শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০২৪
Homeসারাবাংলাশ্রীপুরে রিপন হত্যা: মানবপাচারকারীদের বিরুদ্ধে স্বাক্ষ্য দেয়ায় পরিকল্পিত খুনের অভিযোগ

শ্রীপুরে রিপন হত্যা: মানবপাচারকারীদের বিরুদ্ধে স্বাক্ষ্য দেয়ায় পরিকল্পিত খুনের অভিযোগ

সুমন গাজী: শ্রীপুরে রিপন বেপারী হত্যা নিয়ে ধূম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। একদিকে এ ঘটনায় দায়েরকৃত মামলা নিয়ে বাদীর আপত্তি, অন্যদিকে তদন্তে গতি নেই। এমনকি গত ২৫ দিনে ধরা পড়েনি কোন আসামি।

স্বজনদের অভিযোগ, মানবপচারকারীদের বিরুদ্ধে স্বাক্ষ্য দেয়ায় পরিকল্পিতভাবে রিপন বেপারীকে হত্যা করা হয়েছে। এখন মামলাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করে অভিযুক্তরা পার পাবার অপকৌশল চালাচ্ছে।

জানা গেছে, গত ৫ অক্টোবর সকালে শ্রীপুর উপজেলার প্রহলাদপুর (নিগদীপাড়া) গ্রামের বিল থেকে রিপন বেপারীর (২৯) ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের পিতা জয়নাল বাদী হয়ে পরের দিন শ্রীপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-৫, ধারা ৩০২, ২০১ ও ৩৪ দন্ডবিধি। এতে আসামি হিসেবে তিনজনের নাম উল্লেখ করা হয়। তারা হলেন স্থানীয় মো. সফিকুল, মো. রাশিদুল ও মো. সামাদ বেপারী। এর মধ্যে রাশিদুল ও সামাদ বেপারী বাদীর নিকটাত্মীয়।

অর্থাৎ প্রথমজন মেয়ের জামাতা এবং দ্বিতীয়জন সহোদর। তবে এ দুইজনের নাম কিভাবে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, সে ব্যাপারে কিছুই জানেন না বাদী। বরং এক লিখিত অভিযোগে বাদী বলেন, ছেলের শোকে মানসিকভাবে অসুস্থ ছিলাম। ওই অবস্থায় স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তি এবং থানার পুলিশ অভিযোগ লিখে আমাকে না পড়িয়ে কিংবা না শুনিয়ে স্বাক্ষর করতে বললে আমি স্বাক্ষর দেই। তার অভিযোগ, মামলাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই পরিকল্পিতভাবে এ অভিযোগ সাজানো হয়েছে।

তিনি মামলাটি সিআইডি দ্বারা তদন্তেরও দাবি জানান। এদিকে এজাহারে আপত্তি দেয়ায় মানবপচারকারীদের হুমকির মুখে বাদী এখন পরিবার নিয়ে বাড়িছাড়া। অন্যদিকে মামলা দায়েরের ২৫ দিনেও শ্রীপুর থানার তদন্তকারী কেউ ঘটনাস্থলে আসেনি বলে অভিযোগ রয়েছে।

বাদীর অভিযোগ এবং নিহতের স্বজনদের ভাষ্যে, ঘটনার নেপথ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য মিলেছে। জানা গেছে, মামলার প্রধান অভিযুক্ত মো.সফিকুল স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী এবং মানবপাচারকারী দলের সক্রিয় সদস্য। ভালো চাকরির প্রলোভনে মোটা অংকের টাকা নিয়ে সে রিপন বেপারীকে লিবিয়া পাঠায়। তবে বৈধ কাগজপত্র না থাকায় লিবিয়া গিয়ে রিপন বিপাকে পড়ে। রিপন বেপারীর পিতা জয়নাল বিষয়টি সফিকুলকে জানালে সে তখন ইটালি পাঠাবার প্রলোভন দেখায়। এ জন্য আবারো মোটা অংকের টাকা নেয়। গত ২১ মে রিপন বেপারীসহ আরো অনেককে লিবিয়া থেকে সাগরপথে ইটালীর উদ্দেশে রওনা দেয়। এর মধ্যে কয়েকজন বাংলাদেশি ছিল।

বেশ কয়েকদিন ভূমধ্যসাগরে থাকার পর নৌকা ডুবে যায়। এতে নৌকাযাত্রী অনেকের সলিল সমাধি ঘটে। তবে সাঁতার জানায় রিপনসহ কয়েকজন বাঁচার চেষ্টা করে।এ অবস্থায় তিউনেশিয়ার উপকূল রক্ষীরা তাদের উদ্ধার করে। পরে আন্তর্জাতিক অভিভাসন সংস্থার (আইএমও) মাধ্যমে তাদের বাংলাদেশে পাঠানো হয়।

এদিকে মানবপাচারকারীদের বিরুদ্ধে তদন্তের অংশ হিসেবে প্রত্যাগতদের রাজধানীর মালিবাগে সিআইডি কার্যালয়ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ সময় রিপন বেপারী তার জবানবন্দিতে সফিকুলের মাধ্যমে কিভাবে প্রতারণার শিকার হয়েছেন তার আদ্যপান্ত তুলে ধরেন। বিষয়টি জানতে পেরেই সফিকুল ক্ষিপ্ত হন। জবানবন্দি প্রত্যাহার বা পাল্টানোর জন্য সে রিপন বেপারীকে চাপ দিতে থাকে। এমনকি তার কথা না শুনলে জীবননাশের হুমকিও দেয়া হয়। এরপরই খুন হন রিপন। আর খুনের দায় থেকে নিজেকে রক্ষা করতেই বাদীর মেয়ের জামাতা ও সহোদরকে জড়িয়ে এজাহার সাজানো হয়। এ জন্য সফিকুল মোটা অংকের অর্থ ব্যয় করেছে বলে অভিযোগকারীরা জানান। নিহত রিপন গাজীপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কাস্টমস কর্মকর্তা কফিল উদ্দিনের চাচাতো ভাই।

এ ব্যাপারে জানতে মুঠোফোনে শ্রীপুর থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক সাজিদ আহম্মদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, বাদীর কাছ থেকে কোন সহযোগিতা পাওয়া যাচ্ছে না। বাদী এজাহারের ব্যাপারেও আপত্তি জানিয়েছে। তারপরও তদন্ত চলছে। শিগগরিই খুনের রহস্য উন্মোচন হবে বলে তিনি দাবি করেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments