বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ‘হিডের (পিঠ) চামড়া খুলি আমি আঁকি লবণ-মরিচ লাগামু, আমনের (আপনার) ছেলেরে আমি আঁকি লবণ-মরিচ দিমু’-এভাবেই উত্তেজিত হয়ে বৃদ্ধ রিকশাচালক আবদুর রহিমকে (৭২) হুমকি দেওয়া হয়েছে। লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল করিম নিশান পুলিশ ও সাংবাদিকদের সামনেই তাকে এ হুমকি দেন।

আজ মঙ্গলবার (২ নভেম্বর) দুপুরে ছাত্রলীগ নেতার এ সংক্রান্ত ৪ মিনিট ১৫ সেকেন্ডের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

জানা গেছে, লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের দক্ষিণ মজুপুর এলাকার বাসিন্দা ইলিয়াসসহ কয়েকজন যুবক রিকশাচালক আবদুর রহিমের ছেলে আবুল কাশেমের কাছ থেকে প্রায় ৭-৮ লাখ টাকা পাওনা বলে দাবি করেন। ছেলে টাকা না দেওয়ায় শুক্রবার (২৯ অক্টোবর) ইলিয়াসসহ কয়েকজন এসে আবদুর রহিমের ঘরের চালা খুলে নিয়ে যায়। পরে এ ঘটনায় গণমাধ্যমে সংবাদ পরিবেশন হলে সোমবার (১ নভেম্বর) জেলা পুলিশের উদ্যোগে চালা লাগিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে পুলিশ ও সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন। তাদের সামনেই রিকশাচালককে হুমকি দিয়ে উত্তপ্ত বাক্য ব্যবহার করেন ছাত্রলীগ নেতা নিশান। এর আগে সালিসি বৈঠকের সিদ্ধান্ত না মানায় এ হুমকি দেওয়া হয়।
হুমকির ঘটনার সময় লক্ষ্মীপুর শহর পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক (তদন্ত) এমদাদুল হক, উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. কাওছারুজ্জামান, সদর থানার এসআই ওয়াদুদ উপস্থিত ছিলেন।

ভুক্তভোগী আবদুর রহিম লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের দক্ষিণ মজুপুর এলাকার ইসহাক বেপারী বাড়ির বাসিন্দা।

এসময় উত্তেজিত হয়ে নিশান আরও বলেন, তাদেরকে টাইম দেয়া হয়েছে। তারা সেটা না মানায় পাওনাদাররা তাদের ঘরের চালের টিন খুলে নিয়েছে। ঘটনার দু’দিন পরই আমি তাদের ঘরের চালের টিন লাগিয়ে ফেলতে বলেছি। কিন্তু তারা তা না মেনে পুলিশ ও সাংবাদিক এনে চালের টিন লাগাচ্ছে।

সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে করে তিনি আরও বলেন, এখানে সাংবাদিকগিরি করতে এসেছেন। আমার ইতিহাস জেনে নেবেন। আমি রিকশাচালক দেখলে মাথা নিচু করে হেঁটে চলে যাওয়ার মানুষ। আবার বিএনপি নেতা এ্যানি চৌধুরীর বাসায় একা ৭-৮ জনকে মারধরও করি।

এসময় উপস্থিত দুজন প্রতিবেশী তাকে শান্ত করার চেষ্টা করলে তাদেরকেও গালমন্দ করে দেখে নেয়ার হুমকি দেন তিনি।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানান, বসতঘরের চালা খুলে নেওয়ায় আবদুর রহিম পরিবার নিয়ে তিন দিন খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করেন। রবিবার (৩১ অক্টোবর) এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ পরিবেশন হয়। সংবাদটি জেলা পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামানের নজরে পড়লে তিনি ঘটনাটি খতিয়ে দেখতে সদর থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পায়।পরে পুলিশ সুপারের নির্দেশে ওই রিকশাচালকের ঘরের চালের টিন লাগানোর ব্যবস্থা করা হয় এবং ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার নির্দেশ দেন।

সোমবার (১ নভেম্বর) দুপুরে লক্ষ্মীপুর শহর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এমদাদুল হকের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা রিকশাচালকের বসতঘরের চালের টিন লাগিয়ে দেন। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় এ ঘটনায় আবদুর রহিম বাদী হয়ে অভিযুক্ত ইলিয়াসকে প্রধান করে ৬ জনের বিরুদ্ধে লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। তবে এর আগে সালিসি বৈঠকে উপস্থিত থাকা ও হুমকিদাতা ছাত্রলীগ নেতা জিয়াউল করিম নিশানের নাম মামলায় উল্লেখ করা হয়নি।

লক্ষ্মীপুর শহর পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক (তদন্ত) এমদাদুল হক বলেন, মামলার পরে অভিযান চালিয়ে প্রধান অভিযুক্ত ইলিয়াসকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে। ইলিয়াস দক্ষিণ মজুপুর এলাকার মো. সিরাজের ছেলে। ওই ছাত্রলীগ নেতা উত্তেজিত হয়ে গেছিলেন। তাকে আমরা বুঝিয়ে পাঠিয়ে দিয়েছি। তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ দেওয়া হয়নি। রিকশাচালকও তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ আনেননি। অভিযোগ পেলে কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।

Previous articleরাজধানীতে বিভিন্ন ধরনের মাদকসহ গ্রেফতার ১১৮
Next articleশ্রীপুরে রিপন হত্যা: মানবপাচারকারীদের বিরুদ্ধে স্বাক্ষ্য দেয়ায় পরিকল্পিত খুনের অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।