতিমাসে খরচ বাবদ ২ হাজার টাকা করে দেয়ার ঘোষনা দেন। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন-অসহায় এই মানুষটি পাশে দাড়াতে পেরে মনে হয় ভালো কাজ করতে পারছি। এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন-সহকারি পুলিশ সুপার(সিংগাইর সার্কেল)মোহা.রেজাউল হক, সিংগাইর থানার অফিসার ইনচার্জ সফিকুল ইসলাম মোল্যা,জামশা(ইউপি) চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিঠু ও মানবেন্দ্র চক্রবর্তী । উপস্থিত ছিলেন-ইন্সপেক্টর(তদন্ত) শেখ মো.আবু হানিফ,পুলিশ উপ- পরিদর্শক মো.মাহফুজুর রহমান,জহিরুল হক,বখতিয়ার হোসেনসহ থানার অফিসারগন ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

Previous articleছাত্রলীগ কর্মীর সাইবার বুলিংয়ের শিকার ইবির ৭৩ ছাত্রী
Next articleরংপুর বিভাগে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত কমে এসেছে, মৃত্যু ৭ শনাক্ত ১১৪
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।