প্রদীপ অধিকারী: দাদন ব্যবসায়ীর খপ্পড়ে পরে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার সুলতানপুর এলাকার এক কৃষক নিজের দোকান ও বাড়ি ভাড়া দিয়ে নিজেই এখন ঘরছাড়া। ধারে ১ লাখ ৩৭ হাজার টাকার পরীবর্তে ৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা পরিশোধ করেও শোধ হয়নি ধারের টাকা।

উল্টা ধারের ও জমি বিক্রি দেখিয়ে ফাঁকা স্ট্যাম্পের দুুই জায়গায় স্বাক্ষর করে ঘর বাড়ি জবর দখলে নেওয়া হয়েছে। এঘটনার প্রতিকার চেয়ে রবিবার দুপুরে পাঁচবিবি প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে ভুক্তভোগী পরিবার। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে শাহজাহান সিরাজ (মিন্টু) বলেন, ২০১১ সালে আমার ২ শতকের দোকান ও ঘরসহ ১ বছরের জন্য বাড়ি ভাড়া নেয় পৌর এলাকার দাদন ব্যবসায়ী শফিকুল। সে সময়ে আমি অসুস্থ হওয়ায় চিকিৎসাার জন্য তার থেকে ১ লক্ষ ৩৭ হাজার টাকা ধার করি। সে এই টাকার প্রমাণ স¦রূপ আমার থেকে ৩০০ টাকার সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়। কিছুদিন পরে ঐ টাকা পরিশোধের চাপ দিলে সে আবারও আমার জমি বিক্রি দেখিয়ে স্ট্যাম্পে জোরপূর্বক স্বাক্ষর নিয়ে আমার দেয়া ভাড়া বাড়ি সে জবর দখলে নেয়। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, তার থেকে যে ১ লক্ষ ৩৭ হাজার টাকা ধার নিয়েছিলাম তার বিনিময়ে ধীরে ধীরে সুদসহ ৩ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা পরিশোধ করেছি। বর্তমানে সে আমার স্বাক্ষরিত ফাঁকা স্ট্যাম্পে মোটা অংকের টাকা বসিয়ে আমাকে ফাঁসিয়েছে। এখন বলে, তুই আমার থেকে ৫ লাখ টাকা ধার নিয়েছিস। আমি টাকা দেওয়া বন্ধ করেছি। এখন আমার বাড়ি যেতে চাইলে সে আমার হা পা ভেঙ্গে দিবে বলে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। দাদন ব্যবসায়ী শফিকুলের খপ্পড়ে পরে এলাকার একাধিক ব্যাক্তি নিঃস্ব হয়েছে। এ বিষয়ে দাদন ব্যবসায়ী শফিকুলের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, আমার নামে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে তা মিথ্যা।

Previous articleসড়ক দুর্ঘটনায় সাঁথিয়ার কলেজ শিক্ষক নিহত
Next articleনবীগঞ্জে তীব্র যানজটে অতিষ্ট সাধারণ মানুষ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।