জয়নাল আবেদীন: আগামী ২৬ ডিসেম্বর চতুর্থ ধাপে রংপুরের দুটি উপজেলা বদরগঞ্জ উপজেলার ১০টি এবং গঙ্গাচড়া উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দলের প্রার্থী ছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এই নির্বাচনকে ঘিরে দুটো উপজেলার ১৯টি ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের আচরণবিধি অবহিতকরণ ও আইনশৃংখলা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে । সেই সঙ্গে নির্বাচনী ভোট গ্রহণ কাজে প্রিজাইডিং অফিসার সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারদের প্রশিক্ষণ এবং মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে । দুটো উপজেলার ১৯ইউনিয়নের সর্বত্র ব্যাপক চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটলেও রংপুরের বদরগঞ্জে কালুপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে লড়ছেন একই পরিবারের তিনজন। তারা সম্পর্কে আপন ভাই হলেও ভোটযুদ্ধে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়ে কেউ কাউকে ছাড় দিচ্ছেন না। বরং নিজ নিজ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে গিয়ে করছেন পাল্টাপাল্টি বিষোদগার। তাদের মধ্যে এক ভাই শহিদুল হক আনারস প্রতীকে, মোতালেব হোসেন ঘোড়া প্রতীকে এবং একরামুল হক মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন।

ভোটাররা বলছেন, পারিবারিক বিরোধের জেরে এবারই প্রথম একই ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে তিন ভাই প্রার্থী হয়েছেন। শহিদুল হক ওই ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান। বড় ভাই একরামুল হক নব্বই দশকে চেয়ারম্যান ছিলেন।খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কালুপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ছয় প্রার্থী থাকলেও ভোটারদের আড্ডার আলোচনায় রয়েছেন প্রতিদ্বন্দ্বী আপন তিন ভাই। তারা একই পরিবারের হলেও ভোটযুদ্ধে কেউ কাউকে ছাড় দিয়ে কথা বলেছেন না। এতে তাদের নিয়ে চলছে সমালোচনাও। বর্তমান চেয়ারম্যান শহিদুল হক ২০০৩ সাল থেকে নির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে কালুপাড়া ইউনিয়নের দায়িত্ব পালন করছেন। তার বড় ভাই একরামুল হক ১৯৯১-৯৫ সালে চেয়ারম্যান ছিলেন। তবে দুই ভাইয়ের সঙ্গে মেজো ভাই মোতালেব হোসেনও প্রার্থী হয়েছেন। গত মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় ডান পা হারিয়েছেন তিনি। অসুস্থ শরীর নিয়েই ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ভোট চাচ্ছেন।ওই ইউনিয়নের ভোটার কৃষক বাবু মিয়া বলেন, তাদের তিন ভাইকে নিয়ে আমরা চিন্তিত। তারা যেভাবে একে অপরের সমালোচনা করে ভোট চাইছেন, এতে গ্রামের মানুষ হাটে বাজারে, চায়ের দোকানে বসে হাসাহাসি করছেন। তবে ভোটারদের এসব অভিযোগ নিয়ে চিন্তিত নন বর্তমান চেয়ারম্যান শহিদুল হক। তিনি জানান, তার বড় দুই ভাই ঈর্ষান্বিত হয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হয়েছেন।

ভোটাররা এলাকার উন্নয়ন দেখে ভোট দেবেন। সাবেক চেয়ারম্যান একরামুল বলেন, শহিদুল আমার ছোট ভাই। দীর্ঘদিন ধরে চেয়ারম্যানের দায়িত্বে থেকে সে এলাকার কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন করতে ব্যর্থ হয়েছে।তাই ভোটারদের অনুরোধে আমি প্রার্থী হয়েছি। আমার প্রতি এলাকার মানুষের আস্থা রয়েছে। অন্যদিকে মেজো ভাই মোতালেব বলেন মানুষ পরিবর্তন চায়। আমরা সম্পর্কে ভাই হলেও অতীত দেখেই ভোটাররা পক্ষ নেবেন। আমার ছোট ভাই শহিদুল চেয়ারম্যান ইউনিয়নে তেমন উল্লেখযোগ্য কোনো কাজ করেনি। ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে ভোটাররা তার প্রতি বিমুখ। এদিকে প্রতীকে অগ্নিসংযোগ, শীতে চাদর কম্বলের বিনিময়ে ভোট গ্রহণ, আটক,এরপর পালিয়ে যাওয়া সহ নানান কান্ড চলছে এই দুই উপজেলায় । আবার দলের বিপক্ষে অবস্থান নেয়ায় ৬জনকে দল থেকে বহিস্কার করেছে আওয়ামীলীগ

Previous articleজামাইয়ের সাথে পালালেন শাশুড়ি! পুলিশের দ্বারস্থ মেয়ে
Next articleআশুলিয়ার বাইপাইল-আব্দুল্লাহপুর মহাসড়কের পাশে পলিথিনে মোড়ানো কাটা পা উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।