ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিসিক শিল্প নগরী জায়গার সল্পতাসহ বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত। সড়কের বেহাল অবস্থা ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা অচল হয়ে পড়ায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে এসকল সমস্য চলমান থাকায় বড় ধরণের বিনিয়োগে আগ্রহ হারাচ্ছেন অনেকেই।

বিসিক সূত্রে জানা যায়, চাঁপাইনবাবগঞ্জের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও শিল্পায়নের লক্ষ্যে শহরের উপকন্ঠ চাঁপাইনবাবগঞ্জ- গোমস্তাপুর আঞ্চলিক সড়কের পাশে নয়াগোলা এলাকায় ১৯৯৭ সালে গড়ে তোলা হয় বিসিক শিল্পনগরী। ১১ দশমিক ১০ একর জমির উপর ২২টি বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে। চাহিদার তুলনায় শিল্পনগরীকে আরো বর্ধিত করা প্রয়োজন, তাহলে শিক্ষাজীবন শেষ করে চাকরির পেছনে না ছুটে সফল উদ্যোক্তা হতে পারবে।

উদ্যোক্তা তৈরি করার জন্য আওয়ামী লীগ সরকার সব ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। পাশ করেই চাকরির পেছনে না ছুটে নিজেরা উদ্যোক্তা হবে এবং অন্যকে চাকরি দেওয়ার সুযোগ তৈরি করতে পারবে। সেইসাথে এ জেলার আর্থনীতির চাকা আরও গতিশীল হবে। সেখানকার ব্যবসায়ীরা জানান, দীর্ঘ দিন ধরে বিসিক শিল্প নগরীর অভ্যন্তরের প্রায় সবকটি রাস্তাই খানাখন্দে ভরপুর। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে পানি জমে পুরো রাস্তা কর্দমাক্ত হয়ে ভোগান্তির কয়েকগুন ছাড়িয়ে যায়। ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকা, ঘন্টার পর ঘন্টা বিদ্যুৎ না থাকাসহ নানাবিধ সমস্যায় পড়তে হয় ব্যবসায়ীদের। শুধু তাই নয় অনেক ব্যবসায়ী কষ্ট করে হলেও তাদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। সেখানকার কয়েকজন মালিক বলেন, অনেক দিন ধরে বিসিকের প্রায় সকল রাস্তাগুলো ভাঙ্গা পড়ে আছে।

এমনকি খানাখন্দ সৃষ্টি হয়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে কারাখানায় পানি ঢুকে পড়ে এবং পণ্যেরও ক্ষতি হয়। যে জায়গা নিয়ে শিল্পনগরী গড়ে উঠেছিল প্রথম অবস্থাতেই সবগুলো প্লট বিক্রি হয়ে যায়। পরবর্তীতে আগ্রহী ব্যবসায়ীদের ইচ্ছা থাকলেও কোন প্লট না পাওয়ায় শিল্পনগরীতে নতুন করে কোন শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেনি। বিসিক এলাকায় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুত ব্যবস্থা থাকলে উৎপাদন ব্যাহত হবে না।

শিল্প নগরীতে পুরো এলাকায় সীমানা প্রাচীর না থাকায় এখনো সেটি অরক্ষিত। এছাড়া প্রবেশদ্বার ২টিতে ফটক নির্মাণ করলে সুরক্ষিত হবে। এদিকে শিল্পনগরীর আলমগীর কটন মিলসের স্বত্বাধিকারী মোঃ আলমগীর হোসেন বলেন, বিসিক কর্তৃপক্ষকে সার্ভিস চার্জ দেয়া হলেও তারা কোন পরিস্কার করে না। পানি নিস্কাশনে নিজ নিজ দায়িত্ব নিয়ে করতে হয়। ড্রেনেজ ব্যবস্থা মহানন্দা নদীর সাথে সংযোগ থাকলেও বিসিক শিল্পনগরীর সামনে বালু ব্যবসায়ী বালুরস্তুপ রাখার কারণে ড্রেনে বালুগুলো পড়ে গেলে পানি প্রবাহিত না হওয়ায় বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। সেসময় পানি উপচে কারখানায় ঢুকে পড়ে এবং পণ্যগুলো ক্ষতির মুখে পড়ে। বালু সরানোর জন্য বালু ব্যবসায়ীকে বারবার বলা হলেও তিনি কর্ণপাত করছেন না। এক্ষেত্রে ড্রেনের পাশ দিয়ে প্রাচীর তোলার পাশাপাশি আর বালুরস্তুপ সরানো হলে এ সমস্যা অনেকাংশে দূর হবে। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনকেও অবহিত করা হয়েছে।

এছাড়া, জায়গা বাড়ানো হলে আরো নতুন নতুন বিনিয়োগ হবে। এ ব্যাপারে বিসিকের সহকারি মহাব্যবস্থাপক মোঃ রায়হান আলী এ প্রতিবেদককে জানান, এ শিল্প নগরী বর্তমান প্রেক্ষাপটে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন। জায়গার স্বল্পতার কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, নতুন জায়গা বৃদ্ধির ব্যাপারে ২০১৬ সালে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে। জায়গা পাওয়া গেলে আরো নতুন নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি হবে, এ জেলার অর্থনীতির চাকা আরো গতিশীল হবে। যে সমস্যাগুলো রয়েছে সেগুলোর টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে, অচিরেই কাজ শুরু হবে।

Previous articleউল্লাপাড়ায় গরীব ঘরের একই পরিবারের আপন তিন বোন বাক প্রতিবন্ধী
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে ভাঙ্গারি দোকানে মিললো বিষধর রাসেল ভাইপার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।