শহিদুল ইসলাম: আগামি ২৮ শে নভেম্বর তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন।আসন্ন এ ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে শার্শা উপজেলার ৫নং পুটখালী ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী নাসিরের সমর্থকদের উপর অসংখ্য নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে।

২২শে নভেম্বর পুটখালী ইউনিয়ানে সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পুরো ইউনিয়ন থেকে প্রায় কয়েকশত পরিবার নির্বাচনি সহিংসতার শিকার হয়ে বাড়ি ছেড়ে পলাতক হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

শিবনাথপুর বারোপোতা গ্রামের সালাউদ্দিনের পুত্র রুবেল হোসেন বলেন, ২০শে নভেম্বর ১২:৩০ মিনিটে মিজান, ঘেনা, আমিনুর, শামীম, মিলন সহ ১০-১২ জন আমার বাড়িতে গিয়ে আমার বউকে হুমকি দেয় আমি কেন নৌকার বিপক্ষে ভোট করছি, এজন্য তারা আমাকে দেখে নেবে। আমাকে বাড়িতে না পেয়ে খোরশেদের ছেলে মিলন আমার ৯ মাস বয়সের শিশু কন্যাকে হাত ধরে টেনে হেঁচড়ে বাইরে ফেলে দেয়। আমার নিষ্পাপ শিশু কন্যাটি বর্তমানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আছে। আমার মা এবিষয়ে থানায় অভিযোগ দিতে গেলেও কোন অভিযোগ গ্রহণ করা হয়নি। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার চাই।

বালুন্ডা দক্ষিণপাড়া গ্রামের মৃত সুরত আলীর পুত্র ইমান আলী বলেন, আমি আওয়ামীলীগ পরিবারের সন্তান। আনারস প্রতীকের নির্বাচন করায় দলীয় নৌকা প্রতীকের গফ্ফার চেয়ারম্যানের ৪০-৫০ জন কর্মী আমার বাড়িতে গিয়ে নানা হুমকি ধামকি সহ ভাংচুর করে। আমি বর্তমানে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি জীবনের ভয়ে।

৩নং ওয়ার্ড খলশী গ্রামের আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ফুটবল প্রতীক নিয়ে মেম্বার পদপ্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমি আনারসের সমার্থন করায় আমার নির্বাচনি অফিসে অতর্কিত হামলা চালিয়ে আমাকে সহ আমার কয়েকজন সমার্থকে মারপিট করা হয়। আমি একজন মেম্বার প্রার্থী হওয়া সত্তেও আমাকে মেরে হাত ভেঙে দিয়েছে নৌকার সমর্থকরা। আমি কোন সহিংসতা চাইনা, একটি অবাধ সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচন চাই।

পুটখালী গ্রামের পারভিন সুলতানা বলেন, আমরা কয়েকজন মহিলা কর্মী স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইতে বারোপোতা গেলে গফ্ফারের সমর্থক বদি, কামরুল, সত্তার, ইয়ার আলী সহ কয়েকজন আমাদের উপর হামলা করে। আমার কোন রকমে পলায়ন করে রাত্র আটটায় বাসায় ফিরি। আমি চাই এসব গায়ের শক্তি বাদ দিয়ে একটা সুষ্ঠ নির্বাচন হোক।

এবিষয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী নাসির হোসেন বলেন, আমি জনগণের ভালবাসায় নির্বাচন করছি। কিন্তু ক্ষমতার জোরে গফ্ফার আমার সমার্থকের উপর নানা রকম হামলা সহ মিথ্যা মামলা দিয়ে নির্যাতন করছে। আমার ৫০০ কর্মী হামলা মামলার ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। আমি প্রশাসন এবং সরকারের নিকট একটি অবাধ সুষ্ঠ নির্বাচনের দাবী জানায়, যাতে জনগণ তাদের পছন্দ মত প্রার্থী নির্বাচন করতে পারে।

পুটখালী ইউনিয়ানের নির্বাচন সম্পর্কে বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি মামুন খান বলেন, দুই পক্ষ্যের সমার্থকদের কয়েকটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ছাড়া পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। সহিংসতা এরাতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Previous articleশাহজাদপুরে ইউপি চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা
Next articleডিমলায় পাটচাষী প্রশিক্ষণ কর্মশালা ২০২১ অনুষ্ঠিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।