বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নদী ফেলে দেওয়ায় ছয় দিন অতিবাহিত হলেও সন্ধান মেলেনি শিশু তুহিনের। গতকাল বুধবার বিকেল পর্যন্ত শিশুকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। শিশুটি বেঁচে থাকার সম্ভবনা কম থাকলেও সন্ধান চান স্বজনরা।

গত ৫ নভেম্বর রাতে শিশু তুহিনকে ঘুমন্ত অবস্থায় ফেলে দেন তার পিতা। এর আগে শিশুর মাকে গলাটিপে হত্যা করা হয়। তুহিনের সন্ধানে ইতিমধ্যে এলাকায় মাইকিং করা হয়েছে। জেলে ও বেঁদে পরিবারের লাশ দেখতে পেলে নৌ থানা এবং মুলাদী থানা পুলিশকে অবহিত করার অনুরোধ করেছেন। জানা গেছে, গত ৫ নভেম্বর রাত ৯টার দিকে উপজেলার আলীমাবাদ এলাকায় বেদে সম্প্রদায়ের আবুল বাশার সরদার নৌকায় তার স্ত্রী পপি আক্তারকে গলাটিপে হত্যা করেন। ওই সময়ই চার বছরের ঘুমন্ত শিশু তুহিনকে নদীতে ফেলে দেয় সে। স্থানীয়দের ধারণা ছোট ছেলে সাতার না জানায় এবং ঘুমন্ত অবস্থায় থাকায় নদীতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে। নাজিরপুর নৌ পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমন কান্তি চৌধুরী জানান, আবুল বাশার সরদারের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী শিশু তুহিনের বেঁচে থাকার সম্ভবনা নেই। তাই নিখোঁজ তুহিনের লাশ উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। ইতিমধ্যে ট্রলার নিয়ে মাইকিং করা হয়েছে।

Previous articleনোয়াখালীতে ভাতিজাকে হত্যায় চাচার মৃত্যুদন্ড
Next articleবন্যায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৫ কিলোমটিার বাঁধের ক্ষতি, ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।