অতুল পাল: আসন্ন ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপে বাউফলের নওমালা ও সূর্যমনি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মনোনিত প্রার্থীরাই কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের চূড়ান্ত মনোনয়ন পাওয়ায় মনোনয়ন বঞ্চিতরা নৌকার প্রার্থীদের বিরুদ্ধে গুজব ও মিথ্যাচার শুরু করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বাউফলের নওমালা ও সূর্যমনি ইউনিয়নে আগামি ১১ নভেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তৃণমূল আওয়ামী লীগ এবং কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড নওমালা ইউনিয়নে এ্যাড. কামাল হোসেন বিশ্বাস এবং সূর্যমনি ইউনিয়নে আনোয়ার হোসেন বাচ্চুকে মনোনয়ন দেন। ওই দুই জনই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। এরা দুজনেই রাজনীতিতে সক্রিয় এবং মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীসহ সাধারন মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য। ইতিমধ্যেই মাঠে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হয়ে গেছে। কিন্তু আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন বঞ্চিতরা নৌকার প্রার্থীদের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র, মিথ্যাচার ও গুজব ছড়িয়ে জনমনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা মিথ্যাচার ও গুজবে কান দিচ্ছেন না। এবিষয়ে নওমালা ইউপি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী এ্যাড.মো. কামাল হোসেন বিশ্বাস জানান, নওমালা ইউনিয়নে তৃণমূল নেতারা আমাকে এককভাবে সমর্থন করেছেন। পরে জননত্রেী শেখ হাসিনর নেতৃত্বে মনোনয়ন বোর্ড আমাকে দ্বিতীয় বারের মত নৌকা দিয়েছেন। একারণে নামধারী কয়েকজন নেতা, যারা কখনো দলের সাথে সম্পৃক্ত ছিল না তারা আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও গুজব ছড়াচ্ছে। ২০১১ সালে আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে জনগণের সেবা করে আসছি। আমার বাবা নওমালা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং চেয়ারম্যান ছিলেন। ২০১৬ সালের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও আমি নৌকা পেয়েছিলাম। কিন্তু কালো টাকার প্রভাব এবং ষড়যন্ত্র করে আমাকে জোর করে পরাজিত করা হয়েছে। আমরা আওয়ামী লীগ পরিবার। মনোনয়ন বাণিজ্য করার কোন সুযোগ আমাদের দলে নেই। আমাদের নেতা আ.স.ম. ফিরোজ বাউফল থেকে সপ্তম বার নির্বাচিত হয়ে সংসদের বাউফলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এছাড়া চূড়ান্ত মনোনয়নতো দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনাই দেন। তিনিতো বাণিজ্য করেননা। যারা দলীয় নেতা দাবি করেন আবার নেত্রীর বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করেন তারা কখনো আওয়ামী লীগ হতে পারেননা। নওমালা ইউনিয়নের বাসিন্দা সিনিয়র এ্যাড. আবুল কাশেম মিয়া, প্রবীন আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. রত্তন আলী এবং এ.কে.এম. নাসির উদ্দিন সবুজ বলেন, কামাল বিশ্বাস আওয়ামী পরিবারের সন্তান। তিনি বর্তমানে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক। তিনি ২০১১ সালের নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে এলাকার অনেক উন্নয়ন করেছেন। ২০১৬ সালের নির্বাচনে নৌকা পেয়েও ষড়যন্ত্রের কাছে হেরে যান। এবারও নৌকা পেয়েছেন, এবারে আর ষড়যন্ত্রে কাজ হবেনা। জয়ের ব্যাপারে আমারা সুনিশ্চিত। সূর্যমনি ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বাচ্চু এবারেও তৃণমূল এবং কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড থেকে নৌকা প্রতিক পেয়েছেন। তিনি জানান, তার ইউনিয়নেও কিছু তথাকথিত গুটিকয়েক আওয়ামী লীগ নামধারী আমার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছেন। তারা নৌকার বিপক্ষে কথা বলছেন। এরা যদি আওয়ামী লীগই হয় তবে কিভাবে নৌকার বিপক্ষে কথা বলছেন? নৌকার বিপক্ষে কোন ষড়যন্ত্রই ফলপ্রসু হবে না। ইতোমধ্যেই জনগণ তাদের সম্পর্কে জেনে গেছেন। ২০১৬ সালে নৌকা নিয়ে জিতেছি আল্লাহর রহমতে এবারেও বিজয়ী হয়ে মানুষের খেদমত করবো। উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোসারেফ হোসেন খান বলেন, বাউফলে কোন নির্বাচনেই কখনো মনোনয়ন বাণিজ্য হয়নি। বরং দল নির্বাচনের সময় অর্থ দিয়ে প্রার্থীদের পাশে দাঁড়ায়। যারা বাণিজ্যের

কথা বলছেন তারা মিথ্যাচার করছেন এবং এরাই দলের শত্রু। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব হাওলাদার বলেন, তৃণমূলের মতামত নিয়ে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়েছে। তৃণমূলের বাছাই করা প্রার্থীদের চূড়ান্তভাবে মনোনয়ন দেয়ায় তিনি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আলমগীর বলেন, বাউফলে নৌকার প্রার্থীদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে কোন লাভ হবে না। প্রার্থীরা প্রত্যেকেই নৌকার পরীক্ষিত কর্মী।

Previous articleরোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহর ১৪ নিরাপত্তাকর্মী লাপাত্তা
Next articleসোনারগাঁওয়ে আইন অম্যান্য করে ইলিশ ধরার অপরাধে ৫ জেলেকে জরিমানা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।