বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঢাকা থেকে বরগুনাগামী অভিযান-১০ লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিখোঁজ যাত্রীদের তথ্য দিতে পারছে না বরগুনা নৌবন্দর কর্তৃপক্ষ। এমন অভিযোগ করছেন নিখোঁজদের স্বজনরা।

রাজধানী ঢাকা থেকে পাঁচ শতাধিক যাত্রী নিয়ে ছেড়ে আসা বরগুনাগামী লঞ্চ এমভি অভিযান-১০-এ ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ঘটে।

বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে ঝালকাঠি সদর উপজেলার গাবখান ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের গাবখান চ্যানেলের কাছে সুগন্ধা নদীর মাঝখানে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে লঞ্চটি।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩৯ জনের লাশ পাওয়া গেছে। আহত হয়েছে দুই শতাধিক। কতজন নিখোঁজ আছেন সে তথ্য এখনো নিতে পারছেন না বন্দর কর্তৃপক্ষ। ঘটনার পর থেকে স্বজনদের সাথে যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে লঞ্চে থাকা যাত্রীদের। তাই তাদের খোঁজে বরগুনা নৌবন্দরে এসেছেন লঞ্চে থাকা যাত্রীদের স্বজনরা। এখানে এসে কোনো তথ্যই মেলাতে পারছেন না তারা। নিখোঁজ যাত্রীদের তথ্য দেয়ার মতো কোনো ব্যবস্থা নেই বন্দরে।

লঞ্চ দুর্ঘটনার পরপরই লঞ্চে থাকা যাত্রীদের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় স্বজনদের। নিখোঁজ যাত্রীদের সন্ধানে বরগুনা নৌবন্দরে ভিড় করছেন স্বজনরা।

আগুন লাগার পর অনেক যাত্রী প্রাণ বাঁচাতে লঞ্চ থেকে লাফিয়ে পড়েছেন। এতে হতাহতের সংখ্যা বাড়বে বলে ধারণা করছেন লঞ্চ দুর্ঘটনা থেকে ফিরে আসা যাত্রীরা।

বেঁচে ফিরে আসা সাংবাদিক সানাউল্লাহ জানান, লঞ্চটি ঝালকাঠি টার্মিনালের কাছাকাছি পৌঁছালে ইঞ্জিনরুমে আগুন লেগে যায়। আগুন মুহূর্তেই পুরো লঞ্চে ছড়িয়ে যায়। তিনি নদীতে ঝাঁপ দিয়ে সাঁতরে তীরে উঠতে সক্ষম হন।

সাংবাদিক সানাউল্লার মতো এমভি অভিযান-১০-এর দুর্ঘটনা কবল থেকে বরগুনায় ফিরে এসেছে শহরের ক্রোক এলাকার বাসিন্দা বাবা রাজু আহমেদ, ছেলে হৃদয় (১২), মিম (৫), স্ত্রী মমতাজ, শহরের কাঠপট্টি এলাকার ছেলে মীর ফাইয়াজ, বন্ধু আশিক আহমেদ, রাইসুল আকরাম।

বরগুনার বেতাগী উপজেলার কাউনিয়া সিকদার বাড়ির রিনা বেগম (৩৮) ও তার মেয়ে লিমা (১৪) নিখোঁজ রয়েছেন। লিমা বেগমের ছেলে কাউনিয়া এমদাদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্র রনি (১৫) লঞ্চ থেকে লাভ দিয়ে পড়ে অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন। বর্তমানে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এছাড়াও বরগুনার অধিকাংশ যাত্রীই বরগুনা সদর উপজেলার ফুলঝুরি, বেতাগী উপজেলার কালিকাবাড়ী, বামনা উপজেলার রামনা, পাথরঘাটা উপজেলার কাকচিড়াসহ বিভিন্ন এলাকার অনেকেই নিখোঁজ রয়েছেন।

বর্তমানে ঘটনাস্থলে উদ্ধার কাজ চলমান রয়েছে। উদ্ধার তৎপরতায় রয়েছে ফায়ার সার্ভিস, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট এর ঝালকাঠি যুব সদস্য, কোস্টগার্ড ও পুলিশ সদস্যরা।

বরগুনা নৌবন্দরের সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ জানান, লঞ্চটিতে চার থেকে ৫ শ’ যাত্রী বহন করতে পারে। তাদের উদ্ধারে বরিশাল নৌবন্দর কর্তৃপক্ষ কাজ করছে। তবে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পরপরই ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স-এর সাথে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি ঝালকাঠি ইউনিটের যুব সদস্যরা উদ্ধার কাজে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। পরবর্তীতে যুক্ত হয়েছে কোস্টগার্ডসহ সরকারের বিভিন্ন সংস্থা।

ইতোমধ্যে বরগুনা জেলা প্রশাসন থেকে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিকসহ কয়েক জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ঝালকাঠির উদ্দেশ্যে রওনা করেছেন।

নৌ বন্দরের সহকারী পরিচালক মামুনুর রশিদ সকাল সাড়ে আটটার দিকে ঝালকাঠির উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। তবে যাত্রীদের নাম ঠিকানা জানাতে পারেননি এই নৌবন্দর কর্মকর্তা।

Previous articleআজ অথবা কাল যুক্তরাষ্ট্রকে সিরিয়া ছাড়তে হবে: রাশিয়া
Next articleইসি গঠনে রাষ্ট্রপ‌তির সংলাপ রাজ‌নৈ‌তিক তামাশা: ডা: ইরান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।