বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গাইবান্ধা সদর উপজেলায় রতনা বেগম (২৬) নামের এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার পর থেকে তার স্বামী খোলাহাটি ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী ফজলে রাব্বী পলাতক রয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আগামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় ইউপি নির্বাচনে তিনি সাধারণ সদস্য পদে মোরগ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সোমবার সকালে উপজেলার খোলাহাটি ইউনিয়নের উত্তর খোলাহাটি এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্র জানায়, উত্তর খোলাহাটি গ্রামের লতিফ মিস্ত্রির ছেলে ফজলে রাব্বী। তিনি একজন দাদন ব্যবসায়ী। প্রায় সাতবছর আগে তার সাথে ফুলছড়ি উপজেলার হোসেনপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের মেয়ে রতনা বেগমের সাথে বিয়ে হয়। রতনা বেগম দুই ছেলের মা। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে চাপ দিয়ে আসছেন ফজলে রাব্বী। একপর্যায়ে প্রায় ছয়মাস আগে ফজলে রাব্বী পরকীয়া করে ফারজানা বেগমকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এনিয়ে সংসারে প্রায়ই ঝগড়া-বিবাদ চলে আসছিল। এই ঘটনার জের ধরে সোমবার সকালে রতনা বেগমের সাথে ফজলে রাব্বীর তর্কবিতর্ক হয়। একপর্যায়ে রাব্বী তাকে লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকেন। এতে রতনা বেগমের মৃত্যু হলে তার লাশ খড়ের ঘরের ধরনার সাথে ওড়না পেঁচিয়ে ঝুলিয়ে রাখার চেষ্টা করে। এতে ব্যর্থ হলে প্রথম স্ত্রী রতনার লাশ বিছানায় রেখে ফজলে রাব্বী পালিয়ে যান। পরে আশপাশের লোকজন এসে রতনা বেগমের লাশ দেখে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এরপর পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের ফজলে রাব্বীর দ্বিতীয় স্ত্রী ফারজনা বেগমকে আটক করে। সোমবার দুপুর আড়াইটায় প্রতিকেদন লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

এ ব্যাপারে গাইবান্ধা সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবদুর রউফ জানান, এই ঘটনায় আটক সন্দেহভাজন ফারজানাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

Previous articleবেনাপোলে গণপরিবহন চললেও বন্ধ পণ্যবাহী ট্রাক
Next articleওসমানীতে সাড়ে ৩ কোটি টাকার স্বর্ণসহ যুবক গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।