বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বরিশালের মুলাদীতে গভীর রাতে জয়ন্তী নদীর ভাঙনে ১২টি দোকান বিলীন হয়ে গেছে। গত মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে ভাঙন শুরু হয়ে গভীর রাত পর্যন্ত চলতে থাকে।

দ্রুত দোকানগুলো ভেঙে যাওয়ায় মালিকরা মালামাল সড়িয়ে নেওয়ার সুযোগ পাননি। একই সাথে সড়ক ভেঙে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে মৃধারহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও স্থানীয়রা। গতকাল বুধবার সকাল ৯টায় চরকালেখান ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম সরদার ভাঙনস্থল পরিদর্শন করেছেন। নদীর পানি কমতে শুরু করায় ভাঙন বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

গত বছর মৃধারহাটের বেশ কয়েকটি দোকান নদীতে ভেঙে নিয়েছিলো। মঙ্গলবার রাতে মোশাররফ সরদারের ২টি, দেলোয়ার হোসেন খানের ২টি, কালাম জমাদারের ১টি, জয়নাল আবেদীনের ১টি, শাহীন মাতুব্বরের ১টি, সোহান মল্লিকের ১টিসহ ১২টি দোকান নদীতে ভেঙে যায়। এতে হাটের ব্যবসায়ীদের মধ্যে ভাঙন আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। প্রতিবছর এভাবে ভাঙতে থাকলে হাটের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা। মৃধারহাটের ব্যবসায়ী রত্তন সরদার জানান, প্রতিবছর বর্ষার শুরু ও শেষের দিকে জয়ন্তীতে নদীর ভাঙন তীব্র হয়। শুধু শীতকাল ছাড়া সারাবছরই কমবেশী নদী ভাঙে। ভাঙন রোধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সংসদ সদস্য ও চেয়ারম্যানরা শুধু আশ্বাস দেন। কিন্তু কেহই ভাঙন রোধে ন্যূনতম ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি। মঙ্গলবার রাতে হাটের ১২টি দোকান ভেঙে গেছে। রাতের আধারে দোকান ভেঙে যাওয়ায় ব্যবসায়ীরা মালামাল সরাতে পারেননি। এতে তাদের কমপক্ষে ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। মৃধারহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন খান জানান, মঙ্গলবার রাতে হঠাৎ করে জয়ন্তী নদীর ভাঙন শুরু হয়। মুহুর্তের মধ্যে দোকান ও সড়কটি ভেঙে যায়। এতে হাট ও কয়েকটি এলাকা থেকে তাদের বিদ্যালয়টি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। দ্রুত সংযোগ সড়ক নির্মাণ না করা হলে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা দুর্ভোগে পরবে। মৃধারহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি দাতা ও সভাপতি আলাউদ্দীন জমাদার বলেন, ১৯৯৮ সালে বিদ্যালয়টি নদীতে ভেঙে গিয়েছিলো। পরবর্তীতে অস্থায়ী ভাবে একটি ভবন করা হয়েছিলো। সেটিও জয়ন্তী নদীতে ভেঙে গেছে। এখন যেখানে বিদ্যালয়ের ভবন করা হয়েছে নদী ভেঙে কাছাকাছি এসে পড়েছে। ভাঙন রোধে ব্যবস্থা না নিলে বিদ্যালয়টি ফের নদীতে বিলীন হয়ে যাবে। চরকালেখান ইউপি চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম সরদার বলেন, সংবাদ পেয়ে ভাঙন স্থল পরিদর্শন করেছেন। স্থানীয়রা লোকজন জমি দিলে দ্রুত সড়ক নির্মাণের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া মৃধারহাটে ভাঙন রোধে বরিশাল-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব গোলাম কিবরিয়া টিপু ডিও লেটার দিয়েছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর মোহাম্মদ হোসাইনী বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীদের সহযোগিতার চেষ্টা করা হবে।

বরিশাল পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. জাবেদ ইকবাল জানান, মৃধারহাটের দোকান ও সড়ক ভেঙে যাওয়ার বিষয়টি জেনেছেন। এবিষয়ে ঢাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান কার্যালয়ে প্রতিবেদন পাঠানো হবে। প্রধান কার্যালয় থেকে আদেশ ও বরাদ্দ পেলে ভাঙন রোধে জিও ব্যাগ ফেলাসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleস্বাধীনতা বিরোধী শক্তি এখনও দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত: বাহাউদ্দিন নাছিম
Next articleজাতীয় পার্টির মহাসচিব গিয়াস উদ্দিন বাবলুর রুহের মাগফিরাতে দোয়া মাহফিল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।