আহম্মদ কবির: সুনামগঞ্জ দেশের দ্বিতীয় রামসার সাইট মা মাছের অভয়ারণ্য টাঙ্গুয়ার হাওরের খাল-বিল দখল করে অবৈধভাবে মশারি জালের বাঁধ দিয়ে মৎস্য নিধন করছে স্থানীয় কিছু সংঘবদ্ধ উগ্রপন্থী জেলেরা। টাঙ্গুয়ার হাওরের পানি কমতে শুরু হওয়ায়,হাওরের চতুর্পাশে অবৈধ মৎস্য শিকারীদের তৎপরতা বেড়ে গেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার (২৩ডিসেম্বর)সরেজমিনে টাঙ্গুয়ার হাওরে ঘুরে দেখা যায়, টাঙ্গুয়ার হাওরের বাফার জোন বিল অংশ বিশেষ,বেরবেরিয়া,সোনাডুবি,সামসাগর,সমসার বিল,নয়হাল,বাগমারার গুপ,পুরান বাগের ডুবা, এ্যারাইল্যাকুনা বিল,সহ কয়েকটি বিলে মশারি জাল ও বাঁনার বাঁধ দিয়ে,অবৈধ ভাবে মৎস্য নিধন করছে স্থানীয় কিছু সংঘবদ্ধ জেলেরা।এতে বিল গুলোতে মাছ শূন্যতার আশঙ্কা রয়েছে বলে জানান স্থানীয় সমবায় সমিতির সদস্যরা।

স্থানীয়রা জানান প্রতি বছরই এই বিল গুলো টাঙ্গুয়ার হাওর কেন্দ্রীয় সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির অন্তর্ভুক্ত গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির সদস্যরা,সরকার অনুমোদিত লাইসেন্স ক্রয়ের মাধ্যমে, সরকার অনুমোদিত নির্দিষ্ট মৎস্য আহরণের সরঞ্জাম দিয়ে,জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত তিন মাস মৎস্য আহরণ করে থাকে। কিন্তু এ বছর যেভাবে অবৈধ ভাবে মৎস্য নিধন হচ্ছে,বিলগুলোতে মৎস্য শূণ্য হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।যার ফলে বিল গুলোর লাইসেন্স বা পারমিট বিক্রয়ে বিঘ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এতে সরকার হারাবে কয়েক লক্ষাধিক টাকার রাজস্ব এবং একমাত্র বাৎসরিক আয়ের উৎস হতে বঞ্চিত হবে স্থানীয় সংগঠন। যার ফলে টাঙ্গুয়ার হাওর ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ সহ কমিউনিটি গার্ড পরিচালনা ও সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হবে না বলে জানান তারা।এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ অবৈধ মৎস্য নিধনকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে সরকার হারাবে রাজস্ব ও সংগঠন হারাবে বাৎসরিক আয়।

এ ব্যাপারে টাঙ্গুয়ার হাওর কমিউনিটি গার্ডের সুপারভাইজার বকুল মিয়া জানান,আমাদের জনবল একেবারেই কম আমিসহ মাত্র ৫জন,একজন সবসময় ক্যাম্পে থাকতে হয়,যদি কোন কারণে একজন ছুটিতে চলে যায় আমাদের টহল কার্যক্রম চালানো অসম্ভব হয়ে যায়।এমতাবস্থায় যতটুকু সম্ভব কাজ করে যাচ্ছি।

টাঙ্গুয়ার হাওর কেন্দ্রীয় সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক আহম্মদ কবির এর কাছে জানতে চাইলে উনি বলেন,গত কয়েক দিনে বেশ কয়েকটি মশারি জালের বাঁধ উচ্ছেদ ও কোনাজাল আটক করে আগুনে পুড়ে ধ্বংস করা হয়েছে। কিন্তু আমাদের জনবল স্বল্পতার কারনে।কিছু এলাকায় সংঘবদ্ধ উগ্রপন্থী অবৈধ জেলেদের মশারি জালের বাঁধ রয়েছে এগুলো উচ্ছেদ করা আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়,এতে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করি।

Previous articleদেশবাসী দাসত্ব ও মৃত্যুপুরীর আবহের মধ্যে বসবাস করছে: রিজভী
Next articleঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডে হতাহতের ঘটনায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীর শোক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।