আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়ার হেনা(৩৫)নামে গার্মেন্টস কর্মীকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী মুন্নাফের বিরুদ্ধে। নিহতের ভাই শাহজাহান অভিযোগ করে বলেন তাকে হত্যা করে মুখের মধ্যে ইদুর মারা বিষ ঢুকিয়ে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী মুন্নাফ।

নিহত হেনা পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার খানমাহমুদ গ্রামের আব্বাসের ছেলে মুন্নাফের স্ত্রী ও একই উপজেলার হাড়িয়াকাহন গ্রামের মৃত রইচ উদ্দিনের মেয়ে। ঘটনাটি ঘটেছে নারায়নগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের ১০ নং ওয়ার্ডের পাঠানটুলি ভাড়া বাড়িতে। সেখানে স্বমী- স্ত্রী মৃত সালাউদ্দিনের বাড়িতে ভাড়া থাকতো। এ ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে। নিহতের ভাই শাহজাহান মন্ডল জানান, প্রায় ২০-২২ বছর আগে সাঁথিয়া উপজেলার খানমাহমুদপুর গ্রামের আব্বাসের ছেলে মুন্নাফের সাথে তার বোন হেনার বিয়ে হয় । হেনা নারায়নগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে একটি গার্মেন্টস এ চাকরী করতো। হেনা নি:সন্তান ছিলেন। বিয়ের পর থেকে ওদের মধ্যে দ্বন্দ্ব লেগেই থাকতো।

স্বামী ছিল কর্মহীন ও নেশাগ্রস্ত। বোনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে নেশা করতো ও জুয়া খেলতো। নিষেধ করলে নির্যাতন করতো হেনার উপর। ঘটনার দিন ১০ সেপ্টেম্বর মুন্নাফ স্ত্রী হেনাকে বেধড়ক মারপীট করে। মারপীটের এক পর্যায়ে সে নিস্তেজ হয়ে পড়লে হেনার মুখে গ্যাস ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দেয় স্বামী মুন্নাফ। প্রথমে সিদ্ধিরগঞ্জ ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসক হেনাকে ঢাকা মেডিক্যালে রেফার্ড করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১২ সেপ্টেম্বর তার মৃত্যু হয়। পরে আইনি প্রক্রিয়া শেষে লাশ ঢাকা থেকে সাঁথিয়া বাবার বাড়ি নিয়ে এসে মঙ্গলবার রাতে দাফন করা হয়। লাশ গোসলের সময় তার কানে ও নিতম্বে মারপিটের দাগ দেখতে পায়। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংসার জন্য বুধবার স্বামী মুন্নাফসহ গৌরিগ্রাম ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন খাঁর বাড়িতে ইউপি সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা খোরশেদ আলমের সভাপতিত্বে শালিশ বৈঠক বসে। সেখানে গ্রাম প্রধান সাবেক মেম্বর মালেক মন্ডল, আলহাজ্ব আবু হানিফ,নাসির উদ্দিন, আলহাজ্ব মন্ডল, আব্দুল মান্নান ও অপরপক্ষের প্রধান সাবেক মেম্বর ওয়াজেদ আলী, শুকুর আলীসহ প্রায় শতাধিক লোকজনের সামনে স্বামী মুন্নাফ নিজে স্ত্রী হত্যার দায় স্বীকার করে ৪ লাখ টাকা দিয়ে বিষয়টি সুরাহা করতে অনুরোধ করেন। বিষয়টি লিপিবদ্ধ করতে গেলে হট্টগোল শুরু হলে খবর পেয়ে সাঁথিয়া থানা পুলিশ গিয়ে মুন্নাফের লোকজনকে নিয়ে আসে। শালিস বোর্ডের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খোরশেদ আলম ও হাড়িয়াকাহন গ্রাম প্রধান সাবেক ইউপি সদস্য মালেক মন্ডল বলেন, মুন্নাফ নিজেই স্ত্রী হত্যার দায় স্বীকার করেছে। এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এসআই তৌহিদ জানান, এ ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে

Previous article‘গণশুনানির মাধ্যমে জনপ্রতিনিধিদের কার্যক্রম ও সেবামূলক কাজের জবাবদিহিতা নিশ্চিত হচ্ছে’
Next articleসোনারগাঁও উপনির্বাচনে যাচাই-বাছাই সম্পন্ন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।