বাংলাদেশ প্রতিবেদক: স্বামীকে জুয়া খেলা ও নেশার টাকার জন্য খুন করা হয়েছে পপি আক্তারকে। গত ৫ নভেম্বর শুক্রবার রাতে পপি আক্তারকে গলাটিপে খুন করেন তাঁর স্বামী আবুল বাশার সরদার। স্ত্রীকে খুনের পর পরই ৪ বছরের ছেলে তুহিনকে ঘুমন্ত অবস্থায় নদীতে ফেলে দেয় সে।

পুলিশের কাছে স্ত্রীকে খুনের স্বীকারোক্তি ও ছেলেকে নদীতে ফেলে দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন তিনি। পরে সোমবার বিকেলে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্ধীতেও স্ত্রীকে খুনের কথা বলেছেন বেদে আবুল বাশার সরদার। আবুল বাশার সরদার বাবুগঞ্জ উপজেলার ক্ষুদ্রকাঠি গ্রামের আনছার সরদারের ছেলে। প্রায় ৫ বছর আগে একই সম্প্রদায়ের ফজলু সরদারের মেয়ে পপি আক্তারের সাথে বিয়ে হয়েছিলো তার। তাঁরা মুলাদী উপজেলার বোয়ালিয়া এলাকায় নৌকায় বসবাস এবং মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করতো। নাজিরপুর নৌ পুলিশ জানায়, আবুল বাশার সরদার আদালতে জবানবন্ধীতে বলেছেন, তাঁর জুয়া খেলা এবং মদসহ মাদকের নেশা রয়েছে। বিয়ের পর থেকে এনিয়ে পপির সাথে কলহ সৃষ্টি হতো। পরবর্তীতে মাছ বিক্রির টাকা জুয়া খেলায় শেষ হয়ে গেলে পপি আক্তারের সাথে বাকবিতণ্ডা আরও বেড়ে যায়। এনিয়ে প্রায়ই সে পপিকে মারধর করতো।

গত ৫ নভেম্বর জুয়া খেলে নৌকার ফেরার পর রাত ৯টার দিকে পপির সাথে ফের ঝগড়া হয়। ওই সময় তাকে মারধর করে গলা টিপে হত্যা করেন আবুল বাশার সরদার। পরে ঘুমন্ত ছেলেকে মুক্তি দিতে নদীতে ফেলে দেন তিনি। পালিয়ে গেলে পুলিশ সন্দেহ করবে ভেবে সে নৌকায় থাকে এবং পপি কোথাও গেছে বলে জানায়। এবিষয়ে মুলাদী থানায় একটি জিডিও করেন তিনি। ৭ নভেম্বর সন্ধ্যায় লাশ পাওয়ার পরে সে বোয়ালিয়া ফাঁড়ি এলাকায় আতœগোপন করে। সেখান থেকে পুলিশ তাকে আটক করে। নাজিরপুর নৌ থানা ইনচার্জ ইমন কান্তি চৌধুরী জানান, পপি আক্তারের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। আবুল বাশার সরদার খুন ও ছেলেকে নদীতে ফেলার কথা স্বীকার করেছেন। তুহিনকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

Previous articleটাঙ্গাইলে সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ৭৩ বস্তা চাল উদ্ধার, গ্রেফতার ২
Next articleকোরআন হাতে শপথ করিয়ে ৫০টি পরিবারের ৪ কোটি টাকা নিয়ে উধাও!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।