তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে শিক্ষক কর্তৃক মাদরাসার দশম শ্রেণীর ৬ ছাত্রের চুল কেটে দেয়ার ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছেন পুলিশ। শুক্রবার (৮ অক্টোবর) দুপুরে রায়পুর থানার এসআই কামাল ওই মাদরাসায় গিয়ে সুপার, চুল কাটা ছাত্র, তাদের অভিভাবক ও অভিযুক্ত শিক্ষকের সাথে কথা বলে ও ঘটনার সত্যতা পান।

গত বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) উপজেলার বামনী ইউপির কাজের দিঘিরপাড় আলিম মাদরাসার সিনিয়র শিক্ষক মঞ্জুরুল কবির এঘটনা ঘটান। এ ঘটনার একটি ভিডিও শুক্রবার সমাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। রাত ৯টার সময় ওই শিক্ষককে তার কাজের দিঘিরপাড় বাড়ি থেকে আটক করেছেন ওসি আবদুল জলিল।
এঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানাযায়।

ওই মাদরাসার দাখিল শ্রেণীর শিক্ষার্থী নাজমুল আলম ও ফজলে রাব্বীসহ কয়েকজন মোবাইলে জানায়, গত ১৮ সেপ্টেম্বর তাদের ইংরেজি ক্লাস চলছিল। এ সময় হঠাৎ করে সিনিয়র শিক্ষক মঞ্জুরুল কবির স্যার কাঁচি (কেঁচি) দিয়ে আমাদের ৬ ছাত্রের মাথার চুল কেটে দেন। এ ঘটনার পর ছাত্ররা ক্লাস না করে শ্রেণী কক্স থেকে বেরিয়ে যায়। পরবর্তীতে মাদরাসাটির অন্যান্য শিক্ষকদের মধ্যস্থতায় ছাত্ররা তাদের ক্লাস শেষ করা হয়।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে এক ছাত্র জানায়, ইংরেজি ক্লশের প্রথম ঘণ্টা পড়ার পর হঠাৎ করে মঞ্জুরুল স্যার আমাদের (ক) শাখার ক্লাশে ঢুকে ৬ ছাত্রের চুল কেটে দেয়। কিন্তু (খ) শাখার কোন ছাত্রের চুল উনি কাটেননি।

মাদরাসার শিক্ষক মঞ্জুরুল কবির ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সকল ছাত্রকে পরীক্ষার আগের দিন চুল কেটে মাদরাসায় আসতে বলেছি। দাখিলের কয়েকজন ছাত্র কমিটির চার শিক্ষকের কথার অবাধ্য হওয়ার কারণে কয়েকজনের চুল কেটে দিয়েছি। তাদেরকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নভাবে থাকা ও নীতি-নৈতিকতা শিক্ষা দেওয়ার জন্যই কমিটির আমিসহ আরো তিন শিক্ষকের উপস্থিতিতে চুল কেটে দিয়েছি। একটা পক্ষ মাদরাসার বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচারনা করছেন।

ঘটনার তদন্তকারি কর্মকর্তা থানার উপ-পরিদর্শক কামাল হোসেন বলেন, ওসি স্যারের নির্দেশে আজ শুক্রবার (৮ অক্টোবর) দুপুরে ওই মাদরাসায় গিয়ে সুপার, চুল কাটা কয়েকজন ছাত্র, তাদের অভিভাবক ও অভিযুক্ত শিক্ষকের সাথে কথা বলি এবং ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। গত বুধবার (১৮ সেপ্টেম্ব) মাদরাসার সিনিয়র শিক্ষক মঞ্জুরুল কবির এঘটনা ঘটিয়েছেন। তবে এঘটনায় সুপার বলেছেন শনিবার প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।।

মাদরাসা সুপার মাওলানা বালাকাত উল্লাহ বলেন, ঘটনাটি কোন ছাত্র বা তাদের অভিভাবক অভিযোগ করেননি। আজ শুক্রবার থানার এস আই কামাল হোসেন ঘটনা তদন্ত করেছেন। তবে কোন ছাত্র ও তাদের অভিভাবক কোন অভিযোগ করেননি। শনিবার মাদরাসায় গেলে ব্যবস্থা নেবো।

রায়পুরের বামনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তাফাজ্জল হোসেন মন্সী বলেন, মাদরাসার শিক্ষক মঞ্জুরুল কবির ইউনিয়ন জামায়াত ইসলামের আমির হওয়ায় প্রায় সময় ছাত্র-ছাত্রীদের উপর প্রভাব বিস্তার করে। তার ভয়ে ছাত্রতো দূরের কথা অন্য শিক্ষকরাও নিরুপায় বলে আমি জেনেছি।

রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরীন চৌধুরী বলেন, এক সাংবাদিকের মাধ্যমে ঘটনাটি জানতে পেরেছি। তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেলে শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, গত কয়েকদিন আগে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪জন ছাত্রের মাথার চুল কাঁচি দিয়ে কেটে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে এক নারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

Previous articleকোনো যাদুর ছোঁয়ায় মৃত্যু কম হয়নি, অনেক শ্রম দিতে হয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
Next articleদেশে করোনায় আগের দিনের চাইতে মৃত্যু প্রায় ৩ গুণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।