আব্দুল লতিফ তালুকদার: করোনা মহামারীর কারণে দীর্ঘ ১৮ মাস পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলায় টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলোতে বইছে খুশির বাতাস। এযেন ঈদের চাঁদ দেখার মতই। দীর্ঘ ছুটির পর প্রথমদিনে বিদ্যালয়ে ক্লাস করতে পেরে খুশি শিক্ষার্থীরা।

অন্যদিকে প্রাথমিক পর্যায়ের কিছু শিক্ষার্থী ক্লাস না করতে পেরে কান্নায় বাড়ি ফিরে যান। সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১২ সেপ্টেম্বর রবিবার থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চালু হলো ক্লাস কার্যক্রম। উপজেলায় প্রাথমিক, মাধ্যমিক, মাদ্রাসা ও উচ্চ মাধ্যমিকসহ ১৬৭ টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফিরছেন শিক্ষার্থীরা। এতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বইছে উৎসবের আমেজ। আপাতত শুরুতে শুধু পঞ্চম, দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির ক্লাস প্রতিদিন হবে। প্রথম থেকে চতুর্থ শ্রেণি এবং ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণিতে সপ্তাহে একদিন করে ক্লাস হবে। দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ শুরু হলে গত বছর ১৭ মার্চ থেকে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করা হয়। করোনার সংক্রমণ বাড়ায় দফায় দফায় ছুটি বাড়ানো হয়। গত ৫ সেপ্টেম্বর সচিবালয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা.দীপু মনির সভায়, সবকিছু বিবেচনায় স্কুল-কলেজে ১২ সেপ্টেম্বর থেকে ক্লাস শুরু হবে বলে ঘোষণা দেন। সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থী এবং পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা প্রতিদিনই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাবে। আর অন্য শ্রেণিগুলোর শিক্ষার্থীদের সপ্তাহে একদিন ক্লাসে যেতে হবে। এসএসসি পরিক্ষার্থী উম্মে হাবিবা জুঁই বলেন, কোভিড১৯ এর কারনে আমাদের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ দেড়টি বছর হারিয়েছি। আজ ক্লাস করতে পরে আনন্দ লাগছে।

প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনে এসে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. শাহিনুর ইসলাম বলেন, গোবিন্দাসী উচ্চ বিদ্যালয়সহ অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি ও নির্দেশনা মেনেই ক্লাস কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে। তিনি আরো বলেন, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) যে নির্দেশনা দিয়েছেন, অর্থাৎ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে মানসম্পন্ন কার্যপ্রণালি বিধি (এসওপি) ঠিক করে দিয়েছে। নির্দেশনায় অভিভাবকদের জন্য আটটি বিষয় অনুসরণ করতে বলা হয়েছে। এগুলো হলো, সন্তানকে মাস্ক পরিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠানো, শিক্ষার্থীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠাতে উৎসাহ দেওয়া, নিজ স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন করা, প্রতিষ্ঠানে সঠিক সময়ে পাঠানো ও বাসায় আসা নিশ্চিত করা, সন্তান অথবা পরিবারের কোনো সদস্য করোনায় আক্রান্ত হলে অবিলম্বে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানকে জানানো, প্রতিষ্ঠানের নির্দেশনা অনুসরণ করা এবং স্কুলে যাওয়ার সময় পানি ছাড়া অন্য কোনো খাবার সন্তানের কাছে না দেওয়া এবং বাইরের খাবার না খাওয়ার বিষয়ে বলেছেন। শেষে পরিদর্শন বইয়ে স্বাক্ষর করেন জেলা সহকারি বিদ্যালয় পরিদর্শক ইমরান হাসান মান্নান। এসময় উপস্থিত ছিলেন, বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আলহাজ শফিকুল ইসলাম বাবু। সভাপতি শফিকুল ইসলাম বাবুর সৌজন্যে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য তিন হাজার মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করা হয়।

গোবিন্দাসী উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক খন্দকার মোহাম্মদ আলী বলেন, দীর্ঘদিন পর বিদ্যালয় খোলায় আমরা শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী সকলেই আনন্দিত। আমরা সরকারের সকল নির্দেশনা, বিধি মেনে শিক্ষার্থীদের প্রথম দিনের ক্লাস কার্যক্রম শুরু করেছি। এতে বিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের মাঝে বেশ আনন্দঘন পরিবেশ ছিল। শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিও সন্তোষজনক।

Previous articleপাকশীর বীর মুক্তিযোদ্ধা সেলিম হত্যাকারী গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে ঈশ্বরদীতে মানববন্ধন
Next articleনাচোলে গোপন বৈঠক করার সময় জামায়াতের শীর্ষ ৩ নেতা-কর্মী আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।